সড়কে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল

ঢাকা, সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১ | ৫ মাঘ ১৪২৭

সড়কে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল

নিজস্ব প্রতিবেদক ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ০৩, ২০২০

print
সড়কে বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল

সড়কে দিনের পর দিন দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। প্রতিদিনই ঝরছে প্রাণ। প্রতিটি মৃত্যুই কারও সারা জীবনের কান্নায় পরিণত হচ্ছে। কোনো কিছুতেই থামছে না দুর্ঘটনা নামের এই প্রকাশ্য হত্যাকা-। বিদায়ী নভেম্বর মাসেও দেশের সড়ক-মহাসড়কে ৪৪৩টি দুর্ঘটনায় ৪৮৬ জন নিহত ও ৭৪১ জন আহত হয়েছেন। যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলছে ওভারটেকিং এবং বেপরোয়া গতির ফলে এবং সড়ক নিরাপত্তায় দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাগুলোর স্বেচ্ছাচারিতা, অনিয়ম, দুর্নীতি ক্রমাগতভাবে বৃদ্ধি ও জবাবদিহিতার অভাবে সড়ক দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি বাড়ছে।

গতকাল বুধবার বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির সড়ক দুর্ঘটনা মনিটরিং সেলের পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে দেখা যায়, বিদায়ী নভেম্বর মাসে সড়ক, রেল ও নৌ-পথে সম্মিলিতভাবে ৪৪৯টি দুর্ঘটনায় ৫৩৯ জন নিহত ও ৭৭৪ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে সড়ক-মহাসড়কে ৪৪৩টি দুর্ঘটনায় ৪৮৬ জন নিহত ও ৭৪১ জন আহত হয়েছেন।

একই সময় রেলপথে ৫০টি দুর্ঘটনায় ৫২ জন নিহত ও ১৩ জন আহত হয়েছেন। নৌ-পথে ৬টি দুর্ঘটনায় ৩ জন নিহত ও ২০ জন আহত এবং ৪ জন নিখোঁজের সংবাদ পাওয়া গেছে। দেশের জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিক, অনলাইন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে সংগঠনটি এই প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

যাত্রী কল্যাণ সমিতি বলছে, সরকারের আন্তরিকতা ও বিগত নির্বাচনে রাজনৈতিক অঙ্গীকার থাকলেও বর্তমান সরকারের দুটি বাজেটে তার কোনো প্রতিফলন ঘটেনি। উন্নত বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ট্রাফিক ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, লাইসেন্স ও গাড়ির ফিটনেস পদ্ধতি ঢেলে সাজানো ব্যতিরেকে সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। 

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুর্ঘটনায় যেভাবে মানুষ মরছে তা উদ্বেগজনক। দ্রুত দুর্ঘটনা নিরসনে ব্যবস্থা নিতে হবে। বড় দুর্ঘটনাগুলোর ধরন বিশ্লেষণ করে তারা বলছেন, দুর্ঘটনার অনেক কারণ রয়েছে, তবে ফিটনেসবিহীন গাড়ি এবং অবৈধ-অদক্ষ ও অপ্রশিক্ষিত চালকরাই মূলত দুর্ঘটনার জন্য দায়ী। এর পাশাপাশি চালকদের সড়ক পরিবহন আইন অমান্য করা, বিপুলসংখ্যক চালকের মাদকাসক্তি এবং সড়ক ব্যবহারকারী, পথচারীদের অসচেতনতাও প্রতিদিনের দুর্ঘটনার জন্য দায়ী।

নভেম্বরে সড়কে দুর্ঘটনায় আক্রান্তদের মধ্যে ২০৩ চালক, ১৫৫ পথচারী, ৯৪ নারী, ৪৯ শিশু, ৪২ পরিবহন শ্রমিক, ৩৩ শিক্ষার্থী, ১৬ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, ১০ জন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মধ্যে ১ জন আনসার ও ৯ পুলিশ সদস্য, ৮ শিক্ষক, ৫ বিচারক, ৩ চিকিৎসক এবং ৩ জন সাংবাদিকের পরিচয় সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়েছে।

এর মধ্যে নিহত হয়েছেন ১৫৭ চালক, ১৩৯ পথচারী, ৭২ নারী, ৩২ শিশু, ২৫ পরিবহন শ্রমিক, ২৫ ছাত্র-ছাত্রী, ১৪ রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, ৮ শিক্ষক, ৩ চিকিৎসক, ৫ পুলিশ ও ১ জন আনসার বাহিনীর সদস্য।

এ মাসে একদিনে সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন ১৯ নভেম্বর, এইদিনে ২০টি সড়ক দুর্ঘটনায় ২৮ জন নিহত ২৩ জন আহত হন।

একদিনে সবচেয়ে কম সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয় ২৩ নভেম্বর, এইদিনে ৯টি সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ জন নিহত ১৪ জন আহত হন।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ