কোরবানির ফজিলত ও মাসায়িল

ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

কোরবানির ফজিলত ও মাসায়িল

মুফতি এহসান বিন মুজাহির ৬:৩৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ৩১, ২০২০

print
কোরবানির ফজিলত ও মাসায়িল

মুসলিম সম্প্রদায়ের বৃহত্তম দুটি ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে অন্যতম একটি হলো পবিত্র ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদ। কোরবানি গুরুত্বপুর্ণ একটি ইবাদত। সামর্থ্যবান ব্যক্তির ওপর কোরবানি ওয়াজিব। কোরবানি শব্দটি আরবি। এর শাব্দিক অর্থ হল নৈকট্য, সান্নিধ্য, আত্মত্যাগ, জবেহ, রক্তপাত ইত্যাদি। ইসলামি শরিয়তের পরিভাষায় কোরবানি বলা হয়, মহান রাব্বুল আলামিনের নৈকট্য ও সন্তোষ লাভের আশায় নির্ধারিত তারিখের মধ্যে হালাল কোনো পশু আল্লাহর নামে জবেহ করা।

কোরবানি নতুন কোনো প্রথা নয়, বরং এটা আদিকাল থেকে চলে আসছে। হজরত আদম (আ.)-এর যুগে কোরবানির সূচনা হয়েছিল। আদম (আ.)-এর সন্তান হাবিল-কাবিলের মধ্যে বিবাহ-শাদি নিয়ে যখন মতানৈক্য দেখা দিল তখন আল্লাহতায়ালা তাদের ইখলাসের সঙ্গে হালাল পশু কোরবানি করার নির্দেশ দিলেন। তিনি বললেন, তোমাদের মধ্যে যার কোরবানি আমার নিকট কবুল হবে তার নিকট মেয়ে বিবাহ দেওয়া হবে। হাবিল ও কাবিল কোরবানির নির্দেশ পেয়ে কোরবানি করল।

হাবিলের কোরবানি আল্লাহর কাছে কবুল হল, কাবিলের হল না। কাবিলের কোরবানি কবুল না হওয়ার কারণে সে ক্ষিপ্ত হয়ে হাবিলকে বলল, আমি তোমাকে হত্যা করে ফেলব। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা এরশাদ করেনÑ ‘হে নবী, আপনি তাদের নিকট যথাযথভাবে আদম (আ.)-এর পুত্রদ্বয়ের কথা আলোচনা করেন, যখন তারা মহান রবের নিকট তাদের কোরবানিকে পেশ করল, তখন একজনের কবুল হল অন্যজনের হল না। যার কোরবানি কবুল হল না সে ক্ষিপ্ত হয়ে অন্যজনকে বলল আমি তোমাকে খুন তথা হত্যা করে ফেলব। পালনকর্তা একমাত্র মুত্তাকীদের কোরবানি কবুল করেন। (সুরা মায়িদা : ২৭)।

কোরবানির গুরুত্ব প্রসঙ্গে মহান রাব্বুল আলামিন কোরআন কারিমে এরশাদ করেনÑ ‘আমি প্রত্যেক উম্মতের জন্য কোরবানি নির্ধারণ করেছি যাতে তারা হালাল পশু জবেহ করার সময় আল্লাহর নাম উচ্চারণ করে। (সুরা হজ : ৩৪)। আল্লাহতায়ালা কোরআনে আর বলেছেনÑ ‘নিশ্চয়ই আমার নিকট কোরবানির পশুর গোশত ও রক্ত কিছুই কবুল হয় না, তবে আমার নিকট পৌছে একমাত্র তাকওয়া। (সুরা হজ : ৩৭)।

একদা হজরত যায়েদ ইবনে আরকাম (রা.) রাসুলের (সা.) নিকট জিজ্ঞাসা করলেন, হে আল্লাহর রাসুল (সা.) কোরবানি কী? উত্তরে রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করলেন কোরবানি হচ্ছে তোমাদের আদি পিতা হজরত ইবরাহিম (আ.) এর জীবনাদর্শ। সাহাবি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলেন কোরবানির ফজিলত কী? রাসুল (সা.) বললেন, পশুর পশমের পরিবর্তে একেকটি করে নেকি দেওয়া হয়। (মেশকাত : ১২৯)। হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.) এরশাদ করেন, ‘কোরবানির পশুর রক্ত মাটিতে পড়ার আগেই কোরবানিদাতার কোরবানি আল্লাহর দরবারে কবুল হয়ে যায় এবং তার অতীতের সকল গুনাহ মোচন করে দেওয়া হয়। (তিরমিজি; ১/১৮০)।
মহানবী (সা.) আরও এরশাদ করেন, ‘তোমরা মোটা তাজা পশু দেখে কোরবানি কর, কারণ এ পশুই পুলসিরাতের বাহক হবে। (মুসলিম : ২৬৩৯)। বিশিষ্ট সাহাবি হজরত আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসুল (সা.) পবিত্র মদিনায় দশ বছর জীবন-যাপন করেছেন প্রত্যেক বছরই তিনি পশু কোরবানি করেছেন। (তিরমিজি : ১/১৮৯)। হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিতÑ তিনি বলেন রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘কোরবানির দিন আল্লাহর নিকট কোরবানি অপেক্ষা উত্তম কোনো আমল আর নেই। (মেশকাত : ১৯৩৭)।

বিখ্যাত সাহাবি হজরত আবু হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) এরশাদ করেন সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও যে ব্যক্তি কোরবানির দিন কোরবানি করে না সে যেন ঈদুল আজহার দিন ঈদগাহের ময়দানের কাছে না যায়।

(ইবনে মাজাহ : ১৭২১)। একদিন হযরত যায়েদ ইবনে আরকাম (রা.) (রাসুলুল্লাহর সা.) নিকট জিজ্ঞাসা করলেনÑ হে আল্লাহর রাসুল, কোরবানি কী? তখন উত্তরে রাসুল (সা.) এরশাদ করলেন কোরবানি হচ্ছেÑ ‘তোমাদের পিতা ইবরাহিম (আ.)-এর ‘জীবনাদর্শ’।

সাহাবি পুনরায় জিজ্ঞাসা করলেন, কোরবানির ফজিলত কী? রাসুল (সা.) বললেন, পশুর পশমের পরিবর্তে একেকটি করে নেকি দেওয়া হয়। (মেশকাত : ১/১২৯)।
ইসলামে যেহেতু কোরবানি গুরুত্বপূর্ণ একটি ইবাদত। তাই কোরবানি সম্পর্কিত মাসয়ালা-মাসায়িল জেনে বিশুদ্ধভাবে কোরবানি করা জরুরি। অন্যান্য ইবাদতের মতো কোরবানি শুদ্ধ হওয়ার জন্য রয়েছে বেশ কিছু নিয়ম ও বিধি-বিধান। আজকের নিবন্ধে কোরবানির প্রয়োজনীয় কিছু মাসআলা নিয়ে আলোকপাত করা করা হল।

যাদের ওপর কোরবানি ওয়াজিব
ঈদুল আজহার দিন প্রয়োজনীয় খরচ ব্যতীত সাড়ে সাত তোলা সোনা বা সাড়ে বায়ান্ন তোলা রূপা কিংবা সমপরিমাণ সম্পদ যার কাছে থাকবে তার ওপর কোরবানি ওয়াজিব। কোরবানি ওয়াজিব হওয়ার জন্য নেসাব পরিমাণ মাল পূর্ণ এক বছর থাকা জরুরি নয়, কোরবানির শেষ দিন সূর্যাস্তে পূর্বেও কেউ যদি নেসাব পরিমাণের মালিক হয় তাহলে তার ওপরও কোরবানি ওয়াজিব। জীবিকা নির্বাহের জন্য যে পরিমাণ জমি ও ফসলের দরকার তা থেকে অতিরিক্ত জমি ও ফসলের মূল্য অথবা যে কোনো একটির মূল্য নেসাব পরিমাণ হলেও কোরবানি করা ওয়াজিব। একই পরিবারের সকল সদস্য পৃথক পৃথকভাবে নেসাবের মালিক হলে সকলের ওপর আলাদাভাবে কোরবানি ওয়াজিব। কোনো উদ্দেশ্যে কোরবানির মানত করলে সে উদ্দেশে পূর্ণ হলেও কোরবানি করা ওয়াজিব। অতএব প্রত্যেক স্বাধীন, ধনী, প্রাপ্তবয়স্ক, সুস্থ মস্তিষ্ক নর-নারীর ওপর কোরবানি ওয়াজিব।

কোরবানির পশু ও তার বয়স
ইসলামি শরিয়তে গরু-মহিষ, ভেড়া, ছাগল, দুম্বা, উট কোরবানি করাকে বৈধতা দান করেছে। তবে ছাগল, ভেড়া, দুম্বা এক ব্যক্তির পক্ষ থেকে আদায় করা চলবে কিন্তু গরু, মহিষ, উট সাত ব্যক্তি শরিক হতে পারবে। শর্ত একটাই শরিকদার সকলের নিয়ত বিশুদ্ধ থাকতে হবে। এদের মধ্যে একজনেরও যদি লোকদেখানো বা গোশত খাওয়া উদ্দেশ্য হয় তাহলে কারও কোরবানি কবুল হবে না। ছাগল, ভেড়া, দুম্বা, এক বছর বয়সী হওয়া আবশ্যক। তবে যদি ছয় মাসের দুম্বা এবং ভেড়া এরূপ মোটা তাজা হয় যে, দেখতে এক বছরের মত মনে হয় তাহলে ঐ ভেড়া ও দুম্বা দ্বারা কোরবানি করা যাবে। আর ছাগল যত বড়ই হোক না কেন এক বছর পরিপূর্ণ হওয়া জরুরি। একদিন কম হলেও কোরবানি জায়েজ হবে না। গাভী, মহিষ দু’বছর পূর্ণ হওয়া জরুরি। উট পাঁচ বছরের হওয়া জরুরি, একদিন কম হলেও কোরবানি হবে না। কোরবানির জন্য মোটা, তরতাজা, সুস্থ পশু হওয়া জরুরি। আতুর, ল্যাংড়া, কানা, কানকাটা, লেজকাটা, দুর্বল পশু দিয়ে কোরবানি বিশুদ্ধ হবে না।

কোরবানির দিন
তিন দিনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। কোরবানির দিন হলো দশ, এগারো ও বারো জিলহজ। এ তিন দিনের মধ্যে যেকোনো দিন কোরবানি করা জায়েজ আছে। তবে উত্তম দিন হচ্ছে প্রথম দিন অর্থাৎ দশ জিলহজ। কোনো কারণ ছাড়া বিলম্ব না করা ভালো।

কোরবানির সময়
জিলহজের দশম দিন ঈদের নামাজ পড়ার পর থেকে জিলহজের বারো তাবিখ সূর্যাস্তের পূর্ব পর্যন্ত কোরবানি করা যাবে। তবে ঈদের নামাজের পূর্বে কোরবানি করা যাবে না। ঈদের নামাজ পড়ে এসে কোরবানি করতে হবে। যদি শহরের একাধিক স্থানে ঈদের নামায হয় তাহলে যেকোনো এক স্থানে নামাজ আদায় হয়ে গেলে সব স্থানেই কোরবানি করা জায়েজ হবে।

জবেহ
কোরবানিদাতা সে নিজেও জবেহ করতে পারবে এবং কোনো আলেম তথা জানলেওয়ালা কাউকে দিয়ে কোরবানি করাতে পারবে। তবে উত্তম হচ্ছে নিজের কোরবানি নিজে করা। মুখ দিয়ে উচ্চারণ করে নিয়ত করা জরুরি নয় বরং অন্তরের নিয়তই যথেষ্ট। জবেহ করার সময় অবশ্য অল্লাহর নাম নিতে হবে।

কোরবানির গোশত
কোরবানির গোশত নিজে খাবে এবং গরিব-মিসকিনদের খওয়াবে। উত্তম পন্থা হচ্ছে গোশতকে তিন ভাগে ভাগ করা, একভাগ গরিব-মিসকিনকে দান করা। একভাগ আত্মীয়স্বজনকে দেওয়া এবং এক অংশ নিজ পরিবারের জন্য রাখা।

পশুর চামড়া
কোরবানির পশুর চামড়া নিজে ব্যবহার করতে পারবেন এবং অন্যকে হাদিয়াও দিতে পারবেন। আবার মাদ্রাসার লিল্লাহ ফান্ডেও দান করা যাবে। কিন্তু কোরবানির চামড়া বিক্রি করে কোনো মাদ্রাসার শিক্ষক, মসজিদের ইমামের ভাতা দেওয়া যাবে না। বিক্রি করলে চামড়ার টাকা একমাত্র গরিব-মিসকিনকেই দান করতে হবে।
সবচেয়ে উত্তম হচ্ছে মাদ্রাসার গরিব ফান্ডে দান করা।
কোরবানি যেহেতু একটি উত্তম ইবাদত। ইবাদতটি একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য হওয়া চাই। কারণ আল্লাহতায়ালা কোরআনে বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই আমার নিকট কোরবানির পশুর গোশত ও রক্ত কিছুই কবুল হয় না, তবে আমার নিকট পৌঁছে একমাত্র তাকওয়া। (সুরা হজ : ৩৭)।
তথ্যসূত্র : আহসানুল ফাতাওয় ৭/৫১০, তিরমিজি ১/১২০, ইমদাদুল ফাতায়া ২/১৬৬, মুয়াত্তা মালেক ১৮৮)।

মুফতি এহসান বিন মুজাহির
অধ্যক্ষ, শ্রীমঙ্গল আইডিয়াল স্কুল মৌলভীবাজার