বগুড়ায় তৈরি হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর সেমাই

ঢাকা, রবিবার, ৭ জুন ২০২০ | ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

বগুড়ায় তৈরি হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর সেমাই

বগুড়া প্রতিনিধি ১:১৩ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০২০

print
বগুড়ায় তৈরি হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর সেমাই

বগুড়া শহর, শহরতলী ও উপজেলা পর্যায়ের গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন কারখানায় তৈরি হচ্ছে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই। প্রতি বছর ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জরিমানা ও সতর্ক করা হলেও একই চিত্র চলতি রমজান মাসেও দেখা গেছে বেশ কয়েকটি কারখানায়।

শহরের চেয়ে গ্রামাঞ্চলের বেশি সংখ্যক কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরি করা হয়ে থাকে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

জানা গেছে, প্রতি বছর পবিত্র রমজানের প্রায় দুই সপ্তাহ আগে থেকে বগুড়া শহর, শহরতলী ও বিভিন্ন উপজেলা সদর, ইউনিয়ন ও গ্রামে বিভিন্ন নামের কারখানায় তৈরি হয় লাচ্ছা সেমাই। সেগুলো কতটা স্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি হচ্ছে তা হয়তো সাধারণ মানুষ সহজেই বুঝতে পারেন না। কারণ প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিতে মধ্যরাতেও কিছু কিছু কারখানায় লাচ্ছা সেমাই তৈরি করা হয়। আর এ কারণে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ বছরও রমজান মাসের আগে থেকেই ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হচ্ছে। ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনাকালে বেশ কয়েকটি কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরির অপরাধে জরিমানা করা হয়েছে।

বগুড়া পৌরসভার স্বাস্থ্য পরিদর্শক মো. শাহ আলী খান জানান, গত বৃহস্পতিবার বগুড়া শহরের নিশিন্দারা উত্তরপাড়ায় মেসার্স মজিদ প্রডাক্টসের কারখানায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এটিএম কামরুল ইসলাম। ওই সময় অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরির প্রমাণ মেলে ওই কারখনায়। এ অপরাধে কারখানা মালিক আজাদুল ইসলাম ও তোফাজ্জল হোসেনকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

একই অপরাধে গত ১১ মে কাহালু উপজেলার বীরকেদার ইউনিয়নের শেখাহার এলাকায় বগুড়া-নওগাঁ আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে নূর লাচ্ছা কারখানা মালিকের ১০ হাজার টাকা, ৯ মে বগুড়া শহরের বৃন্দাবন দক্ষিণপাড়ার সোমা লাচ্ছা কারখানা মালিককে ৩০ হাজার টাকা, ৭ মে শহরের জনপ্রিয় ট্রেডার্সকে ৪০ হাজার টাকা, ৪ মে গাবতলী উপজেলার কাগইল এলাকার স্বর্ণা লাচ্ছা কারখানা মালিককে ২০ হাজার টাকা, ২ মে গবরধনপুরের বিলাস লাচ্ছা কারখানা মালিককে ২০ হাজার টাকা, একইদিন শহরের কৈগাড়ী এলাকার ডায়মন্ড লাচ্ছা কারখানা মালিককে ১০ হাজার টাকা, ১ মে ধরমপুর এলাকার আজমেরী লাচ্ছা কারখানা মালিককে ২৫ হাজার টাকা, ২৯ এপ্রিল বৃন্দাবন দক্ষিণপাড়ায় আকবর লাচ্ছা কারখানা মালিককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

তিনি আরও জানান, এপ্রিল ও মে মাসের বিভিন্ন সময়ে আরও ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়েছে এবং আরও বিভিন্ন কারখানার জরিমানা হয়েছে। বগুড়া শহরের চেয়ে গ্রামাঞ্চলের বেশি সংখ্যক কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে লাচ্ছা সেমাই তৈরি হয়। তারা প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিতে দিনে কারখানা বন্ধ রেখে রাতের অন্ধকারে লাচ্ছা সেমাই তৈরি করে।