নাটোরে ঘরে মায়ের ও পুকুরে সন্তানের মরদেহ

ঢাকা, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯ | ২ শ্রাবণ ১৪২৬

নাটোরে ঘরে মায়ের ও পুকুরে সন্তানের মরদেহ

নাটোর প্রতিনিধি ১১:০২ পূর্বাহ্ণ, মে ১৫, ২০১৯

print
নাটোরে ঘরে মায়ের ও পুকুরে সন্তানের মরদেহ

নাটোরের নলডাঙ্গা উপজেলার বাশিলা উত্তরপাড়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে গলায় ওড়না পেঁচানো মা শারমিন বেগমের ও বাড়ির পাশের পুকুর থেকে শিশু সন্তান আব্দুল্লাহর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকালে লাশ দু’টি উদ্ধার করা হয়।

নিহত শারমিন বেগম ও আব্দুল্লাহ ওই এলাকার মাহামুদুল হাসান মুন্নার স্ত্রী ও সন্তান।

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে নলডাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শফিকুর রহমান জানান, উপজেলার বাশিলা উত্তরপাড়া গ্রামের আমজাদ হোসেনের ছেলে মাহামুদুল হাসানের সাথে একই উপজেলার হরিদাখলসি গ্রামের শারমিন বেগমের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই মাহামুদুল ঢাকার একটি গার্মেন্টসে চাকরি করেন এবং সেখানেই বসবাস করেন। মাঝে মাঝে ছুটিতে বাড়িতে আসেন। এ সময় তার স্ত্রী-সন্তান এবং বাবা ও মা-সহ পরিবারের সাথেই থাকতেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে খাওয়া-দাওয়া শেষে শারমিন বেগম তার শিশু সন্তান আব্দুল্লাহকে নিয়ে তাদের শোবার ঘরে চলে যান। পরে সেহেরি করার সময় পরিবারের লোকজন তাকে ডাকতে গেলে ঘরের ভেতরে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় তার মরদেহটি পড়ে থাকতে দেখে। এ সময় পরিবারের সদস্যদের চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসে এবং শিশু আব্দুল্লাহর খোঁজ করে।

পরে ভোর ৬টার দিকে বাড়ির পাশের একটি পুকুর থেকে শিশু আব্দুল্লাহর মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, চুরি বা ডাকাতির উদ্দেশ্যে কেউ ঘরে ঢোকে। এ সময় শারমিন বেগম তা দেখতে পেলে তাকে গলায় ওড়া পেঁচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং পালিয়ে যাওয়ার সময় শিশু আব্দুল্লাহকে পুকুরে ফেলে হত্যা করে।

তবে ঘর থেকে কোনো কিছু খোয়া গেছে কি না তা এখনও জানা যায়নি। ঘটনাটি তদন্ত করছে পুলিশ বলেও জানান তিনি।