ঢাকায় ভোটার শূন্য কেন্দ্র

ঢাকা, বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০ | ১৩ কার্তিক ১৪২৭

ঢাকায় ভোটার শূন্য কেন্দ্র

মাহমুদুল হাসান ৯:৫৪ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৮, ২০২০

print
ঢাকায় ভোটার শূন্য কেন্দ্র

ঢাকা- ৫ আসনে উপনির্বাচনের ভোট প্রত্যাখ্যান করে পুনরায় ভোটগ্রহণের দাবি জানিয়েছেন বিএনপির সমর্থিত ধানের শীষের প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ। একই সঙ্গে তিনি ভোটে অনিয়ম, কারচুপির প্রতিবাদে নির্বাচনী এলাকায় আজ রোববার মানববন্ধন কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন। গতকাল শনিবার সকাল সোয়া ৯টায় ডগাইর দারুসুন্নাত ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রের সামনে এক দল যুবকের দেখা মেলে। কেন্দ্রের মূল ফটকের সামনেও জটলা। সবার গলায় ঝোলানো নৌকার ব্যাচ। কেউ কেন্দ্রের দ্বিতীয় তলায় উঠলেন। আবার কেউ বাইরে দাঁড়িয়ে রইলেন।

বহু লোকের উপস্থিতি থাকলেও একজনও পাওয়া গেল না ধানের শীষ অথবা অন্য প্রতীকের ভোটার। ভিতরে গিয়ে পাওয়া যায়নি কোনো ধানের শীষের এজেন্ট। কিছুক্ষণের মধ্যে একজন ধানের শীষের এজেন্ট এলেন। প্রিজাইডিং অফিসারের সঙ্গে দেখা করলে তাকে বসানোর ব্যবস্থা করা হলো। এর আঘা ঘণ্টা পর মেট্রোপলিটন ক্রিয়েটিভ স্কুল ও কলেজে গিয়েও দেখা গেছে একই চিত্র। বিকাল ৩টার দিকে আমুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে ধানের শীষের একজন এজেন্ট পাওয়া যায়নি। কেন্দ্রের সামনে ভিড় থাকলেও ভিতরে গিয়ে দেখা গেল প্রায় সব বুথই ফাঁকা।

নির্বাচনী কর্মকর্তা, পোলিং এজেন্ট আর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঢিলেঢালা সময় পার করছেন। এছাড়া প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রেই ভোটার উপস্থিতি ও ভোট প্রয়োগের হার ছিল একেবারেই কম। ভোট কক্ষের ভিতর পোলিং অফিসাররা গল্পগুজব করে অলস সময় পার করেছেন। নিরাপত্তায় নিয়োজিত আনসার সদস্যরাও কেন্দ্রের সামনে বসে খোশ গল্পে মেতে ওঠেন। প্রায় প্রতিটি কেন্দ্রে আওয়ামী লীগ প্রার্থীদের এজেন্ট ও কর্মী দেখা গেলেও বিএনপির কাউকে দেখা যায়নি। দুপুর ১২টা পর্যন্ত গুটিকয়েক ভোটার লক্ষ্য করা গেছে।

ডগাইর দারুসুন্নাত ফাজিল মাদ্রাসায় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার নাজমুল হক বলেন, সুষ্ঠু ভোটের আয়োজন করেছি। আমরা চাই ভোটার ভোট কেন্দ্রে এসে ভোট দিয়ে যাক। কেন্দ্রের ভিতরের পরিবেশ ঠিক রাখার দায়িত্ব আমার। বাইরে কি হলো এটা আমার বিষয় নয়। এখানে সুষ্ঠু ভোট হচ্ছে। প্রিজাইডিং অফিসার মোহসীন মোল্লা বলেন, এখানে সুষ্ঠু ভোট হচ্ছে। দুপুর ১২টা ৪৪ পর্যন্ত ১৪৮ নম্বর কেন্দ্রে ২২৫টি ভোট পেড়েছে।

এই কেন্দ্রের ষাটোর্ধ্ব সরদার (ছদনাম) বলেন, জানান, ভোট দিতে তেমন একটা সমস্যা হয়নি। কিন্তু ভোটে কোনো উৎসব নেই, কোনো আনন্দ পেলাম না। এমন জানলে এতো কষ্ট করে কেন্দ্রে আসতাম না। কথা বলতে বলতেই পরক্ষণেই নৌকার ব্যাচ পরা একজন টেনে তাকে নিয়ে যান। এমন আরেক কেন্দ্রে জাহেরা বেগমের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন, আমার অনেক বয়স হয়েছে। কার্ডে আছে। ওখানে দেখলেও বুঝবেন। ‘আইসিলাম ভোট দিতে। কিন্তু আমার ভোট তো সকালেই শেষ’। ভোট না দিতে পেরে মনে আক্ষেপ নিয়ে ফিরে যাচ্ছেন জাহেরা।

হাবিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুতে শূন্য ঢাকা-৫ আসনে সকাল থেকেই প্রতিটি কেন্দ্রে সরেজমিন ঘুরে নানা চিত্র দেখা গেছে। কেন্দ্রে কেন্দ্রে নৌকা সমর্থকদের মহড়া, বুথ শূন্য ভোটকেন্দ্র, ধানের শীষ এজেন্টদের বের করে দেওয়া ছাড়াও নানা অভিযোগ পাওয়া গেছে। ৬৬ নং ওয়ার্ডের ১৪৮ ও ১৪৯ কেন্দ্র, দেল্লা, সারুলিয়া ডগাইর দারুসুন্নত ফাজিল মাদ্রাসা, সানারপাড় রুস্তম আলী হাইস্কুল, ফুলকলি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ৬৬ নং ওয়ার্ডের ভ্যামুইল আইডিয়াল স্কুল, ৬৭ নং ওয়ার্ড লতিফুন নেছা উচ্চ বিদ্যালয়, ৬৮ নং ওয়ার্ডের হাজী আদর্শ মোয়াজ্জেম আলী হাই স্কুলসহ প্রায কেন্দ্রেই কোনো ধানের শীষের এজেন্ট চোখে পড়েনি। কেন্দ্র থেকে বিএনপির সব পোলিং এজেন্টকে পুলিশের সামনেই আওয়ামী লীগ কর্মীরা বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি প্রার্থী।

কদমতলীর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ কেন্দ্রে বেলা দেড়টা পর্যন্ত ৪ নম্বর ভোটকক্ষে ৪০১টি ভোটের মধ্যে মাত্র ভোট পড়েছে ৬টি। পৌনে ১টায় পর্যন্ত সারুলিয়ায় দারুসুন্নাহ ফাজিল মাদ্রাসা ভোটকেন্দ্রে ২২৫ ভোট কাস্ট দেখা গেছে। দনিয়ায় বর্ণমালা উচ্চ বিদ্যালয়ে বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত একটি বুথেও কোনো ভোট পড়েনি। দুপুর একটা পর্যন্ত হলি সোল কেন্দ্রে ভোট পড়ে ১৫৮৬টি। আই সি এম এইচ স্কুল কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৪৭৫। দুপুর ১টা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৭৬টি। সামসুল হক খান স্কুল এন্ড কলেজে মোট ভোটার ২৩৭৬। দুপুর ১টা পর্যন্ত ভোট পড়েছে ১০৫টি।

এদিকে বিকাল সাড়ে ৫টায় এই নির্বাচন বাতিল করে পুনঃনির্বাচনের দাবি জানিয়ে বিএনপি প্রার্থী সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ৯৫ ভাগ কেন্দ্র থেকে বিএনপি এজেন্টকে বের করে দেওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠুভাবে আজ পর্যন্ত কোনো নির্বাচন করতে পারেনি। তাই আজকের নির্বাচনও সুষ্ঠু হয়নি বলেই আমি মনে করি। বেশির ভাগ কেন্দ্র থেকে আমাদের এজেন্টকে বের করে দেওয়া হয়েছে। এজন্য ৯০ থেকে ৯৫ ভাগ কেন্দ্রে আমাদের এজেন্ট নেই।

তিনি বলেন, এটি একটি ভোটারবিহীন নির্বাচন। তারা যেভাবে ত্রাস সৃষ্টি করেছেন এতে করে জনগণ তাদের ভোট দেবে না। এছাড়া ভোটারবিহীন নির্বাচনের প্রতিবাদে আজ দুপুর ২টা থেকে ঢাকা-৫ এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচির ঘোষণা দেন বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন আহমেদ। এ সময় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক তানভীর আহমেদ রবিন ও যাত্রাবাড়ী থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান ভাণ্ডারীসহ বিভিন্ন নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, প্রায় সব কেন্দ্রেই আমাদের এজেন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। যেসব কেন্দ্রে এজেন্ট ঢুকেছে তাদেরও বের করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু প্রিজাইডিং কর্মকর্তারা কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। আমরা নির্বাচন কমিশনের রিটার্নিং কর্মকর্তাকে বারবার অবহিত করলেও তিনি কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। তাই আপনাদের মাধ্যমে আমরা এ অনিয়মে জর্জরিত অবৈধ নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করছি এবং পুনঃনির্বাচনের দাবি জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, ঢাকা-৫ আসনে সব কেন্দ্রেই ইভিএমে ভোট গ্রহণ করা হয়।