প্রাণিসম্পদ খাতে ৯শ’ কোটি টাকা প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার: শ ম রেজাউল

ঢাকা, শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭

প্রাণিসম্পদ খাতে ৯শ’ কোটি টাকা প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার: শ ম রেজাউল

নিজস্ব প্রতিবেদক ৭:৪৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০২০

print
প্রাণিসম্পদ খাতে ৯শ’ কোটি টাকা প্রণোদনা দিচ্ছে সরকার: শ ম রেজাউল

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী করোনাভাইরাস মহামারীতে সৃষ্ট বেকারত্ব দূর করতে প্রান্তিক পর্যায়ে প্রাণিসম্পদ খাতে ৯শ’ কোটি টাকা প্রণোদনা দেয়া হবে।

শ ম রেজাউল আজ জেলার উপশহর কাশিপুরে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের অধীন ব্ল্যাক বেঙ্গল জাতের ছাগল উন্নয়ন ও সম্প্রসারণ প্রকল্পের উদ্যোগে ও জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের সহযোগিতায় জেলা ছাগল উন্নয়ন খামার কার্যক্রমের উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

শ ম রেজাউল বলেন, করোনা মহামারী কালে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের সবচেয়ে বড়খাত পোশাক শিল্প ও প্রবাসী আয় বিভিন্নভাবে বাধাগ্রস্ত হয়েছে। বিদেশ থেকে অনেক মানুষ বেকার হয়ে দেশে ফিরেছেন।

মন্ত্রী বলেন, দেশেও অনেকে কাজ হারানোয় বেকারত্ব বেড়েছে। সরকার বেকারত্ব দূর করতে মাছ, মাংস, দুধ, ডিম উৎপাদন ও বিপনন প্রক্রিয়ায় বিনিয়োগ করবে।

জেলা প্রশাসক এস এম অজিয়র রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্ণেল (অব.) জাহিদ ফারুক এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. আব্দুল জব্বার শিকদার ও বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার ড. অমিতাভ সরকার।

শ ম রেজাউল বলেন, আমরা বেকারদের সক্ষম করে গড়ে তুলতে চাই, উদ্যোক্তা হিসেবে বেকারদের গড়ে তুলতে চাই, গ্রামীণ অর্থনীতিকে সচল রাখতে চাই। এজন্য মানুষের পুষ্টি ও আমিষের চাহিদা মেটানোর সবচেয়ে বড় খাতকে আমরা বড় আকারে বিস্তার ঘটাতে চাই।

মন্ত্রী বলেন, করেনাভাইরাস, অম্পান, বৃষ্টি ও বন্যার জন্য প্রাণিসম্পদ খাতে প্রান্তিক পর্যায়ের ক্ষতিগ্রস্তদের ৯শ’ কোটি টাকা প্রণোদনা দেয়া হবে। এতবড় প্রণোদনা দেশের ইতিহাসে এই খাতে এই প্রথম।

তিনি বলেন, ভরাট পুকুরে মাছ চাষ, গবাদি পশু, হাঁস-মুরগী, ছাগল-ভেড়া পালনের জন্য বিনামূল্যে সহযোগিতা ও সহজ শর্তে ঋণ হিসেবে এই প্রণোদনা দেওয়া হবে। গ্রামের একটা মানুষও যাতে বেকার না থাকে, সেই লক্ষ্যকে সামনে রেখে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।