ঘটনাপ্রবাহের অতীত-বর্তমান

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২১ | ১৩ মাঘ ১৪২৭

ঘটনাপ্রবাহের অতীত-বর্তমান

অপর্ণা দত্তগুপ্ত ১২:০৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০২০

print
ঘটনাপ্রবাহের অতীত-বর্তমান

আশির দশকে বাবা যখন সাদা-কালো টেলিভিশন ক্রয় করেন, তখন মন্ত্রমুগ্ধের মতো বাংলাদেশ টেলিভিশনে দুটো অনুষ্ঠান দেখতাম। একটি হচ্ছে স্বাস্থ্যবিষয়ক অনুষ্ঠান যা মূলত বিশেষ করে গর্ভবতী নারীর সুষম খাবার খাওয়ার ব্যাপারে। আরেকটি হচ্ছে কৃষিবিষয়ক অনুষ্ঠান। এ দুটো অনুষ্ঠান মনের মধ্যে যে প্রভাব বিস্তার করেছে, বিশেষ করে সঞ্চালকের উদ্বুদ্ধকরণের মাধ্যমে পরবর্তী পেশাগত জীবনে কীভাবে ব্যক্তিকে যেকোনো বিষয়ে মোটিভেশন করা যায় তা শিখেছি। এরপর খাবার স্যালাইন তৈরির প্রক্রিয়া কীভাবে সম্পন্ন হয় তা ব্র্র্যাকে গিয়ে শিখেছি। মাঠপর্যায়ে একজন উন্নয়নকর্মী হিসেবে তা গ্রামের মহিলাদের বোঝাতে সক্ষম হয়েছি।

 

এর মধ্যে বাচ্চাদের টিকা প্রয়োগ, জন্মের পর মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো এগুলো কীভাবে বিভিন্ন সংস্থার উন্নয়নকর্মীর বিভিন্ন পর্যায়ে সফল হয়েছে; তা আমরা এখন দেখি মাতৃ ও শিশু মৃত্যুহার হ্রাস পাওয়াতে। ২০১৮ সালে বাচ্চাদের নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের ফলে মোটরবাইকে সবাই হেলমেট পরতে বাধ্য হয়েছে। ২০২০ সালে এসে আমরা কি ব্যর্থ হচ্ছি মহামারীর হাত থেকে বাঁচানোর জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানা, নিজেকে মানা এবং অন্যকে মানতে উদ্বুদ্ধকরণে? ঘূর্ণিঝড় ভয়াবহভাবে যেমন করে ধেয়ে আসে অনেকটা সেভাবেই ধেয়ে আসছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। কোনো কাজে বাইরে বের হলে যা দেখি তার প্রতিরূপ ভয়াবহ কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য মানুষের মধ্যে সচেতনতা নেই বললেই চলে। গত একমাস ধরে প্রধানমন্ত্রী প্রতিদিন গণভবন থেকে কোনো না কোনো অনুষ্ঠানে মাস্ক পরার জন্য গুরুত্বারোপ করছেন। আমরা সবাই যদি নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসি, তাহলে এই ভয়াবহতার হাত থেকে সহজেই রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

জীবন ও জীবিকার তাগিদেই সব খুলে দেওয়ার অর্থ এ নয় যে অপ্রয়োজনে ঘর থেকে বের হয়ে ভাইরাস নিয়ে ঘরে প্রবেশ করে আপনার পরিবার, প্রতিবেশী সবাইকে আক্রান্ত করবেন! আমরা যারা ষাটোর্ধ্ব নাগরিক তারা একদিন অতিবাহিত করলে ঈশ^রের কাছে প্রার্থনা করি এভাবে যেন আগামীদিন কাটাতে পারি। জানি না কতদিন পারব, যেভাবে মানুষের মধ্যে বিশেষ করে শিক্ষিত একটি অংশের মার্কেট যাওয়া, বেড়াতে যাওয়া বৃদ্ধি পেয়েছে তাতে সামনের দিনটি যে খুব মসৃণ তা মনে হয় না।

অপর্ণা দত্তগুপ্ত : অবসরপ্রাপ্ত স্কুলশিক্ষক, শ্যামলী, ঢাকা ১২০৭
aparnadattagupta30@gmail.com