বিচ্ছিন্ন ঘটনায় শেষ ৬০ পৌর ভোট

ঢাকা, মঙ্গলবার, ৯ মার্চ ২০২১ | ২৪ ফাল্গুন ১৪২৭

বিচ্ছিন্ন ঘটনায় শেষ ৬০ পৌর ভোট

ডেস্ক রিপোর্ট ৯:২৮ পূর্বাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০২১

print
বিচ্ছিন্ন ঘটনায় শেষ ৬০ পৌর ভোট

বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে দ্বিতীয় ধাপের ৬০টি পৌরসভার ভোটগ্রহণ। গতকাল শনিবার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে ভোটগ্রহণ শেষ হয় বিকাল ৪টায়। ভোটগ্রহণের শুরুতে অধিকাংশ কেন্দ্রে ভোটার উপস্থিতি কম থাকলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে ভোটারের লাইন। তীব্র শীত উপেক্ষা করে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দেন ভোটাররা। এদিকে বাগেরহাটের মোংলা পোর্ট পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থীসহ মোট ১২ জন কাউন্সিলর প্রার্থী অনিয়ম ও ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। ভোট বর্জনকারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে জামায়াত সমর্থিত দুজনসহ মোট নয়জন রয়েছেন। এ ছাড়া তিনজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীও ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। রাজশাহীর বাগমারার ভবানীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাক ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকরা তাকে ভোট দিতে দেয়নি- এ অভিযোগ করে তিনি ভোট বর্জন করেন।

মেহেরপুরের গাংনী পৌরসভায় অনিয়মের অভিযোগ এনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও বহিষ্কৃত যুবলীগ নেতা, বর্তমান মেয়র আশরাফুল ইসলাম নির্বাচন বর্জন করেন। মৌলভীবাজারের কুলাউড়া পৌরসভা নির্বাচনে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রুমেল আহমদের নেতৃত্বে ভোটকেন্দ্র দখল করায় দুপক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এতে ভোটগ্রহণ বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ।

ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনে দুই মেয়র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় দুজন আহত হন। এ ছাড়া ঝাউদিয়া ভোটকেন্দ্র এলাকায় স্বতন্ত্র (আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী) মেয়র প্রার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।

দেশের সবচেয়ে আলোচিত নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ভাই আবদুল কাদের মির্জা। এর আগে নির্বাচন নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে উত্তেজনাপূর্ণ মন্তব্য করেন তিনি। এছাড়া ফেনীর দাগনভূঞা পৌরসভা নির্বাচনে গণিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে পরপর দুটি ককটেল বিস্ফোরণ হয়। এ সময় কেন্দ্রে দায়িত্বে থাকা আরিফুল নামের এক আনসার সদস্য আহত হন। পৌরসভাগুলোর মধ্যে ২৯টিতে ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এবং ৩১টিতে ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হয়।

প্রথমবারের মতো ইভিএমে ভোট দিতে গিয়ে বিপাকে পড়েন অনেক ভোটার। কুমিল্লার চান্দিনা পৌরসভা নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রদানে ভোটারদের ভোগান্তির মুখে পড়তে হয়। প্রতিটি ভোটের জন্য গড়ে ৫ মিনিট থেকে ২০ মিনিট সময় ব্যয় হয়। মাঠ পর্যায়ে ইভিএম নিয়ে ব্যাপক প্রচারণা না থাকায় ভোটগ্রহণে দায়িত্বরতদের অনেকটা ত্যক্ত-বিরক্তও হতে হয় এ সময়। দ্বিতীয় ধাপের পৌর নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্নের জন্য কেন্দ্রগুলোতে পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েন ছিল। তাদের সহায়তার জন্য ছিলেন আনসার সদস্যরা।

দ্বিতীয় ধাপে ৬১টি পৌরসভার তফসিল ঘোষণা করলেও নীলফামারীর সৈয়দপুরের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। মেয়র পদের স্বতন্ত্র প্রার্থী (নারিকেল গাছ প্রতীক) মো. আমজাদ হোসেন সরকারের মৃত্যুতে ওই পৌরসভার ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। দেশের ৩২৯টি পৌরসভার মধ্যে প্রথম ধাপে ২৪টি পৌরসভায় ইভিএমে ভোটগ্রহণ হয় ২৮ ডিসেম্বর। তৃতীয় ধাপে ৬৪টি পৌরসভায় ৩০ জানুয়ারি এবং চতুর্থ ধাপে ৫৬টি পৌরসভায় ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

সকালে সুষ্ঠু ভোট, দুপুরে কেন্দ্র দখল
সকাল থেকে প্রচণ্ড কুয়াশা। কুয়াশা উপেক্ষা করে স্বতঃস্ফূর্তভাবে মানুষ দলে দলে ভোট দিতে যায় কেন্দ্রগুলোতে। মানুষের মধ্যে ছিল বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনা। গতকাল শনিবার সকালে এমনই দৃশ্য চোখে পড়ে কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে। এভাবে চলতে থাকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। সকাল সোয়া ১০টার দিকে আজিমউদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের সামনে গিয়ে দেখা যায় মানুষের জটলা। নৌকার ব্যাচধারী যুবকরা কেন্দ্রের ফটক দখল করে তাদের প্রার্থীর পক্ষে দিতে থাকে স্লোগান। এর মধ্যে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়।

বেলা সোয়া ১১টার দিকে ঘাটাইল আ. ওয়াহেদ জনতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ভোটারদের দীর্ঘ সারি। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে ঘাটাইল সাবুতাজ মামুদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটের দুটি সারিতে শত শত মানুষ ভোট দেয়ার অপেক্ষায়। ভেতরে ভোট গ্রহণ চলছে। তবে গতি ছিল শ্লথ। দুপুর ১২টায় গুরুদয়াল সরকারি কলেজ কেন্দ্রে গিয়েও মানুষের স্বতঃস্ফূর্ততা চোখে পড়ে। পৌরবাসী আশা করেছিল সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। এর মধ্যেই শক্তির মহড়া শুরু করে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। খবর আসে ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজ কেন্দ্র জোর করে দখলে নিয়ে গেছে আওয়ামী লীগের লোকজন।

অন্য সংবাদকর্মীদের সঙ্গে এ প্রতিবেদক দুপুর সোয়া ১টার দিকে ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজ কেন্দ্রে গিয়ে দেখেন ফটকের বাইরে শত শত মানুষের ভিড়। ভিতরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও ম্যাজিস্ট্রেটের গাড়ি। কলেজের দুটি কেন্দ্রের একটিতে ভোটগ্রহণ চলছে। আরেকটিতে ভোটগ্রহণ বন্ধ রয়েছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দুপুর ১২টার দিকে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এসে কলেজের পূর্ব তিনতলা ভবনের কেন্দ্রটি দখল করে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেয়। পরে ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের কাছ থেকে ভোটের সিল, সব ব্যালট বই ও ভোট দেওয়া ব্যালটের বাকি অংশ সব কিছু ছিনিয়ে নেয়। এ সময় বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রতিরোধে এগিয়ে এলে তাদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের আক্রমণে এ সময় জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মাসুদ সুমন ও জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি তারেকুজ্জামান পার্নেলের ছোটভাই রাজিবুজ্জামান হিমেলসহ বিএনপির বেশ কয়েকজন কর্মী আহত হন। পরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকজন এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ভোট দখলের বিষয়টি কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তা রিটার্নিং কর্মকর্তাকে জানালে কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয় পরে দুপুর পৌনে ৩টার দিকে কেন্দ্রটি স্থায়ীভাবে স্থগিত ঘোষণা করা হয়।

একই সময়ে ঘাটাইল আ. ওয়াহেদ জনতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রাখুয়াইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরকারি আদর্শ শিশু বিদ্যালয় ও কুমুদিনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট লুটের ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি করেন বিএনপি নেতাকর্মীরা। পরে দুপুর আড়াইটার দিকে সরকারি আদর্শ শিশু বিদ্যালয় কেন্দ্রে ও দুপুর সাড়ে ৩টার দিকে কুমুদিনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে এর কিছুটা সত্যতাও পাওয়া যায়।

আদর্শ শিশু বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় বুথের গোপন কক্ষে ছাত্রলীগ যুবলীগের কর্মী ৭-৮জন একসঙ্গে ঢুকে নৌকায় সিল মারছেন। কুমুদিনী বিদ্যালয়ে নৌকার ব্যাচধারী কয়েক যুবককে বয়স্ক ভোটারদের সহযোগিতা করার নাম করে তাদের হাত থেকে ব্যালট নিয়ে নৌকায় সিল মারতে দেখা গেছে।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও কিশোরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ আশ্রাফুল আলম বিকাল ৫টায় জানান, বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া কিশোরগঞ্জ পৌরসভায় সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। অনিয়মের কারণে ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজের পূর্ব তিনতলা ভবনের কেন্দ্রটি স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। এ কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৮৫২ জন। পৌরসভায় মোট ভোটারের সংখ্যা ৭১ হাজার ৮৪ জন।

আশ্রাফুল আলম আরও জানান, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটর নেতৃত্বে তিন প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাব পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অন্যান্য সদস্যরা মাঠে কাজ করেছে।

উল্লেখ্য, কিশোরগঞ্জ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সদ্য সাবেক মেয়র মো. পারভেজ মিয়া ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন দলটির জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক হাজী মো. ইসরাঈল।

নির্বাচিত হয়েই খুন বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর
সিরাজগঞ্জে প্রতিপক্ষের সমর্থকদের হামলায় বিএনপি সমর্থিত বিজয়ী কাউন্সিলর খুন হয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল শনিবার রাত ৮টার দিকে শহরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তারিকুল ইসলাম (৪৫) নামের সদ্য বিজয়ী ওই কাউন্সিলরের মৃত্যু হয়। তিনি শহরের নতুন ভাঙাবাড়ি মহল্লার আব্দুল কুদ্দুসের ছেলে। পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর পদে ডালিম প্রতীকে তিনি ৮৫ ভোটে জয়লাভ করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বাহাউদ্দিন ফারুকী।