রেস্তোরাঁ

শফিক নহোর / ১২:৫২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫,২০২০

আজাদ সাহেব ভোজনরসিক লোক এতদিন ব্যাংকে কর্মরত ছিলেন। জন্মদিন, বিবাহবার্ষিকী এমনকি কোনো কলিগ যদি কখনো মুখ ফসকে বলেছে, বাবা-মায়ের প্রয়াণ দিবসে দোয়া দরুদ পড়ার দাওয়াত! এ কথা শুনতে পেলে তার বুকের ভেতর সঙ্গীত বেজে উঠত, ‘আমার মতো এত সুখী নয়ত কারো জীবন।’

বেচারা মাশাল্লাহ খুশিতে আটখানা হয়ে উঠত।

পরের বাসা বাড়িতে দাওয়াত খাওয়া নিয়ে তার স্ত্রীর সঙ্গে বেশ কয়েক দফা ভালোই ঝগড়া হয়েছে ইতোপূর্বে সে সংবাদ অফিস অবধি এসেছিল।
কে শোনে কার কথা, মুই কি হুনু রে!

ফেসবুকে আজাদ সাহেবকে দেখলাম জেমস আজাদ নামে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলছে, বউ বাচ্চা আছে তবুও মেয়ে পটানোর পাঁয়তারা চলছে, সেই ঝগড়ার সূত্র ধরে।
মুখ আর মুখোশ চেনা বড় মুশকিল হয়ে পড়ছে আজকাল। কেউ কেউ বলল, বউয়ের সঙ্গে অফিসে এসেও রূঢ় কথাবার্তা বলেন। এ নিয়ে শোকজ খেয়েছেন আজাদ সাহেব। কয়লা ধুলে ময়লা যায় না। চরিত্র খারাপ হলেও মানুষটা কিন্তু ভালো জেমস্ আজাদ সাহেব এ কথা যদি কেউ বলে থাকেন। আর কিন্তু তার প্রতি কোনো বিশ্বাস নেই।

খাওয়ার প্রতি একটু লোভ বেশি থাকায় ব্যাংক থেকে একটা সময় চাকরি ছেড়ে রেস্তোরাঁ খোলার ভূত ঢুকেছে তার মাথায়। রেস্তোরাঁ দেবেন এটাই ফাইনাল কথা। শেষমেশ রেস্তোরাঁ দিলেন। রেস্তোরাঁজুড়ে সে কী বাহারি আইটেম, হরিণের গোস্ত, গরুর গোস্ত থেকে শুরু করে সবকিছু আছে। কিন্তু বাজিমাত করেছেন; বিভিন্ন খাবার মূল্য তালিকা প্রকাশ করার মতো শর্ত প্রযোজ্য।

একজন মানুষকে তিন কেজি হরিণের গোস্ত, তার সঙ্গে গরু কিংবা খাসি মাছ তো আছেই। কোনো প্রকার খাবার নষ্ট করা যাবে না এই শর্তে রাজি হলে সে সবকিছু পাবে। মাত্র দুই শত কুড়ি টাকায়!

কেউ কেউ প্রশ্ন তুলেছিল প্রথম দিকে এমন করলে তো বাড়ি বিক্রি করে ঘর কিনতে হবে। এত বেশি কিছু খেতে না পারলে আলু ভর্তা, ডাল, ডিম ভাজি। এ যেন আমাদের দেশের বিভিন্ন মোবাইল ফোন কোম্পানির মতো আজাদ সাহেবের হোটেল ব্যাবসা। দশ জিবি ডাটা দিবে মেয়াদ দেবে একদিন। কেউ কেউ অফার দিবে গভীর রাতে। শেষমেশ এমন অবস্থা খাব না দেখব! লোকজন রেস্তোরাঁর দিকে একবার তাকালে পরেরবার মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। কস্মিনকালেও কেউ আর মুখ ফিরে চাইবে না এ রাস্তায় সোনিয়া প্লাজায় হাতের বাঁয়ে খাবার হোটেল নামে একটি রেস্তোরাঁ ছিল কোনো এককালে!

আজাদ সাহেব মোবাইল ফোনে ফেসবুকে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। তাকে নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন, তার স্ত্রী! স্বামীকে ডিভোর্স দিয়েছেন, কারণ মানুষের সঙ্গে যে প্রতারণা করে তার সঙ্গে আর সংসার নয়!

সম্পাদক ও প্রকাশক : আহসান হাবীব
উপদেষ্টা সম্পাদক : মোশতাক আহমেদ রুহী

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : বসতি হরাইজন, ১৭-বি, বাড়ি-২১, সড়ক-১৭, বনানী, ঢাকা
ফোন : বার্তা-৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৭, মফস্বল-৯৮২২০৩৬
বিজ্ঞাপন-৯৮২২০২১, ০১৭৮৭ ৬৯৭ ৮২৩,
সার্কুলেশন-৯৮২২০২৯, ০১৮৫৩ ৩২৮ ৫১০
Email: kholakagojnews7@gmail.com
            kholakagojadvt@gmail.com