স্কুল ধর্মঘট

রোকেয়া ডেস্ক / ২:৩৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০২,২০১৯

‘জলবায়ু পরিবর্তন’ বিষয়টির সঙ্গে গ্রেটা থানবার্গের পরিচয় ঘটে ২০১১ সালে। তখন তার বয়স মাত্র আট বছর। সেই বয়সেই পৃথিবীর ভবিষ্যতের কথা ভেবে তিনি চিন্তিত হয়ে পড়েন। সমস্যাটা এমন গুরুতর হওয়া সত্ত্বেও কেন বিষয়টি নিয়ে কেউ ভাবছে না, তা তার মাথাতেই ঢুকছিল না।

২০১৮ সালে মাত্র ১৫ বছর বয়সেই এক কঠিন সংগ্রাম শুরু করেন তিনি। শুরু হয় তার বিখ্যাত ‘স্কুল ধর্মঘট’ কর্মসূচি। সে সময় নবম শ্রেণিতে পড়তেন। তীব্র তাপপ্রবাহ ও দাবানলে সুইডেনের অবস্থা তখন ভয়াবহ। কারণ ২০১৮ সালটি ছিল সুইডেনে ২৬২ বছরের মধ্যে রেকর্ড ভাঙা তাপমাত্রার বছর।

শুধু সুইডেন নয়, ইউরোপজুড়ে এমন অসহনীয় তাপমাত্রার জন্য জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় উপযুক্ত পদক্ষেপ না নেওয়াকেই দায়ী করেন গ্রেটা। তাই ওই বছরের ২০ আগস্ট তিনি সিদ্ধান্ত নেন, ৯ সেপ্টেম্বর দেশটির সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার আগ পর্যন্ত ক্লাসে না গিয়ে তিনি আন্দোলন শুরু করবেন। কারণ তিনি বুঝতে পেরেছিলেন জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য রাজনীতিবিদরাই সবচেয়ে বেশি দায়ী।

গ্রেটার দাবি ছিল, সুইডিশ সরকারকে যত শিগগির সম্ভব, প্যারিস চুক্তির সঙ্গে একাত্ম হয়ে দেশে কার্বন নিঃসরণ কমাতে হবে। এই দাবি নিয়ে তিনি সুইডিশ পার্লামেন্টের সামনে টানা তিন সপ্তাহ অবস্থান করেন। এ সময় তার হাতে ছিল Skolstrejk for klimatet (জলবায়ুর জন্য স্কুল ধর্মঘট) লেখা একটি প্ল্যাকার্ড।

এ ছাড়াও তিনি তার কাছ দিয়ে হেঁটে যাওয়া সবাইকে একটি লিফলেট বিতরণ করেন। লিফলেটে লেখা ছিল, ‘আমি এটা করছি কারণ তোমরা বড়রা আমার ভবিষ্যৎ ধূলিসাৎ করে দিচ্ছ।’ অভিনব এই আন্দোলন নজর কাড়ে সারা বিশ্বের। সাড়া ফেলে দেওয়া এই আন্দোলনটি গ্রেটা থানবার্গ করেছেন একা একাই!

সম্পাদক ও প্রকাশক : আহসান হাবীব

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : বসতি হরাইজন, ১৭-বি, বাড়ি-২১, সড়ক-১৭, বনানী, ঢাকা
ফোন : বার্তা-৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৭, মফস্বল-৯৮২২০৩৬
বিজ্ঞাপন-৯৮২২০২১, ০১৭৮৭ ৬৯৭ ৮২৩,
সার্কুলেশন-৯৮২২০২৯, ০১৮৫৩ ৩২৮ ৫১০
Email: kholakagojnews7@gmail.com
            kholakagojadvt@gmail.com