‘ট্রেনে হামলার রায়ে প্রমাণিত হয়েছে স্বাধীন বিচারব্যবস্থা নেই’

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬

‘ট্রেনে হামলার রায়ে প্রমাণিত হয়েছে স্বাধীন বিচারব্যবস্থা নেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক ৪:২৬ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৪, ২০১৯

print
‘ট্রেনে হামলার রায়ে প্রমাণিত হয়েছে স্বাধীন বিচারব্যবস্থা নেই’

২৫ বছর আগে পাবনায় তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বহনকারী ট্রেনে গুলির ঘটনায় যে ৯ জনের ফাঁসি এবং আরো ৩৮ জনের সাজা হয়েছে, সে ঘটনার পেছনে আওয়ামী লীগকেই দায়ী করেছে বিএনপি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ট্রেনে হামলার ঘটনায় বিএনপি নেতাদের সাজা দেয়া হয়েছে। কিন্তু ওই দিন আওয়ামী লীগের দুপক্ষের গোলাগুলির ঘটনায় ট্রেনে এ গুলি লাগে। এ রায়ের মাধ্যমে আরেকবার প্রমাণিত হয়েছে, এ দেশে স্বাধীন বিচারব্যবস্থা নেই।

বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব) আয়োজিত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এক চিকিৎসক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

ফাঁসির আদেশে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, পাবনায় ট্রেনে হামলার ঘটনায় যে রায় দেয়া হয়েছে, এতে গোটা জাতি বিস্মিত হয়েছে। ১৯৯৪ সালে ট্রেনে দুটি গুলি ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে। কে ছুড়েছে, কয়টি ছুড়েছে তার কোনো প্রমাণাদি নেই। অথচ এ মামলায় ৯ জনকে ফাঁসি ও ২৫ জনকে যাবজ্জীবন দেয়া হয়েছে। এ রায়ে আমরা শুধু হতাশ নই, বিক্ষুব্ধ।

দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে তিনি বলেন, এ ধরনের মামলায় সবাই জামিন পান; শুধু খালেদা জিয়া জামিন পান না। এ ধরনের মামলায় জামিন পাওয়ার উদাহরণ আমাদের সামনেই আছে। ব্যারিস্টার মঈনুল হক জামিন পেয়েছেন। মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া জামিন পেয়েছেন। তাই আমরা খালেদা জিয়ার আশু মুক্তি দাবি করছি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়া প্রতিটি সময়ে জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য কাজ করেছেন। এখনও তিনি তা করে যাচ্ছেন। এখন যে কারাগারে আছেন, এটিও জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। এ দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে গণতন্ত্রের জন্য সংগ্রামে তার অবদান অতুলনীয়।