প্রাণের নিরাপত্তা চাই

ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

প্রাণের নিরাপত্তা চাই

আবদুল্লাহ আল মেহেদী ৯:৪০ অপরাহ্ণ, মার্চ ০৫, ২০১৯

print
প্রাণের নিরাপত্তা চাই

২০১০ সালের ৩ জুন পুরান ঢাকার নিমতলীতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। তা থেকে আমরা শিক্ষা নিইনি। ১২০-এর অধিক তাজা প্রাণের মৃত্যুতে মানুষ সেদিন চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি। টিভি দেখেছে আর কেঁদেছে। পরের আরেকটি ঘটনা ঠাঁই করে নিয়েছিল বিদেশি মিডিয়ায়ও। ২০১৩ সালের এপ্রিলের শেষ সপ্তাহে সাভারে রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় ১ হাজার একশ অধিক মৃত্যু ও প্রায় আড়াই হাজার লোককে আহত অবস্থায় উদ্ধার করার সময়ও পুরো পৃথিবী কেঁদেছিল। সর্বশেষ কয়েকদিন আগে গত ২০ ফেব্রুয়ারি রাত ১০টার পর পুরান ঢাকার চকবাজারের চুড়িহাট্টায় আগুন লেগে ৭২ জন মানুষের মৃত্যু হলো। কী নির্মম সে মৃত্যু, তা কল্পনাতীত।

চুড়িহাট্টায় রাসায়নিক পদার্থ থেকে আগুন লেগে যে রোমহর্ষক অবস্থার জন্ম হয়, তার কাছে মানুষ ছিল বড়ই অসহায়। কিছুই করার ছিল না আক্ষেপ করা ছাড়া। চকবাজার থেকে রাসায়নিক পদার্থের গুদামগুলো সরিয়ে নেওয়া হবে টঙ্গী ও গাজীপুরে-এমন বক্তব্য শিল্প মন্ত্রণালয়ের। কিন্তু কতটা হবে, আদৌ হবে কি না, তা নিয়ে মানুষ সন্দিহান। সমস্যার সমাধানের জন্য গোটা পুরান ঢাকার নতুন নগর পরিকল্পনা করা দরকার। কাজটি অনেক আগেই শুরু করা দরকার ছিল, কিন্তু তা হয়নি। এবার চুড়িহাট্টার দুর্ঘটনা থেকে শিক্ষা পাওয়ার পরও নতুন পরিকল্পনা তৈরি করতে থেমে থাকা বা সময়ক্ষেপণের সুযোগ নেই।

এমন বড় দুর্ঘটনার পর প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে ভবিষ্যতে দুর্ঘটনার পুনরাবৃত্তি এড়াতে সচেষ্ট হতে হবে এখনই। আমরা আর অকালে প্রাণ দিতে চাই না। আমরা আমাদের প্রাণের নিরাপত্তা চাই।

আবদুল্লাহ আল মেহেদী
দক্ষিণখান, ঢাকা