সাক্ষীকে সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দিল পুলিশ

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৩ আশ্বিন ১৪২৭

সাক্ষীকে সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দিল পুলিশ

পাবনা প্রতিনিধি ১০:৪৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২১, ২০২০

print
সাক্ষীকে সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দিল পুলিশ

পাবনায় ধর্ষণ মামলার এক সাক্ষীকে ডেকে সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে। সন্ত্রাসীরা এ সময় যুবককে কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় সদর উপজেলার মালিগাছা ইউনিয়নের গাছপাড়া বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আহত যুবকের নাম আবদুল আলীম। তিনি পাবনা পৌরসভার নূরপুর এলাকার মৃত ডা. আয়নুল হকের ছেলে।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবদুল আলীম জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় পাবনা সদর থানার ওসি (তদন্ত) খাইরুল ইসলাম একটি ধর্ষণ মামলার বিষয়ে কথা বলার জন্য আমাকে গাছপাড়া বাজারে ডেকে নেন। সেখানে অবস্থান করছিলেন ধর্ষণ মামলার আসামি মালিগাছা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শরিফুল ইসলাম শরিফের ছোটভাই আরিফুলের সন্ত্রাসী বাহিনী। আমি সেখানে পৌঁছলে পুলিশের সামনেই আমাকে এলোপাতাড়ি লোহার রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে পিটিয়ে ও কুপিয়ে আহত করে তারা।

এ ঘটনায় ফাঁস হওয়া সিসিটিভি ফুটেজে পাবনা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খাইরুল ইসলাম ও এক কনস্টেবলকে ঘটনাস্থলে দেখা গেছে। এ ঘটনায় ওই পুলিশ কর্মকর্তা ও সন্ত্রাসীদের বিচার দাবি করেছেন ভুক্তভোগীর স্বজনরা। এদিকে গত সোমবার রাতে আহত আবদুল আলীমের স্ত্রী রুমা খাতুন বাদী হয়ে ১০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ১০/১৫ জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ দুজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতাররা হলেন- মনোহরপুর গ্রামের তোফাজ্জল হোসেন ও আশরাফ প্রামানিক।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা খাইরুলের বক্তব্য নিতে তার কার্যালয়ে গিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। তিনি একটি মামলায় সাক্ষ্য দিতে রাজশাহী গেছেন বলে জানান পাবনা সদর থানার ওসি নাসিম আহম্মেদ। পরে তার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া গেছে।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস হামলার ঘটনাকে আকস্মিক ও অনাকাক্সিক্ষত দাবি করে বলেন, তদন্তকারী কর্মকর্তার গাফিলতি আছে কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনা তদন্তে ইতিমধ্যেই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গোয়েন্দা) শামিমা আকতারকে প্রধান করে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।