কমছে না ডেঙ্গুর প্রকোপ

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

কমছে না ডেঙ্গুর প্রকোপ

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:০২ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২০, ২০১৯

print
কমছে না ডেঙ্গুর প্রকোপ

রাজধানীসহ সারা দেশে ডেঙ্গুর প্রকোপ কিছুটা কমলেও চাঁদপুর, ফরিদপুর, কুষ্টিয়া, বরগুনা, রাজবাড়ী, ফেনী, ও ঝিনাইদহে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ভর্তি হয়েছেন ৭০ জন। গত ২০ জুলাই থেকে এ পর্যন্ত এক হাজার ২৮৯ জন চিকিৎসা নিয়েছেন। সরকারি হিসেবে এ পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে।

গত এক মাসে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল থেকে ডেঙ্গু আক্রান্ত ৪১৪ জন চিকিৎসা নিয়েছেন। বর্তমানে ভর্তি রয়েছেন ৬০ জন। চাঁদপুর জেনারেল হাসপাতালে গত ১ জুলাই থেকে ২০ আগস্ট সকাল ৮টা পর্যন্ত ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন ৫৫১ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন রোগী ভর্তি হয়েছেন ১৬ জন। বরগুনা সদর হাসপাতালে ২৫ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন সাতজনসহ ভর্তি রয়েছেন ১৭ জন। এ নিয়ে রাজবাড়ী জেলায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪৮ জনে।

চাঁদপুর : হাসপাতালে ৫৫১ জন রোগী ভর্তি হওয়ার পর চিকিৎসাসেবা নিয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩৪৭ জন। উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্য হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে ১৬৪ জনকে। ভর্তি হওয়া রোগীদের মধ্যে ঢাকায় আক্রান্ত হয়ে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন ৩৫৪ জন।

ফরিদপুর : গত ২৪ ঘণ্টায় ফরিদপুরের বিভিন্ন হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে নতুন ভর্তি হয়েছেন ৭০ জন। বর্তমানে জেলার হাসপাতলগুলোতে মোট চিকিৎসা নিচ্ছেন ৩৫৭ জন। গত ২০ জুলাই থেকে এ পর্যন্ত এক হাজার ২৮৯ জন চিকিৎসা নিয়েছেন। সরকারি হিসেবে এ পর্যন্ত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে।

কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ায় ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ১৭ জন আক্রান্ত রোগী হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। গত এক মাসে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল থেকে ডেঙ্গু আক্রান্ত ৪১৪ জন চিকিৎসা নিয়েছেন। বর্তমানে কুষ্টিয়া হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৬০ জন।

সিভিল সার্জন ডা. রওশন আরা জানান, প্রতিদিনই ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হচ্ছে কুষ্টিয়ার হাসপাতালে। তবে তারা সবাই শঙ্কামুক্ত ও নিরাপদে আছেন।
এদিকে দৌলতপুরে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। গত সোমবার সকালে উপজেলার সীমান্ত সংলগ্ন বিলগাথুয়া গ্রামের বিল্লাল হোসেনের স্ত্রী চালন বেগম (৩৫) ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।

রাজবাড়ী : রাজবাড়ি সরকারি হাসপাতালেও প্রতিদিনই বাড়ছে ডেঙ্গু আক্রান্তের সংখ্যা। আক্রান্ত রোগীরা স্থানীয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও নিকটস্থ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ পর্যন্ত ২৪৮ জন ডেঙ্গু রোগী রাজবাড়ীতে শনাক্ত হয়েছে।

সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. দীপক কুমার জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন সাতজনসহ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে ১৭ জন। অনেক রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি চলে গেছে। ভর্তি রোগীদের সবাই আশকঙ্কামুক্ত রয়েছে। এ নিয়ে রাজবাড়ী জেলায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৪৮ জনে।

বরগুনা : বর্তমানে বরগুনা সদর হাসপাতালে ২৫ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। এছাড়া ১৬৮ জন ডেঙ্গু রোগী চিকিৎসাসেবা নিয়েছেন বরগুনা সদর হাসপাতালে।

ফেনী : ফেনী জেনারেল হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। চিকিৎসক ও নার্স সংকটের মধ্যে ডেঙ্গুসহ অন্য রোগীদের চিকিৎসাসহ সার্বিক পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসকরা। গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন ছয়জন। ভর্তি রয়েছেন ৬৬ জন। গত সোমবার পর্যন্ত ভর্তি হয়েছেন ৩৩৩ জন। এর মধ্যে ৪৭ জনকে অন্যত্র স্থানান্তর করা হয়েছে। সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন ২২০ জন।

ঝিনাইদহ : ঝিনাইদহের বিভিন্ন উপজেলাতে ডেঙ্গু রোগে আক্রান্ত হয়ে নারী-পুরুষসহ ১৮৮ জন শনাক্ত করা হয়েছে। তার মধ্যে বর্তমানে ২৬ জন ভর্তি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। গেল ২৪ ঘণ্টায় সাতজন আক্রান্ত হয়েছেন। এ পর্যন্ত ১৫৫ জনকে সদর হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

তবে চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, এ জেলায় ডেঙ্গু রোগের সংখ্যা কমতে শুরু করেছে। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই, চিকিৎসা নিলে এ রোগ নিরাময় সম্ভব।

সিভিল সার্জন ডা. সেলিনা বেগম জানান, ঝিনাইদহ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে এ পর্যন্ত ২৬ জন আক্রান্ত হয়ে সদর হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় সাতজন ভর্তি হয়েছেন। এ পর্যন্ত জেলায় ১৮৮ জন আক্রান্ত ডেঙ্গু রোগীর মধ্যে ১৫৫ জন সুস্থ হয়ে বাড়িতে ফিরে গেছেন। তবে আগের চাইতে বর্তমানে ডেঙ্গু রোগী কমতে শুরু করেছে।