ভারতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১৭

আন্তর্জাতিক / ৪:০৯ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ০৬,২০২০

ভারতে করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত অন্তত ১১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর আক্রান্ত হয়েছেন চার হাজার ২৮৮ জন। চিকিৎসা গ্রহণের পর সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩২৮ জন। বাংলাদেশ সময় ০৬ এপ্রিল সোমবার সকালে যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা এ তথ্য জানিয়েছেন।

করোনাভাইরাস আকৃতির হেলমেট পরে সাধারণ মানুষকে ভয় দেখাচ্ছে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা

ভারতীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব লব আগরওয়াল জানিয়েছেন, তার দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ৪২ শতাংশের বয়স ২১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে।

তিনি বলেন, করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে ০-২০ বছরের মধ্যে রয়েছে ৯ শতাংশ। ২১-৪০ বছরের মধ্যে ৪২ শতাংশ। ৪১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৩৩ শতাংশ। ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে রয়েছে ১৭ শতাংশ মানুষ।

লব আগরওয়াল বলেন, এখন পর্যন্ত দিল্লির ‘মারকাজ নিজামুদ্দিনে’ তাবলিগ জামাতের সমাবেশে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে আক্রান্তের সন্ধান মিলেছে ১৭টি রাজ্যে।

তাবলিগের এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ভারতে নতুন করে মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে মুসলিমবিদ্বেষ। ভারতে করোনা ছড়ানোর জন্য সরাসরি তাবলিগ কর্মীদের দায়ী করছে দেশটির উগ্র হিন্দুত্ববাদী গোষ্ঠীগুলো। মহারাষ্ট্র নবনির্মাণ সেনা (এমএনএস)-এর নেতা রাজ ঠাকরে বলেছেন, ‘আমার মতে এদের সোজা গুলি করে মারা উচিত। এমনকি এই অসভ্য লোকগুলোকে কোনও চিকিৎসা দেওয়াও উচিত নয়!’

ওই ঘটনা সম্পর্কে মন্তব্য করতে গিয়ে অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের সদস্য জাফরিয়াব জিলানি বিবিসি-কে বলেন, ‘ভুল দুই তরফেই হয়েছে। ওই সমাবেশে যারা গিয়েছিলেন, তাদের উচিত ছিল নিজের থেকেই পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া এবং চিকিৎসকদের আর সরকারের পরামর্শ নেওয়া। কিন্তু উল্টো দিকে, সরকারই বা ব্যবস্থা নেয়নি কেন! সমাবেশটা তো হয়েছে যখন দেশে কোনও লকডাউন ছিল না, সেই সময়ে। তারপর যারা ফিরতে পারেনি, লকডাউনের ফলে তাদের জন্য তো সরকারের কোনও ব্যবস্থা নেওয়া দরকার ছিল। এ রকম একটা কঠিন সময়ে বিষয়টাকে যেভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে, সেটা একেবারেই কাম্য নয়।’

পশ্চিমবঙ্গের মন্ত্রী এবং রাজ্যের মুসলমান সমাজের অতি পরিচিত নেতা সিদ্দিকুল্লা চৌধুরী বলেছেন, তাবলিগ জামাত যদি ভুল করে থাকে সমাবেশ করে, তাহলে সরকার কী করছিল? মার্কাজে নিজামুদ্দিনের পাশেই থানা আছে। কেন্দ্রীয় সরকারের পুলিশ আছে দিল্লিতে। তারা কি সমাবেশে হাজির মানুষকে কোনওভাবে সচেনতন করেছিলেন? একবারও মাইকিং করেছিলেন এলাকায়? সেটা করলে তো পরিস্থিতি এ রকম পর্যায়ে যেত না।

সম্পাদক ও প্রকাশক : আহসান হাবীব
উপদেষ্টা সম্পাদক : মোশতাক আহমেদ রুহী

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : বসতি হরাইজন, ১৭-বি, বাড়ি-২১, সড়ক-১৭, বনানী, ঢাকা
ফোন : বার্তা-৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৭, মফস্বল-৯৮২২০৩৬
বিজ্ঞাপন-৯৮২২০২১, ০১৭৮৭ ৬৯৭ ৮২৩,
সার্কুলেশন-৯৮২২০২৯, ০১৮৫৩ ৩২৮ ৫১০
Email: kholakagojnews7@gmail.com
            kholakagojadvt@gmail.com