কোমল পানীয়র মধ্যে বিষ মিশিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যাচেষ্টা

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

কোমল পানীয়র মধ্যে বিষ মিশিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যাচেষ্টা

গুরুদাসপুর (নাটোর) প্রতিনিধি ৬:৫০ অপরাহ্ণ, জুন ১৬, ২০১৯

print
কোমল পানীয়র মধ্যে বিষ মিশিয়ে স্কুলছাত্রীকে হত্যাচেষ্টা

নাটোরের গুরুদাসপুরে বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেণীতে পড়ুয়া মোছা.ইসরাত জাহান (১৪) নামে এক ছাত্রীকে রাস্তার মাঝে আটকে জোড় করে কোকের মধ্যে বিষ দিয়ে হত্যা চেষ্ঠার অভিযোগ উঠেছে অজ্ঞাত কয়েকজন বখাটের বিরুদ্ধে। রোববার দুপুর ১.৩০ মিনিটের সময় উপজেলার ফায়ার সার্ভিস রোড এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। আহত ছাত্রী উপজেলার পৌর সদরের চিৎলাপাড়া এলাকার মো.সাইফুল ইসলামের মেয়ে।

স্কুল ছাত্রী জানায়, রোববার সকালে বাড়ি থেকে টিফিন সাজিয়ে স্কুলে যাই। তারপর দুপুরে বান্ধবীদের সাথে টিফিন খেয়ে অতিরিক্ত গরমের কারনে স্কুল ১.২০ মিনিটে ছুটি দেয়। স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে ফায়ার সার্ভিস এলাকার রোড দিয়ে বাড়িতে যাচ্ছিলাম। হঠাৎ করেই হেলমেড পড়া দুই জন ছেলে আমার পথ আটকে তাদের হাতে থাকা কোক জোড় করে খাইয়ে দিয়ে তারা পালিয়ে যায়। কোক খাওয়ার পর পরই আমার খারাপ লাগতে থাকলে আমি অটো ভ্যান যোগে বাড়িতে যাই। বাড়িতে গিয়েই মাটিতে পড়ে যাই। তারপর আমাকে পরিবারের লোকজন গুরুদাসপুর উপজেলা স্ব্যাস্থ কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

বেগম রোকেয়া গার্লস স্কুল এন্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো.আনিসুর রহমান জানান, এরকম ধরনের ঘটনা আজ এই প্রথম ঘটেছে আমাদের স্কুলের একজন ছাত্রীর সাথে। তবে যারা জড়িত আছে তাদের আমরা চিহ্নিত করার চেষ্ঠা করছি।

গুরুদাসপুর উপজেলা স্ব্যাস্থ কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. মো. আলতাফ হোসেন জানান, প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে ভর্তি করা হয়েছে। তবে নির্দিষ্ট কোন বিষ বোঝা যায়নি। কিছু সিমটম পাওয়া গেছে। এখন সে মোটামুটি সুস্থ। আমরা তাকে পর্যবেক্ষন করছি। গুরুত্বর হলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোজাহারুল ইসলাম জানান, এখন পর্যন্ত এ বিষয়ে লিখিত বা মৌখিক কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে দোষিদের চিহ্নিত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনা হবে।