তাড়াশে দখল-দূষণে গতিহারা করতোয়া

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬

তাড়াশে দখল-দূষণে গতিহারা করতোয়া

আশরাফুল ইসলাম রনি, তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) ৫:৪০ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৭, ২০১৯

print
তাড়াশে দখল-দূষণে গতিহারা করতোয়া

সিরাজগঞ্জের তাড়াশে দখল আর দূষণে গতি হারাচ্ছে করতোয়া নদী। দিন দিন বেড়েই চলেছে দখলদারের সংখ্যা। পানি উন্নয়ন বোর্ড শতাধিক দখলদারের তালিকা করলেও উচ্ছেদ অভিযান হয়নি একবারও।

জানা যায়, করতোয়া নদী উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের বুক চিরে প্রবাহিত হয়ে সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়ার ফুলজোর নদীতে গিয়ে মিলেছে। নদীটিতে একদিকে পানি শূন্যতায় প্রবাহ বন্ধ, অন্যদিকে ভরাট আর দখলের ফলে নদীটি এখন মৃতপ্রায়। নওগাঁ বাজারের দক্ষিণ পাশে যে যেখানে পেরেছে ভবন নির্মাণ করেছে ইচ্ছেমত।

দখল করা নদীর পাশে নির্মাণ করা হয়েছে শত শত বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বিশাল বিশাল ভবন। সুযোগমত প্রভাবশালীরা নামে বেনামে নদীর তীর দখল করে নিচ্ছে। নদীর তীর ঘেঁষে গড়ে উঠেছে ভবন। ভবনগুলোর ড্রেনেজ ব্যবস্থা করা হয়েছে নদীর বুকে।

উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের নওগাঁ গ্রামের খন্দকার তারা মিয়া, মো. নিরু হোসেন, বাবর আলী বাবু, রফিকুল ইসলাম, কুদ্দুস আলীসহ অনেকেই বলেন, করতোয়া নদীটি আগে অনেক বড় ছিল। কিন্তু অবৈধভাবে বড় বড় ভবন করার ফলে নওগাঁ হাটে এখন আর নৌকা ঘাটে পৌঁছাতে পারে না।

আমারা এসব দখলদারদের উচ্ছেদ করে নদীটির প্রবাহ ঠিক রাখার দাবি জানাচ্ছি। তবে দখল করে নয় পৈত্রিক সম্পত্তি, কেনা এবং নিজের জায়গায় ঘর নির্মাণ করছেন বলে জানান স্বপ্ন কুমার ডাকু, বেনু সরকার, উৎপল সরকার, জিল্লুর রহমান শিমুল, ওহাব আলী, আলহাজ সোরাফ, ইউনুস আলী ও মানিক মিয়া।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম জানান, আমি প্রতিনিধি পাঠিয়েছি সরেজমিন দেখে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতা নিয়ে নদীটি দখলমুক্ত করতে। অবৈধ দখলদাদের উচ্ছেদে প্রয়োজনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।