অমানবিক মেধাবী!

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬

অমানবিক মেধাবী!

কবীর চৌধুরী তন্ময় ১০:১১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৮, ২০১৯

print
অমানবিক মেধাবী!

অনেকেই বলেন, বুয়েটে শুধু মেধাবীরাই ভর্তির সুযোগ পেয়ে থাকেন। জানি না, তারা কোন পরিসংখ্যানে এমন কথা বলেন! আর মেধাবী কাকে বলে-এটিও ‘মেধাবী’ বলা ওইসব মানুষগুলো স্পষ্ট করেননি। তবে, পরিস্থিতি পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে-শুধু মেধাবীই নয়, অমানবিক মেধাবীও একই সুযোগ পেয়ে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।

২০১৩ সালের ৯ এপ্রিল চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করা হয় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষ, নজরুল ইসলাম হলের ২২৪ নম্বর কক্ষের ছাত্র আরিফ রায়হান দ্বীপকে। তার অপরাধ সে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী।

দ্বীপের অপরাধ, শাহবাগ আন্দোলনের প্রথম পোস্টার রচনা করলেন কেন! দ্বীপের অপরাধ ছিল, ‘এই পথে আজ জীবন দিব, রক্তের বদলা ফাঁসি নেব’-এই স্লোগান নিজ হাতে লিখে শাহবাগ আন্দোলনের প্রাক্কালে রাস্তায় নেমে এসে কেন প্ল্যাকার্ড জাতির সামনে তুলে ধরেছিল! দ্বীপের অপরাধ, দ্বীপ ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ছিল! দ্বীপের অপরাধ, দ্বীপ মৌলবাদগোষ্ঠী হেফাজতের বিরুদ্ধে লিখত, দ্বীপ স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে লিখত!

ব্যস! এই লেখালেখির কারণে, মতের অমিল হওয়ায় তথাকথিত হেফাজত নামক মৌলবাদী সংগঠনের সমর্থক বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র মেজবাহ নামক ‘অমানবিক মেধাবী’ ছাত্রটি আরিফ রায়হান দ্বীপকে বুয়েট ক্যাম্পাসে হত্যার উদ্দেশ্যে নির্মমভাবে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। দুমাস জীবন-মরণ যুদ্ধ শেষে মৃত্যুর কাছে নিজেকে সঁপে দিয়ে দ্বীপ এ পৃথিবী থেকে চিরতরের জন্য চলে যায়।

এখন ছাত্রলীগ নামধারী তথাকথিত যে নেতারা আবরার ফাহাদ নামক শিক্ষার্থীর ফেসবুকের স্ট্যাটাস এবং ওই স্ট্যাটাসের আলোচনা-সমালোচনা কিংবা মতের অমিল হওয়ায় (এই পর্যন্ত মিডিয়ায় প্রকাশিত তথ্য) রুম থেকে ডেকে নিয়ে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করল; তারাও প্রতিক্রিয়াশীল ‘অমানবিক মেধাবী’।
তাহলে বলতে হবে, বুয়েটে শুধু মেধাবীরাই ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে না, অমানবিক মেধাবীরাও সমান সুযোগ নিয়ে একটি হত্যার মধ্য দিয়ে কয়েকটি স্বপ্নকে হত্যা করছে, হত্যা করছে সত্যিকারের মেধাবীদের।

দ্বীপের মতো ছাত্রকে নির্মমভাবে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা কোনো মানবিক মেধাবী ছাত্রের কাজ হতে পারে না। আবরার ফাহাদের মতো শিক্ষার্থীকে ভোঁতা ও শক্ত কিছু একটা দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করাও কোনো মানবিক মূল্যবোধ ছাত্রের কাজ হতে পারে না। তারা অমানবিক মেধাবী। তারা শুধু বুয়েট বিদ্যাপীঠের নয়, তারা মেধাবী ও মানবিক মূল্যবোধ শিক্ষার্থীর জন্য ভয়ঙ্কর শত্রু।

মূল কথা হচ্ছে, নষ্ট রাজনীতির ছত্রছায়ায় আমাদের শিক্ষার্থীরা মেধাবী হচ্ছে ঠিকই, কিন্তু সেখানে মানবিক-এর আগে ‘অ’ যুক্ত হয়ে বেড়ে উঠছে। ছাত্রলীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী আজ বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে না-এটা নিশ্চিত। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার রাজনৈতিক দর্শন তাদের গবেষণার বিষয় বলে মনে করে না। কারণ, এই ছাত্রলীগকে কতিপয় সিনিয়র নেতা নষ্ট করে দিয়ে গেছে।

কতিপয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর মনোজগতেও আজ ‘সাম্প্রদায়িক’ বা ‘প্রতিক্রিয়াশীলতা’ বিরাজ করছে। ‘অসাম্প্রদায়িক চেতনা’ আর ‘মানবিক মূল্যবোধ’ থেকে ছাত্রলীগের কতিপয় নেতাকর্মী অনেকটাই দূরে সরে গেছে। তা না হলে, মৌলবাদগোষ্ঠীর হেফাজতকর্মী দ্বীপের ক্ষেত্রে যা করেছে, ছাত্রলীগের কর্মী হয়ে তা কখনোই করার কথা নয়। এরা আর যাই হোক, নামধারী ছাত্রলীগ হলেও এরা সত্যিকার অর্থে মূলধারার ছাত্রলীগ নেতাকর্মী নয়।

ছাত্রলীগের ইতিহাস-ঐতিহ্য আর আদর্শের সঙ্গে শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার কর্মকাণ্ড; ছাত্রলীগে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছে, ছাত্রলীগকে প্রশ্নবিদ্ধ করে তুলেছে! আমাদের আরেকটি বড় সমস্যা, বিচারপ্রক্রিয়া। প্রতিটি হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে খুনের সঙ্গে সম্পৃক্ত অপরাধীদের দৃষ্টান্ত শাস্তি নিশ্চিত করতে আমাদের বছরের পর বছর লেগে যায়। এখানে আমাদের আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে। প্রতিটি অপরাধের কঠোর শাস্তি নিশ্চিতকরণে সময় অপচয় কিংবা ব্যর্থ হলে, এই ধরনের হত্যার শিকার হয়তো আমার, আপনার, আমাদের কারও না কারও সন্তানের নাম যুক্ত হতে সময়ের ব্যাপার মাত্র।

কবীর চৌধুরী তন্ময় : সভাপতি, বাংলাদেশ অনলাইন
অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরাম (বোয়াফ)