মেধা বিকাশের অন্তরায়

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০ | ২৫ আষাঢ় ১৪২৭

মেধা বিকাশের অন্তরায়

মুহম্মদ সজীব প্রধান ৭:১৯ অপরাহ্ণ, জুন ০১, ২০২০

print
মেধা বিকাশের অন্তরায়

শিক্ষা এমন এক আলো যার সংস্পর্শে বিকশিত হয় জীবন, আলোকিত হয় সমাজ। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে হারিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার প্রকৃত অর্থ। বর্তমানে শিক্ষা মানে দিন-রাত পাঠ আর পরীক্ষার খাতায় তা উগলে ফেলা। এ উগলে ফেলার মাঝেই নিহিত রয়েছে আসল প্রাপ্তি ও তৃপ্তি। হ্যাঁ, আমি একবিংশ শতাব্দীর পড়াশোনা ও পরীক্ষা পদ্ধতির কথা বলছি যেখানে মেধার সর্বোৎকৃষ্ট মাপকাঠি জিপিএ-৫।

কখনো কি ভেবেছেন জিপিএ-৫ এর গুরুত্ব কতখানি? যারা বইয়ের খুঁটিনাটি সবকিছু বুঝে বুঝে পড়ে পরীক্ষায় জিপিএ-৫ অর্জন করে তারা অবশ্যই মেধাবী কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে দেখা যায় শিক্ষার্থীরা জিপিএ-৫ অর্জনের জন্য পুরো বই না পড়ে সংক্ষিপ্ত সাজেশন অনুসরণ করে আর এতে করে তাদের জানার পরিধি এবং মেধার বিকাশ প্রস্ফুটিত হতে পারে না। জিপিএ-৫ পাওয়া শিক্ষার্থী ‘আমি জিপিএ-৫ পেয়েছি’র ইংরেজি অনুবাদ করতে পারে না এমন দৃষ্টান্তও রয়েছে। অনেকে মনে করেন জিপিএ-৫ না পেলে ভালো বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পাওয়া যাবে না এবং ভবিষ্যতে উচ্চপদস্থ চাকরি করতে বেগ পেতে হবে কিন্তু বাস্তবতা সম্পূর্ণ ভিন্ন।

দুঃখজনক হলেও সত্য, জিপিএ-৫ অর্জনের আকাক্সক্ষা শিক্ষার্থীদের জীবনে অভিশাপ বয়ে আনে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অর্থাৎ কাক্সিক্ষত ফল অর্জনে ব্যর্থ হলে অনেক শিক্ষার্থীই মানসিক ব্যাধিতে ভোগে যা পড়াশোনা ও জ্ঞানার্জনের অন্তরায়। এমন পরিস্থিতিতে অনেক নক্ষত্র শিক্ষার্থী হতাশায় কাবু হয়ে ঝরে পড়ে। সবচেয়ে বড় উদ্বেগের বিষয়, অনেক শিক্ষার্থী সমাজের কাছে নিজেকে জিপিএ-৫ এর মাপকাঠিতে মেধাবী প্রমাণ করতে না পেরে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়! জিপিএ-৫ এর সাগরে নিজেকে বিসর্জন দেয়। আত্মহত্যার এমন ভয়াবহ চিত্র কোমলমতি পিইসি পরীক্ষার্থী থেকে শুরু করে উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের মাঝেও দেখা যায়।

২০১৯ সালে পটুয়াখালীর ফাহিম পিইসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ না পেয়ে আত্মহত্যা করে। অন্যদিকে, একই বছরে বরিশালের সারিয়া আক্তার এবং বগুড়ার তামিমা ইসলাম এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ না পেয়ে আত্মহত্যার মাধ্যমে নিজেদের জলাঞ্জলি দেয়। এবছর এমন আত্মহত্যার সংখ্যা কত হবে তা নির্দিষ্ট করে বলা সম্ভব নয়। তবে এ ব্যাপারে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি না করলে তা জ্যামিতিক হারে বেড়েই চলবে। অতল গভীরে হারিয়ে যাবে অজস্র সম্ভাবনাময় আঁধার। এ বেড়াজাল থেকে বের হয়ে শিক্ষার্থীদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশে অভিভাবক, শিক্ষক ও সচেতন মহলকে এগিয়ে আসতে হবে এবং তাদের যথাযথ জ্ঞানার্জনে উৎসাহিত করতে হবে। তাহলেই বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থায় জন্ম নেবে সত্যিকারের প্রতিভাবানরা।

মুহম্মদ সজীব প্রধান : শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়

sajibprodhanbd@gmail.com