বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা অক্টোবর-ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেরামত করার তাগিদ

ঢাকা, সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৬ আশ্বিন ১৪২৭

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা অক্টোবর-ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেরামত করার তাগিদ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৬:১২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০

print
বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা অক্টোবর-ফেব্রুয়ারির মধ্যে মেরামত করার তাগিদ

সাম্প্রতিক বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তাগুলোর মেরামত কাজ অক্টোবর হতে ফেব্রুয়ারির মধ্যে শেষ করতে তাগিদ দিয়েছে সংসদীয় কমিটি। একাদশ জাতীয় সংসদের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি’র দশম বৈঠকে এ বিষয়ে তাগিদ দেয়া হয়।

বৈঠকের শুরুতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালো রাত্রিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের সদস্যসহ মুক্তিযুদ্ধে নিহত সকল শহীদ এবং একাদশ জাতীয় সংসদের যেসকল সংসদ-সদস্য মৃত্যুবরণ করেছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী, স্পীকার, কমিটির সকল সদস্য এবং দেশ পরিচালনায় যারা কাজ করছেন তাদের জন্যও দোয়া করা হয়।

কমিটি দুর্যোগকালীন সময়ে উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনায় সহায়তাকারী স্বেচ্ছাসেবকদের জন্য কাজের উপর ভিত্তি করে সম্মানীভাতা প্রদান করার সুপারিশ করে।

বৈঠকে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসূচি বাস্তবায়ন প্রকল্পে (৪০ দিনের কর্মসূচি) ২০০ টাকার পরিবর্তে একজন শ্রমিকের দৈনিক মজুরি নূন্যতম ৫০০ টাকা করার সুপারিশ করা হয়।

নদী ভাঙ্গনপ্রবণ এলাকায় সরকারী স্থাপনা নির্মানের ক্ষেত্রে Steel Structure স্থাপনা নির্মানের সুপরিশ করা হয় বৈঠকে।

এছাড়াও বৈঠকে কমিটি অধিদপ্তর ও মাঠ পর্যায়ে কর্মরত কর্মকর্তা/কর্মচারীদের পারস্পরিক বদলী সংক্রান্ত বিষয়ে একটি খসড়া নীতিমালা তৈরি করে তা পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করে।

কমিটি বর্তমান দুর্যোগ মোকাবেলায় এই মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ বাড়ানোর জন্য ‍সুপারিশ করে।

এছাড়াও বৈঠকে মাদককে সামাজিক বিপর্যয় বিবেচনা করে তা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রমের আওতায় আনার সুপারিশ করা হয়।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ১ম বৈঠক হতে ১০ বৈঠক পর্যন্ত একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম রিপোর্ট পরবর্তী সংসদ অধিবেশনে উপস্থাপনের সুপারিশ করে।

কমিটির সভাপতি এ বি তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে বুধবার জাতীয় সংসদ ভবনে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কমিটির সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান, মো. আফতাব উদ্দিন সরকার, মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, জুয়েল আরেং, মজিবুর রহমান চৌধুরী ও কাজী কানিজ সুলতানা অংশগ্রহণ করেন। এছাড়াও বৈঠকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয়ের সচিব ও মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকতা এবং জাতীয় সংসদের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থতি ছিলেন।