‘আমি চলিলাম’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

লালন বলে জাতের কী রূপ

‘আমি চলিলাম’

বিবিধ ডেস্ক ২:২৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩০, ২০১৯

print
‘আমি চলিলাম’

সাঁইজি জীবিত ছিলেন ১১৬ বছর। মারা যাওয়ার এক মাস আগে তার পেটের পীড়া হয়। তখন পানি জমে হাত-পা ফুলে যায়। সে সময় দুধ ছাড়া তিনি অন্য কোনো খাবার খেতেন না। মৃত্যু পূর্ববর্তী সময়েও বেশকিছু গানও রচনা করেছেন লালন। মৃত্যুর আগের দিন ভোররাত পর্যন্ত গান শুনেছেন।

এরপর ভোর পাঁচটার দিকে শিষ্যদের ডেকে বলেছেন, ‘আমি চলিলাম।’ এই কথার কিছু সময় অতিবাহিত হতেই সাঁইজি এই জাত সংসারের বসুন্ধরা ছেড়ে পরপারে পাড়ি জমান।

বর্তমানে কার্তিক মাসের প্রথম দিন থেকে শুরু হয় লালন তিরোধান দিবসের অনুষ্ঠান। জনশ্রুতি আছে, আশ্বিস মাসের শেষদিকে লালন ফকির তার অনুসারীদের বলেছিলেন, তোমরা সবাই কার্তিকে প্রথম দিন এই আখড়ায় উপস্থিত থাকবে। ওইদিন এখানে রোজ কিয়ামত হবে। সবাই এসেছিলেন। সারা রাত আলোচনা চলে, মাঝে মাঝে গান।

শেষ রাতের দিকে তিনি গান গাইতে গাইতে ভক্ত-অনুসারীদের কাঁদিয়ে এই ধরাধাম ছেড়ে চলে যান।