সীতাকুণ্ড ট্রাজেডি : নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের আহ্বান ফখরুলের

ঢাকা, শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২ | ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯

Khola Kagoj BD
Khule Dey Apnar chokh

সীতাকুণ্ড ট্রাজেডি : নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের আহ্বান ফখরুলের

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা
🕐 ৫:২৭ অপরাহ্ণ, জুন ০৬, ২০২২

সীতাকুণ্ড ট্রাজেডি : নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের আহ্বান ফখরুলের

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের বিএম ডিপোর বিস্ফোরনের ঘটনা তদন্তে নিরপেক্ষ কমিশন গঠনের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। আজ সোমবার দুপুরে গুলশানে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই দাবি জানান।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘এই ঘটনার জন্য অবিলম্বে একটা নিরপেক্ষ তদন্ত কমিশন গঠন করা উচিত। এর জন্য যারা দায়ী তাদের খুঁজে বের করা দরকার। কী ভয়াবহ! মানুষের বডি (দেহ) খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে, একেবারে অগ্নিদগদ্ধ হয়ে গেছে চিনা যাচ্ছে না। হঠাৎ করে যে বিস্ফোরণ হবে- এটাও তারা বুঝতে পারেনি। যার ফলে এই ঘটনাগুলো ঘটেছে।’

কেমন তদন্ত কমিশন চান জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, দল নিরপেক্ষ এবং সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক নেই সত্যিকার অর্থে বিষয়গুলো বোঝেন- এমন বিশেষজ্ঞদের দিয়ে তদন্ত করতে হবে। আমরা চাই সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্ত।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এই ঘটনার পর জাতীয় শোক ঘোষণা করা উচিত ছিল। অন্যান্য যে কোনো সভ্য দেশ হলে তাই করত। সম্প্রতি, আমেরিকাতে যে বাচ্চাগুলো মেরে ফেলল তখনই আমেরিকা জাতীয় শোক ঘোষণা করেছে। আপনি দেখেন, আসলে এই সরকারের সঙ্গে জনগনের কোনো সম্পর্ক নেই। ওরা জনগনের পালস জোঝে না, জনগন কি চাচ্ছে, কি আশা করছে- সেগুলো নিয়ে তাদের মাথাব্যথা নেই।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘গতকাল রোববার একজন আর্মির দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসারের কথা টেলিভিশনে শুনছিলাম- তিনি বলছিলেন, তাদের কাছে প্রয়োজনীয় উপকরণ নেই। আজকে আমি এই জায়গায় প্রশ্ন করতে চাই- এই সরকার তাহলে কী করছে? তথাকথিত অবকাঠামো নির্মাণের নামে নিজেদের পকেট ভারি করা..., দুর্নীতির করা-এটাই তাদের মূল লক্ষ্য। জনগনের কল্যাণের জন্য, জনগনের সেফটি-সিকিউরিটির জন্য, মানুষকে ভালো রাখার জন্য এই সরকারের কোনো দায়বন্ধতা নেই।’

ফখরুল বলেন, ‘এটা পরবর্তীকালে যারা বিদেশি বায়ার বা বিদেশিরা বাংলাদেশের সঙ্গে কেনাকাটা করে তাদের সহযোগিতায় আমাদের গার্মেন্টস প্রডিউসার ও মালিকদের আগ্রহের কারণে সেই ব্যাপারটা অনেকটা কাটিয়ে এসেছে। কিন্তু নিরাপত্তার ব্যাপারটা এখন পর্যন্ত সেইভাবে আসেনি। এই ধরনের অগ্নিকান্ডগুলো ঘটছে সেইগুলো নিয়ন্ত্রণ করার মতো প্রয়োজনীয় যে লোকবল, প্রয়োজনীয় যেসব উপকরণ সেসব নাই।’

ফখরুল আরও বলেন, ‘এখন তো আপনার বাংলাদেশের সামনে আর কিচ্ছুই নেই, পদ্মা সেতু ছাড়া আর কিছুই নেই। অথচ এর মধ্যে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটল, মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটলো...সম্পূর্ণভাবে তাদের ব্যর্থতার জন্য। আমি পত্রিকায় দেখলাম যে, প্রধানমন্ত্রী একটু সাহস দেওয়ার চেষ্টা করেছেন যে, পদ্মা ব্রিজে নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। তাতে তো এই সমস্যার (সীতাকুণ্ড বিস্ফোরণ) সমাধান হয় না।’

 
Electronic Paper