ঢাকা, বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ১৯ মাঘ ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

তারুণ্যের চোখে গণতন্ত্র দিবস

ক্যাম্পাস রিপোর্ট
🕐 ২:৫৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২২

তারুণ্যের চোখে গণতন্ত্র দিবস

জাতিসংঘের সদস্যভুক্ত দেশগুলোতে গণতন্ত্র সম্পর্কে আগ্রহ সৃষ্টি এবং গণতন্ত্র চর্চাকে উৎসাহিত করার প্রয়াসে দিবসটি পালিত হয়। ২০০৭ সালে এ দিবসের ঘোষণা দেয় জাতিসংঘ।

বিশ্বব্যাপী ব্যাপকভাবে পালিত দিবসটিতে গণতন্ত্র নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ভাবনা তুলে ধরেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শফিকুর রহমান ইমন...

উন্নয়নে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিকল্প নেই

আধুনিক বিশ্বে গণতন্ত্র অন্যতম জনপ্রিয় একটি রাজনৈতিক পন্থা। একমাত্র গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতেই কেবল অংশগ্রহণ মূলক ব্যবস্থা রয়েছে, যেখানে সরাসরি জনগণের মতামত প্রাধান্য পায়। সরকার ব্যবস্থার সকল কিছু জনগণের মতামত দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। তাই সরকার মনগড়া কিছু করতে পারে না এবং উন্নয়নমূলক সকল কাজ সঠিক এবং সুষ্ঠুভাবে চলমান থাকে। এতে করে দেশের ভাবমূর্তি এবং উন্নয়ন ক্রমাগত বেড়েই চলে। যা কেবল গণতান্ত্রিক সরকার ব্যবস্থাতেই সম্ভব। যেখানে নানা দলগত নির্বিশেষে অংশগ্রহণমূলক রাজনৈতিক চর্চার মাধ্যমে উৎকৃষ্ট সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এতে করে ভিন্ন ভিন্ন মতের মধ্য থেকে উত্তম এবং উৎকৃষ্ট সিদ্ধান্ত জনগণ ও দেশের কল্যাণে গৃহীত হয়। তাই সুখী, সমৃদ্ধশালী এবং উন্নত দেশ গঠতে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার বিকল্প নেই। 

শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

গণতন্ত্রেই জনগণের অস্তিত্ব

বর্তমান যুগে সর্বাপেক্ষা উল্লেখযোগ্য শাসনব্যবস্থা হলো গণতন্ত্র। কেন না এই শাসন ব্যবস্থাকে জনগণের শাসন বলা হয়। কারণ জনগণ সরকারের কাছে সরাসরি তাদের মতামত প্রদান করতে পারে। একটি দেশের সরকারব্যবস্থা তখনই সাফল্যমন্ডিত হয় যখন সেখানে জনগণের অংশগ্রহণ নিশ্চিত হয়। জনগণ সরকার যোগ্যপ্রার্থী নির্বাচন করে থাকে। আর এই প্রার্থীরা জনকল্যাণের উদ্দেশ্য জনগণের চাহিদা অনুযায়ী কাজ করে থাকে। গণতন্ত্র না থাকলে দেশে যেকোনো ধরনের রাজনৈতিক ও সামাজিক অস্থিতিশীলতা বিরাজ করতে পারে। কারণ জনগণের সাথে অসম্পৃক্ত কোনো সরকার কখনো যোগ্য শাসক হতে পারে না। গনতন্ত্রের মাধ্যমেই জনগনের অস্তিত্ব রক্ষা হয়। জনগনের বাকস্বাধীনতা, ব্যক্তিস্বাধীনতা ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় অধিকারগুলো নিশ্চিত হয় গনতন্ত্রের মাধ্যমে।

শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

উৎসাহিত হোক গণতন্ত্র চর্চা

আধুনিক বিশ্বে সবচেয়ে জনপ্রিয় রাজনৈতিক শাসন ব্যবস্থা হচ্ছে ‘গণতন্ত্র। এই শাসন ব্যবস্থায় জনমত গুরুত্ব পায়। নির্বাচিত শাসকরা জনগণের কাছে দায়ী থাকেন এবং জনকল্যাণে সাধ্যমতো কাজ করে থাকেন। এই ব্যবস্থায় জনগণ সক্রিয়ভাবে রাষ্ট্রীয় কাজে অংশ নিতে পারেন। ফলে জনগণের মধ্যে গণতান্ত্রিক চেতনা, দায়িত্ববোধ, অধিকার সচেতনতা ও দেশব্রতী মনোভাব গড়ে ওঠে।
এই ব্যবস্থায় জনগণ চিন্তা ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা ভোগ করে। নানা দলমতের মিলনে কর্মসূচি ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় বলে একদিকে পরস্পরের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও সহনশীলতার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। মানুষের অস্তিত্ব রক্ষায় গণতন্ত্র চর্চা বাধ্যতামূলক। সবাইকে গণতন্ত্র বিশ্বাস করতে হবে। কেবল গণতন্ত্রের চর্চাই পারে সুখী, সমৃদ্ধশালী একটি দেশ গড়তে।

শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

রাজনৈতিক ভারসাম্য জরুরি

গণতন্ত্র, আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সর্বাপেক্ষা আধুনিক ও জনপ্রিয় সরকার ব্যবস্থা। শীর্ষস্থানীয় দেশগুলোতেও গণতন্ত্রের চর্চা পরিলক্ষিত। শাসনব্যবস্থায় গণতন্ত্রকে বেছে নেয়ার উল্লেখযোগ্য কারণগুলোর মধ্যে প্রধান একটি হলো, দেশের সকল নাগরিকের ভোটাধিকার নিশ্চিত করার মাধ্যমে রাজনৈতিক সিদ্ধান্তগুলোতে তাদের মত প্রকাশের সুযোগ সৃষ্টি করা। দেশভেদে গণতন্ত্রের স্বরূপে ভিন্নতা রয়েছে। গণতন্ত্র শব্দটি যদিও রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ বুঝায়, দুঃখজনকভাবে বর্তমানে বিভিন্ন দেশের গনতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থায় সঙ্কট দেখা দিয়েছে, যেখানে কেবল ক্ষমতাসীন দলের মতামতকেই প্রাধান্য দিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে।

শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

গণতন্ত্রে বলীয়ান গর্বিত বাঙালি

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ বিভিন্নভাবে পরিচালিত হলেও গণতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থা সর্বাপেক্ষা প্রশংসার দাবিদার। রাষ্ট্র বলতে সাধারণত জনগণের সমষ্টি কে বুঝায়। ভূখণ্ড, সরকার ও সার্বভৌমত্ব এ সবই জনগণকে আর জনগণ রাষ্ট্রকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হয়। জনগণ স্বাধীনভাবে নিজের মতামত প্রকাশ, ভোট প্রদান, প্রতিনিধি নির্বাচন এবং সরকার গঠন প্রক্রিয়ার সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত থাকে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় যা অন্যান্য শাসন ব্যবস্থায় দেখা দুষ্কর। এই জনগণ-ই গণতন্ত্রের কান্ডারি শক্তি। জনগণকে প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। তবেই বিশ্বের বুকে বাংলাদেশ হবে উন্নয়নের রোল মডেল। মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে বাঙ্গালী বুকে রেখে একটি ধ্বনি চির উন্নত মমশির।

শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

 
Electronic Paper