বাদ ফারুক চয়ন আহ্বায়ক

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

যুবলীগ নিয়ে গণভবনে বৈঠক

বাদ ফারুক চয়ন আহ্বায়ক

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:৫১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৯

print
বাদ ফারুক চয়ন আহ্বায়ক

যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি আগামী ২৩ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় সম্মেলনের জন্য প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এতে আহ্বায়কের দায়িত্ব পেয়েছেন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য চয়ন ইসলাম। সদস্য সচিব করা হয়েছে সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদকে। রোববার সন্ধ্যায় গণভবনে যুবলীগের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, সংগঠনটির সদস্য হওয়ার নতুন বয়সসীমা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৫ বছর। সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি আগামী সম্মেলন পর্যন্ত যুবলীগের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালনা করবে। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও রোববার গণমাধ্যমকে বলেছেন, ওমর ফারুককে বহিষ্কার নয় অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এটাই আমি জানি।

জানা গেছে, রোববার বিকেলে যুবলীগের সপ্তম কাউন্সিল সামনে রেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেন যুবলীগ নেতারা। তবে ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না ওমর ফারুক চৌধুরী। এছাড়া সংগঠনটির প্রভাবশালী প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরন্নবী চৌধুরী শাওনকেও বৈঠকে দেখা যায়নি।

যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদের নেতৃত্বে যুবলীগের জ্যেষ্ঠ নেতারা গণভবনে যান।

আরও জানা গেছে, ৭১ বছর বয়সী ওমর ফারুক চৌধুরী বয়সের ভারে অনেকটা ‘ন্যুজ’। যুবলীগের ইতিহাসে ৫০ বছরের বেশি বয়সী কেউ চেয়ারম্যান হননি। ১৯৭২ সালের নভেম্বরে শেখ ফজুলল হক মণি যখন যুবলীগ প্রতিষ্ঠা করেন, তখন তার বয়স ছিল ৩২ বছর। আর ওমর ফারুক চৌধুরী যখন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান, তখন তার বয়স ৬৪ বছর। সাত বছর ধরে চেয়ারম্যানের পদে রয়েছেন তিনি। এই সময়টায় আওয়ামী লীগ রাষ্ট্রক্ষমতায়। এই সময়ে আখের গোছান ওমর ফারুক।

২০১৭ সালের জাতীয় যুবনীতি অনুসারে, ১৮ থেকে ৩৫ বছর বয়সের যেকোনো বাংলাদেশি নাগরিক যুব হিসেবে গণ্য হবে। কিন্তু যুবলীগ চেয়ারম্যানের বর্তমান বয়স ৭১ বছর। তিনি সাত বছর ধরে চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আছেন। যদিও গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তিন বছর পরপর কমিটি করার কথা। শুধু তিনি নন, যুবলীগ নেতাদের আরও অনেকের বয়স ৬০ পেরিয়ে গেছে বলে জানা গেছে। তারা এখনও বহাল তবিয়তে।