বিশ্বে করোনা আক্রান্ত ৫০ লাখ ছাড়াল

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জুলাই ২০২০ | ২৬ আষাঢ় ১৪২৭

বিশ্বে করোনা আক্রান্ত ৫০ লাখ ছাড়াল

ডেস্ক রিপোর্ট ১১:১৯ পূর্বাহ্ণ, মে ২২, ২০২০

print
বিশ্বে করোনা আক্রান্ত ৫০ লাখ ছাড়াল

বিশ্বজুড়ে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ছাড়াল। এ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫০ লাখ ৮৫ হাজার ৫০৪ জন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন তিন লাখ ২৯ হাজার ৭৩১ জন। অন্যদিকে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়েছেন ২০ লাখ ২১ হাজার ৬৬৬ জন। পরিসংখ্যানভিত্তিক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের সর্বশেষ আপডেটে এ তথ্য জানানো হয়েছে। 

বর্তমানে ভাইরাসের উপস্থিতি থাকা ২৭ লাখ ৩৪ হাজার ১০৭ জনের মধ্যে ২৬ লাখ ৮৮ হাজার ৩০৫ জনের সংক্রমণ মৃদু এবং ৪৫ লাখ ৮০২ জনের অবস্থা গুরুতর।

ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্রে। এখন পর্যন্ত শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৯৯১ জন এবং মৃতের সংখ্যা ৯৪ হাজার ৯৯৪ জন। অন্যদিকে রাশিয়ায় শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা ৩ লাখ ৮ হাজার ৭০৫ জন এবং মৃতের সংখ্যা ২ হাজার ৯৭২ জন। এছাড়া ব্রাজিল, স্পেন, যুক্তরাজ্য, ইতালি, ফ্রান্স, জার্মানি, ইরান, ভারত ও পেরুতে শনাক্তকৃত রোগীর সংখ্যা এক লাখের বেশি।

এদিকে বাংলাদেশে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে এক হাজার ৭৭৩ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এটিই এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ শনাক্ত। বুধবার রেকর্ড এক হাজার ৬১৭ জন করোনা রোগী শনাক্ত হন। বৃহস্পতিবার সেই রেকর্ডও ভেঙে গেল। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা শনাক্ত হলেন ২৮ হাজার ৫১১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ২২ জন। এ পর্যন্ত একদিনে এটিই সর্বোচ্চ মৃতের পৃষ্ঠা ১১ কলাম ৬
বিশ্বে করোনা আক্রান্ত


সংখ্যা। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ৪০৮ জনে। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৩৯৫ জন এবং এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন পাঁচ হাজার ৬০২ জন।

বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটায় কোভিড-১৯ সম্পর্কিত সার্বিক পরিস্থিতি জানাতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনের আয়োজন করা হয়। সেখানে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা। তিনি জানান, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ১৯ জন পুরুষ এবং তিন জন নারী।

এরমধ্যে ঢাকা বিভাগের ১০ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের আট জন, সিলেট বিভাগের তিন জন ও ময়মনসিংহ বিভাগের একজন। এখন পর্যন্ত ভাইরাসটি শনাক্ত হয়েছে ২৬ হাজার ৭৩৮ জনের শরীরে। এদের মধ্যে মারা গেছেন ৩৮৬ জন এবং সুস্থ হয়েছেন ৫ হাজার ২০৭ জন।