ভূগর্ভস্থ পানি দূষণ কমাতে হবে

সাঈদ চৌধুরী / ৮:৩০ অপরাহ্ণ, মার্চ ০১,২০১৯

মাটি হচ্ছে সবচেয়ে ভালো ফিল্টার। যে কোনো ধরনের ময়লাই মাটি তার বক্ষে বিলীন করে দিতে পারে। কিন্তু তারও একটি নির্দিষ্ট সীমা আছে। আমরা যে কেউ যে কোনো জায়গায় মাটি খনন করে তাতে ময়লা ফেলছি। এমনকি স্যুয়ারেজ ট্যাংকিরও কোনো মাপ কেউ মেনে চলে না। যার ফলে গভীর গর্ত খুঁড়ে ময়লা ফেলা হলে এবং তাতে যদি কোনো ভারী ধাতু থাকে তবে ভারী ধাতু সহজেই মিশে যাবে ভূগর্ভস্থ পানিতে!

বর্তমানে শিল্প বাড়ছে। বিশেষ করে গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, সাভার, চট্টগ্রামের মতো ভারী শিল্পাঞ্চলগুলোতে এ সমস্যাটি বেশি পরিলক্ষিত। অনেক শিল্পকারখানাই মাটি দূষণ রোধের বিষয়টি তেমনভাবে জানে না বা মানে না।

মাটি খননের নির্দিষ্ট গভীরতা এ কারণেই ঠিক করে দেওয়া প্রয়োজন। উঁচুতলার বিল্ডিং করতে যেমন অনুমোদন লাগে তেমনি নির্দিষ্ট গভীরতার বেশি মাটি খনন করে কোনো কাজের ক্ষেত্রেও পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদনের বিষয়টি সামনে আনা প্রয়োজন। মাটিতে পচে না অথবা সহজেই দূষণ সৃষ্টি করে-এমন দ্রব্য বা বস্তু মাটির নির্দিষ্ট উচ্চতার বেশি নিচে ফেললে সহজেই ভূগর্ভস্থ পানি দূষিত হতে পারে।

শুধু স্ট্যান্ডার্ড ঠিক করে দেওয়া নয়, এ ব্যাপারে অডিটিং পদক্ষেপও নিতে হবে। খাদ্যে বিষক্রিয়া কমানো এবং পানির সঠিক মান বজায় রাখার জন্য মাটি দূষণ কমাতে হবে এবং মাটির ওপর দূষিত বস্তুর চাপ কমাতে হবে।

নির্দিষ্ট উচ্চতার নিচে না ফেললে মাটি দূষণও যেমন কমানো সম্ভব তেমনি ভূগর্ভস্থ পানির দূষণও কমানো সম্ভব। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি বিনীত দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

শ্রীপুর, গাজীপুর।

সম্পাদক : ড. কাজল রশীদ শাহীন
প্রকাশক : মো. আহসান হাবীব

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : বসতি হরাইজন, ১৭-১৮-বি, বাড়ি-২১, সড়ক-১৭, বনানী, ঢাকা
ফোন : বার্তা-৯৮২২০৩২, ৯৮২২০৩৭, মফস্বল-৯৮২২০৩৬
বিজ্ঞাপন-৯৮২২০২১, ০১৭৮৭ ৬৯৭ ৮২৩,
সার্কুলেশন-৯৮২২০২৯, ০১৮৫৩ ৩২৮ ৫১০
Email: editorkholakagoj@gmail.com
            kholakagojnews7@gmail.com