ঢাকা, বুধবার, ১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ১৯ মাঘ ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

খাঁচায় বন্দি প্রাণীদের মুক্ত করার দাবিতে খাঁচা বন্দি

আরিফ জাওয়াদ, ঢাবি
🕐 ৭:২৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০২২

খাঁচায় বন্দি প্রাণীদের মুক্ত করার দাবিতে খাঁচা বন্দি

“বনেরা বনে সুন্দর, শিশুরা মাতৃক্রোড়ে” বনের সৌন্দর্য ফিরিয়ে দিতে খাঁচায় বন্দী সকল প্রাণীকে মুক্ত করার আহ্বান জানিয়েছে তিন পরিবেশ কর্মী। এর পাশাপাশি দেশে প্রচলিত চিড়িয়াখানার কনসেপ্ট বাতিলের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা।

শনিবার (২০ আগস্ট) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি সংলগ্ন সন্ত্রাস রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বন্য প্রাণী সংরক্ষণে সচেতনতা বাড়াতে খাঁচায় বন্দী হয়েছেন হোসেন সোহেল নামে এক পরিবেশ কর্মী। হোসেন সোহেলের সাথে সংহতি প্রকাশ করেছেন আরো দুই যুবক নয়ন সরকার ও রাকিবুল ইসলাম নামে আরো দুই পরিবেশ কর্মী।

খাঁচায় বন্দি থাকা পরিবেশ কর্মী হোসেন সোহেল জানায়, “আমি খাঁচা বন্দি হয়েছি নিজেকে যন্ত্রণা দেবার জন্য। খাঁচায় বন্দি প্রাণীরা যেমন খাঁচাতে বন্দি থাকলে যেমনটা কষ্ট পায়। তার নূন্যতম অভিজ্ঞতা নেবার জন্য।” বাংলাদেশে খাঁচা মধ্যে প্রাণ-প্রকৃতি বন্দি করে রাখা যাবে না। বনের পশু-পাখি বনেই ছেড়ে দিতে হবে। তাঁদের কে মুক্ত করতে হবে। দেশে যে চিড়িয়াখানার যে কনসেপ্ট রয়েছে, সেটি বাতিল করতে হবে।

এছাড়া তিনি আরো জানান, খাঁচার মধ্যে এভাবে পশু-পাখি কে বন্দি করে রাখার মধ্যে নানান ভাবে নির্যাতন করা হয়। অনেক শিশু পশু-পাখিকেও মায়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে এনে বন্দী এক বদ্ধ জগতে বন্দি করা হয়। ‘বনেরা বনে সুন্দর, শিশুরা মাতৃক্রোড়ে’ আমার দাবি বনের সৌন্দর্য ফিরেয়ে দেয়ার জন্য এসব বন্য পশু-পাখিকে বনে ফিরিয়ে দিতে হবে।

হোসেন সোহেলের সাথে সংহতি প্রকাশ করা নয়ন সরকার জানান, দেশে যেভাবে চিড়িয়াখানা গড়ে উঠেছে, তা বর্তমান বাস্তবতার সঙ্গে যায় না। যেখানে খাঁচায় বন্দি পশু-পাখিরা অস্বাস্থ্যকর খাবার, পরিবেশ ও চিকিৎসার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। যার ফলে তাঁদের ধুঁকে ধুঁকে মারা যাওয়ার খবর প্রায়শ চোখে পড়ে। এখানে বন বিভাগের গাফিলতিও বেশ লক্ষ্যণীয় বন্য প্রাণীদের ব্যাপারে। যেসব সাফারি পার্ক গড়ে তোলা হয়েছে, সেখানেও বন্য প্রাণীরা নানান অযত্ন ও অবহেলায় জীবন অতিবাহিত করছে।

তিনি আরো জানান, আমাদের দাবি চিড়িয়াখানাগুলো বন্ধের পাশাপাশি, বন্দি সকল পশু-পাখিকে বনে ফিরিয়ে দিতে হবে। অনেক দিন ধরে চিড়িয়াখানা বন্ধের একটি দাবি অনেক দিন ধরেই আসছে। আমরা চাচ্ছি, বন্য প্রাণী সংরক্ষণে সচেতনা বাড়াতে।

তিন দিনের ২৪ ঘণ্টার এ কর্মসূচির মাধ্যমে বন্য প্রাণী সংরক্ষণে হোসেন সোহেল সহ ওই দুই যুবক জনসচেতনতা বাড়াতে চান। এর পাশাপাশি তাঁরা প্রত্যাশা রাখেন তাঁদের এ কর্মসূচির মাধ্যমে হয়তো দেশে প্রচলিত যে চিড়িয়াখানার কনসেপ্ট রয়েছে, সরকার সেটির পরিবর্তনও আনতে পারে।

 
Electronic Paper