পর্যটন শিল্পে ধস

ঢাকা, রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৬ আশ্বিন ১৪২৬

রক্তে রঞ্জিত লঙ্কা শ্রী

পর্যটন শিল্পে ধস

বিবিধ ডেস্ক ১:৪১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৪, ২০১৯

print
পর্যটন শিল্পে ধস

ঋণগ্রস্ত শ্রীলঙ্কার এমনিতেই মোট জাতীয় আয়ের ৮০ ভাগ পরিশোধ করতে হয় বিদেশি ঋণ পরিশোধে। এজন্য বৈদেশিক মুদ্রার খুবই দরকার দেশটির। মূল্যবান এই মুদ্রার বড় জোগান আসে দেশটির পর্যটন ও বিদেশি বিনিয়োগ থেকে।

শ্রীলঙ্কায় ঘুরতে এসে পর্যটকরা যে অর্থ খরচ করেন, সেটি দেশটির বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের তৃতীয় বৃহত্তম খাত। পর্যটননির্ভর শ্রীলঙ্কার অর্থনীতি বড় প্রভাব পড়েছে ইস্টার সানডেতে দেশটিতে চলা সিরিজ বোমা হামলায়। এতে আর্থিক সংকটে পড়তে যাচ্ছে দেশটি। পর্যটকরা এরই মধ্যে ভ্রমণ বাতিল করা শুরু করেছেন।

শ্রীলঙ্কায় যাওয়া পর্যটকদের বড় একটি অংশ যায় ভারত থেকে। ভারতীয় পর্যটকদের নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে আপাতত দুমাস শ্রীলঙ্কা ভ্রমণ বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কলকাতার বিভিন্ন বেসরকারি পর্যটন সংস্থা। একই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে কেটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম করপোরেশনও (আইআরসিটিসি)। আপাতত সংস্থার সাউথ জোন শ্রীলঙ্কায় তাদের উইক-এন্ড প্যাকেজ বন্ধ রেখেছে। দ্বীপরাষ্ট্রের পরিস্থিতি কেমন থাকে তার ওপর নির্ভর করে তবেই পুজোর সময় সে দেশে পর্যটন প্যাকেজ চালু করার কথা ভাবা হবে বলে জানাচ্ছে আইআরসিটিসি।

শ্রীলঙ্কায় প্রতি বছর ২৫ লাখেরও বেশি পর্যটক আসেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে। ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিলের তথ্য অনুযায়ী, দেশটির অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা খাতগুলোর মধ্যে অন্যতম পর্যটন খাত।

গবেষণা সংস্থা ক্যাপিটাল ইকোনমিকসের তথ্য অনুযায়ী, পর্যটন খাত শ্রীলঙ্কার তৃতীয় বৃহত্তম বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনকারী খাত। অতীতে শ্রীলঙ্কার নিজস্ব গ-গোলের কারণে পর্যটকরা সেখানে তেমন যেতেন না। তবে গত দুবছর পর্যটন বিকাশে মরিয়া চেষ্টা চালিয়ে সাফল্য পেয়েছিল শ্রীলঙ্কা।