স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বপ্নের দেশ নির্মাণ করতে পারিনি: ফখরুল

ঢাকা, সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ৬ বৈশাখ ১৪২৮

স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বপ্নের দেশ নির্মাণ করতে পারিনি: ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক ৩:৪৯ অপরাহ্ণ, মার্চ ০২, ২০২১

print
স্বাধীনতার ৫০ বছরে স্বপ্নের দেশ নির্মাণ করতে পারিনি: ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘স্বাধীনতার এই ৫০ বছরে আমাদের শিশুদের জন্য কি সত্যিকার অর্থে একটা ভালোবাসার দেশ, একটা প্রেমের দেশ, একটা স্বপ্নের দেশ নির্মাণ করতে পেরেছি? তখন নিজের কাছে একটা ঘৃণা আসে, ধিক্কার আসে যে, না আমরা সেটা করতে পারিনি।’ মঙ্গলবার (২ মার্চ) সকালে রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে জিয়া শিশু একাডেমি আয়োজিত জাতীয় শিশু শিল্পী প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, ‘আমরা আমাদের শিশুদের জন্য সেই আবাসস্থল তৈরি করতে পারিনি যেখানে তারা নিরাপদে গড়ে উঠবে মানুষের মতো। সেখানে সত্যিকার অর্থেই ভালোবাসা, শান্তিময় একটা জগৎ তৈরি করা সম্ভব হবে। বার বার করে আমার মনে হয়, শিশুদের জন্য আবাসস্থল না করতে পারায় দায় আমাদের।’

তিনি বলেন, দলাদলি আর বিভক্তির কারণেই উদার ও সুন্দর বাংলাদেশ গড়তে ব্যর্থ হয়েছি, এর দায় কোনভাবেই এড়ানো যাবে না। মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে দেশ গড়ার যে প্রত্যয় ছিল ৫০ বছর পরও সে স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা যায়নি।

শিশুদের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমাদের অনেক বয়স হয়েছে। আমরা কিছুদিন পরে হয়ত পৃথিবী ছেড়ে চলে যাব। এই সময়ে কোভিডের মধ্যে আমাদের অনেক বহু গুণী মানুষ চলেও গেছেন। আমরা দেখে যেতে চাই সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশ শিশুদের জন্যে সুন্দর, ন্যায়ভিত্তিক, সত্যভিত্তিক জগৎ আমরা তৈরি করতে পেরেছি, আনন্দময়-প্রেমময়। তোমাদের মধ্যেই আমাদের ভবিষ্যৎ দেখতে পাই।’

অনুষ্ঠানে স্বাধীনতার সূবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে শিক্ষায় অধ্যক্ষ সেলিনা আখতার, স্বাস্থ্য সেবায় অধ্যাপক হাসিনা আফরোজ, সঙ্গীতে এএসএম শফি মণ্ডল, শিল্পায়নে আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, প্রবাসী কল্যাণে খান মনিরুল মনি, জনপ্রতিনিধি মনিরুল আলম সেন্টু ও আদর্শ মা মৌসুমী সাহাকে ‘কমলপদক-২০২০’ দেওয়া হয়।

সংগঠনের নির্বাহী মহাপরিচালক এম হুমায়ুন কবীরের সভাপতিত্বে এবং মাশুক সিদ্দিকী ও নওশিন রথির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে একাডেমির পৃষ্ঠপোষক অ্যালবার্ট পি কস্টা, কণ্ঠশিল্পী খুরশীদ আলম, জিনাত রেহানা, সামিনা আখতার সম্পা ও সুলতানা জামান জ্যোৎস্না বক্তব্য দেন।