রিমান্ডে নিয়ে ছাত্রদল নেতাদের নির্যাতন চালানো হচ্ছে: রিজভী

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১ | ৭ বৈশাখ ১৪২৮

রিমান্ডে নিয়ে ছাত্রদল নেতাদের নির্যাতন চালানো হচ্ছে: রিজভী

অনলাইন ডেস্ক ১:১৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ০২, ২০২১

print
রিমান্ডে নিয়ে ছাত্রদল নেতাদের নির্যাতন চালানো হচ্ছে: রিজভী

গ্রেফতারের উদ্দেশ্যে সোমবার রাতে পুলিশ ঢাকা জেলা ছাত্রদলের সদস্য সজীব রায়হানকে বাসায় না পেয়ে তার তিন ভাইকে ধরে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন, ছাত্রদলের নেতাদের গ্রেফতার করে তাদের রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন চালানো হচ্ছে। এসব ঘটনা আওয়ামী বাহিনীর আরেকটি নির্মম দৃষ্টান্ত। এ ঘটনা ২৫ মার্চের পর হানাদার বাহিনী এবং স্বাধীনতার পর রক্ষীবাহিনীর বর্বরতাকে স্মরণ করিয়ে দেয়। নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, একদিকে বিক্ষোভ বানচাল করার জন্য উন্মত্ত পুলিশের বেপরোয়া লাঠিপেটায় রক্তাক্ত করা হচ্ছে, অন্যদিকে গ্রেফতার করে রিমান্ড নামক টর্চারিং মেশিনে ঢুকিয়ে ছাত্রদল নেতাদের যে নির্যাতন করা হচ্ছে তা নজিরবিহীন।

রিজভী বলেন, ক্ষমতার উন্মাদনার মধ্যে থাকতে চায় বর্তমান আওয়ামী সরকার। বোধ, বুদ্ধি, বিবেচনা, মানবিকতা সব কিছু বিসর্জন দিয়ে এক নিষ্ঠুর মাফিয়াতন্ত্র কায়েম করেছে তারা।

তিনি বলেন, সজীব রায়হানকে বাসায় না পেয়ে তার ভাইদের ধরে নিয়ে যাওয়া নাৎসীবাদের চরম বহিঃপ্রকাশ। এতে নাৎসীবাদের ভয়ঙ্কর দমনের প্রবণতাই ফুটে উঠেছে।

রিজভী আরও বলেন, রোববার লেখক মুশতাক আহমেদের সরকারি হেফাজতে মৃত্যুর প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ছাত্রদলের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে পুলিশের অতর্কিত হামলায় বিএনপির প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। এই বর্বরোচিত আক্রমণের পরেও পুলিশ থেমে নেই। এখন শুরু করেছে বেধড়ক মামলা, গ্রেফতার ও রিমান্ডের নামে অকথ্য অত্যাচার। ইতোমধ্যে ছাত্রদলের ১৩ জন নেতাকে গ্রেপ্তার করে তাদের পাঁচদিনের রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন চালানো হচ্ছে।

তিনি বলেন, যারা প্রতিহিংসার মনোভাব নিয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা দখলে রাখে তাদের পতন অবশ্যম্ভাবী। বহুদিন ধরে চলে আসা এই হিংস অবিচার মানুষ আর সহ্য করবে না। সব নির্যাতন সহ্য করেই ছাত্র-জনতা রাজপথে থাকবে।

তিনি অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত ছাত্রদল নেতাদের রিমান্ড বাতিল ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে মুক্তির দাবি জানান। সজীব রায়হানের ভাই জুয়েল, সোহেল, সুমন যাদের রাজনীতির সঙ্গে কোনই সম্পর্ক নেই তাদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানান তিনি।