ব্যস্ততা বেড়েছে কামারদের

ঢাকা, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ব্যস্ততা বেড়েছে কামারদের

সুকুমল কুমার প্রামাণিক, রাণীনগর (নওগাঁ) ৪:২৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০৬, ২০১৯

print
ব্যস্ততা বেড়েছে কামারদের

আসন্ন ঈদুল আযহাকে ঘিরে কোরবানির পশু জবাইয়ের সময় যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে কামারদের ব্যস্ততা। একদিকে হাপরে আগুনের শিখা অন্যদিকে হাতু পেটানোর টুংটাং শব্দে তৈরি হচ্ছে দা, বঁটি, ছুরি, চাপাতি। শহর থেকে শুরু করে গ্রামসহ সবখানেই কামাররা ব্যস্ত পুরোনো দা, ছুরি এবং বঁটিতে শাণ দিতে। আবার মোটর চালিত মেশিনে শাণ দেয়ার কাজ চলছে পুরানো গুলোর।

কেউবা ব্যস্ত নতুন নতুন দা-ছুরি তৈরিতে। তাই দম ফেলার যেন সময় নেই তাদের। সারা বছর অনেকটা অলস সময় পার করলেও এখন কামাররা ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।

রাণীনগর উপজেলার বিভিন্ন কামারদের দোকান ঘুরে দেখা গেছে, কোরবানি দাতারা কোরবানির পশু কাঁটাছেড়া করার জন্যে পরিবারের ব্যবহৃত ও অব্যবহৃত সবকটি দা ছুরি, ধামা আর বটি শাণ দেয়ার জন্যে নিয়ে আসছে কামারদের কাছে। ফলে সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে কামারদের বিরামহীন ব্যস্ততা।

কামারের দোকানে অনেকেই বসে আসছেন একজন ক্রেতা ছমির উদ্দিন বলেন, কয়েক দিন আগে একটা চাপাতি এবং বড় চাকু দিয়েছি। তা তৈরি না হওয়ায় আধা ঘন্টা বসে থেকে তা তৈরী করে নিলাম। কামার দোকান গুলোতে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েছে। অন্য সময়ের চেয়ে দোকানে কর্মচারীর সংখ্যাও বেড়েছে। পোড়া কয়লার গন্ধ, হাপরের হাঁসফাঁস আর হাতুড়ি পেটানোর টুংটাং শব্দে তৈরি হচ্ছে চকচকে ধারালো দা, চাপাতি, ছুরি, বঁটিসহ নিমিষে মাংস কাটা-কুটার উপকরণ।