হাটবাজারে উপচেপড়া ভীড়

পটুয়াখালী প্রতিনিধি / ১২:০৮ অপরাহ্ণ, মে ২৩,২০২০

জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য বিভাগ ও জনপ্রতিনিধিদের নানামুখী উদ্যোগের কারণে পটুয়াখালীতে করোনাভাইরাস বিস্তার লাভ করতে না পারলেও দোকানপাট খুলে দেয়ার পর থেকেই বাড়ছে সংক্রমণের শঙ্কা। বেশিরভাগ গার্মেন্টস ও বস্ত্রালয়সহ অন্যান্য দোকানগুলোতে দেখা গেছে উপচে পড়া ভীড়।

জেলা প্রশাসকের দেয়া তথ্য মতে, এ পর্যন্ত পটুয়াখালীতে নারী পুরুষসহ ৩২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে পূর্ণ সুস্থ হয়ে ১৬ জন বাড়ি ফিরেছেন। এছাড়াও আক্রান্ত ৩ জন মারা গেছেন।

জেলার নিউ মার্কেট, পুরান বাজার ও সদর রোডে শুক্রবার সরেজমিনে দেখা গেছে ক্রেতারা সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ স্বাস্থ্য বিধির কোনো শর্তই মানছে না। মার্কেটের প্রবেশপথে জীবাণুনাশক স্প্রে বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার নেই। একজন আরেকজনের গায়ের সঙ্গে গা লাগিয়ে কেনাকাটা করছেন।

নিউমার্কেটের কাপর ব্যবসায়ী তাপস পাল বলেন, গত কয়েকমাস তারা দোকান বন্ধ রেখেছেন। সরকারি নির্দেশনা মেনে দোকান খোলা রেখে পূর্বের ক্ষতি কিছুটা লাঘবের চেষ্টা করছেন। তবে ক্রেতারা স্বাস্থবিধি না মেনে সবাই একসাথে দোকানে ভির জমায় বলে জানান তিনি।

পটুয়াখালীর সিভিল সার্জন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম শিপন এ ব্যাপারে বলেন, করোনার ঝুঁকি মোকাবিলায় সবাইকে সামাজিক দুরত্ব মেনে চলতে হবে। জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে। পটুয়াখালী জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জনসমাগম এড়াতে সার্বক্ষনিক সকল হাটবাজারে নজর রাখা হচ্ছে।

পটুয়াখালী র‌্যাব-৮ কোম্পানী অধিনায়ক রইছ উদ্দিন বলেন, সরকারের নির্দেশ অনেক ব্যবসায়ী মানছেন না। তারা দোকানের প্রবেশ মুখে জীবানুনাশকের ব্যবস্থা রাখেনি। এছাড়াও অধিকাংশ বাজারে মানা হচ্ছে না সামাজিক দূরত্ব। পটুয়াখালী র‌্যাব প্রতিদিন বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করছে এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে সবাইকে সতর্ক করছেন।

 

সম্পাদক ও প্রকাশক : আহসান হাবীব
উপদেষ্টা সম্পাদক : মোশতাক আহমেদ রুহী

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : বসতি হরাইজন, ১৭-বি, বাড়ি-২১, সড়ক-১৭, বনানী, ঢাকা
ফোন : বার্তা-৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৭, মফস্বল-৯৮২২০৩৬
বিজ্ঞাপন-৯৮২২০২১, ০১৭৮৭ ৬৯৭ ৮২৩,
সার্কুলেশন-৯৮২২০২৯, ০১৮৫৩ ৩২৮ ৫১০
Email: kholakagojnews7@gmail.com
            kholakagojadvt@gmail.com