খালের পেটে সড়ক

ঝালকাঠি প্রতিনিধি / ৬:৫৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৮,২০১৯

ঝালকাঠি পৌর এলাকার কিস্তাকাঠি আবাসন থেকে বাদামতলী খেয়া ঘাট হয়ে বাসন্ডা সেতু পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার পথ বাসন্ডা খালের ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন ৬ ও ৭নং ওয়ার্ডের কয়েক হাজার বাসিন্দা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, শহরের কিফাইতনগর ও বাসন্ডা এলাকায় খালের পশ্চিম পাড়ের রাস্তা ভেঙে বিলীন হয়ে গেছে। রাস্তা খালের মধ্যে চলে যাওয়ায় শতাধিক পরিবারের লোকজনকে হাঁটা-চলার ক্ষেত্রে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তারা একাধিক স্থানে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁশ দিয়ে সাঁকো বানিয়ে কোনোরকমে চলাচল করছেন। পাশাপাশি নদীর পাড় ভেঙে যাওয়ায় স্বাভাবিক জোয়ারের পানি ঢুকে বসতবাড়ি তলিয়ে যাচ্ছে।

ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, সাবেক মেয়র আফজাল হোসেন সড়ক নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়ন করেনি। এমনকি এলাকার বর্তমান কাউন্সিলরও এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ নেননি। তাদের দাবি বর্তমান মেয়র লিয়াকত আলী তালুকদার ভাঙন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণসহ একটি রাস্তা তৈরির উদ্যোগ নেবেন।

পশ্চিম ঝালকাঠি এলাকার বাসন্ডা খাল পাড়ে গিয়ে দেখা যায়, হাঁটার পথ খালে বিলীন হওয়ায় স্বাভাবিক জোয়ারের পানিতে মানুষের বসতভিটা তলিয়ে যাচ্ছে। কোনো কোনো স্থানে সামান্য কিছু হাঁটার পথ থাকলেও বেশিরভাগই ভেঙে খালের মধ্যে চলে গেছে।

লবন শ্রমিক জলিল মাঝি বলেন, আমরা ঝালকাঠির বর্ধিত পৌর এলাকার নাগরিক হলেও আমাদের হাঁটাচলার কোনো রাস্তা নেই। বাসন্ডা খালের ভাঙন না থামায় নদীর পাড়ও ভাঙছে। আমরা স্বেচ্ছাশ্রমে মাটি কেটে বাঁধ দিয়ে সাঁকো বানিয়ে এভাবে কত দিন চলব?

গৃহবধূ বেলা রানী পাল বলেন, নির্বাচন এলেই মেয়র-কাউন্সিলর প্রার্থীরা আমাদের প্রতিশ্রুতি দিলেও নদী ভাঙন প্রতিরোধ করে সড়ক নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেয় না। সাবেক মেয়র আফজাল হোসেন আমাদের এ সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিলেও তার বাস্তবায়ন দেখিনি।

সম্পাদক ও প্রকাশক : আহসান হাবীব
উপদেষ্টা সম্পাদক : মোশতাক আহমেদ রুহী

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : বসতি হরাইজন, ১৭-বি, বাড়ি-২১, সড়ক-১৭, বনানী, ঢাকা
ফোন : বার্তা-৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৭, মফস্বল-৯৮২২০৩৬
বিজ্ঞাপন-৯৮২২০২১, ০১৭৮৭ ৬৯৭ ৮২৩,
সার্কুলেশন-৯৮২২০২৯, ০১৮৫৩ ৩২৮ ৫১০
Email: kholakagojnews7@gmail.com
            kholakagojadvt@gmail.com