আমাল ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন উদ্যোগ

ঢাকা, শনিবার, ৩০ মে ২০২০ | ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭

আমাল ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন উদ্যোগ

মাহবুব নাহিদ ৭:০১ অপরাহ্ণ, মে ০৫, ২০২০

print
আমাল ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন উদ্যোগ

মহামারি করোনাকে প্রতিহত করতে বিশেষজ্ঞদের একটাই পরামর্শ, ‘গণসমাগম থেকে দূরে থাকুন আর সঠিক পদ্ধতিতে হাত ধৌত করুন।’ আমাল ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে তাই শহরের বিভিন্ন স্থানে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে, যেন পথচারীরা চলার পথে তাদের নিজেদের পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করতে পারেন। আমালের স্বেচ্ছাসেবী কর্মীদের থেকে তারা হাত ধোয়ার সঠিক পদ্ধতি এবং দিকনির্দেশনা হাতে কলমে জানতে পারছেন। এই উদ্যোগের সুফল সমাজের নিম্নআয়ের খেটেখাওয়া মানুষ ও গৃহহীন মানুষরাও পাবে। প্রথম ধাপে রাজধানীর ধানমন্ডি ১৫ নম্বর বাসস্ট্যান্ড এবং মোহাম্মদপুরের রিকশা স্ট্যান্ডে বেসিন এবং হ্যান্ডওয়াশের ব্যবস্থা করা হয়েছে। প্রতিটি হাত ধোয়ার পয়েন্টে একজন করে স্বেচ্ছাসেবী কর্মী রয়েছেন সাহায্য করার জন্য। এই কার্যক্রম পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জসহ বিভিন্ন স্থানে সম্প্রসারণের পরিকল্পনা রয়েছে আমাল ফাউন্ডেশনের।

মানুষ সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ জীব কথাটা শুধু বইয়ের পাতায় নয় বরং তার কর্মের বাস্তবিক প্রয়োগ এর মাধ্যমে প্রকাশ পায়। একটি মহামারির হাত থেকে আমরা যখন নিজেদের বাঁচাতে ঘরের দুয়ার বন্ধ করে লড়ে চলেছি, ঠিক তখনি আমাদের চারপাশের অগণিত অবলা প্রাণী যারা আমাদের উচ্ছিষ্ট খেয়ে বেঁচে থাকছে। তাদের নিরীহ কান্নায় বাতাস ভারী হচ্ছে। এইসব অবলা প্রাণীর (কুকুর, বিড়াল, কাক) জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া আমাল ফাউন্ডেশনের একটি ক্ষুদ্র প্রয়াস। আমাল ফাউন্ডেশনের দশজন স্বেচ্ছাসেবী ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে এই সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন।

করোনা মহামারিতে যেখানে একদল মানুষ তাদের প্রয়োজন এর বেশি খাদ্য কিনে মজুদ রাখতে সক্ষম হয়েছে, সেখানে সমাজের আর এক দল সামর্থ্যহীন, দিন এনে দিন খাওয়া মানুষ রয়েছে, যারা তাদের নিজের ও পরিবারের খাদ্যের জোগান দিতে অক্ষম। খালি পেটে রাতযাপন করছে।

এই সকল অবহেলিত, দুস্থ মানুষের মাঝে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে আমাল ফাউন্ডেশন। প্রায় এক হাজার পরিবারের খাদ্যের জোগান দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সংস্থাটি। ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ, বগুড়াসহ কক্সবাজার শহরগুলোতে সুবিধাবঞ্চিত পরিবারের মাঝে চাল, ডাল, তেল, লবণ থেকে নিয়ে হাত ধোয়ার সামগ্রী এবং মাস্ক বিতরণ করা হবে। প্রতি পরিবারের রেশন ব্যয় বরাদ্দ করা হয়েছে ৫০০ টাকা করে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জায়গায় কার্যক্রম শুরু হয়ে গেছে। আমাল ফাউন্ডেশন সাধারণত সারা দেশে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন কর্মকা-ে জড়িত। করোনাকালীন তাদের এই স্বেচ্ছাসেবী কর্মকা- অব্যাহত থাকবে বলে জানান ডিরেক্টর ইসরাত করিম ইভ।