ক্রেতায় জমজমাট বইমেলা

ঢাকা, শুক্রবার, ১০ এপ্রিল ২০২০ | ২৭ চৈত্র ১৪২৬

ক্রেতায় জমজমাট বইমেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:৩৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২০

print
ক্রেতায় জমজমাট বইমেলা

লেখক-পাঠক, দর্শনার্থী ও বইপ্রেমীদের ব্যাপক উপস্থিতিতে জমজমাট হয়ে উঠেছে বইমেলা প্রাঙ্গণ।

রোববার (২৩ ফেব্রুয়ারি) অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২২তম দিনে লোক সমাগম তুলনামূলক কম হলেও ক্রেতা ছিল বেশি। অর্থাৎ বইমেলার এই শেষ ভাগে যারাই আসছেন তাদের বেশিরভাগই বই কিনছেন। বইমেলা এখন বইক্রেতার মেলায় পরিণত হয়েছে। বইমেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ঘুরে দেখা যায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের স্টলগুলোতে ক্রেতাদের ভিড়। একই দৃশ্য দেখা যায় তারা বাংলা একাডেমির অংশও। তবে শিশু চত্বরে উপস্থিতি ছিল কম। ‘লেখক বলছি’ এলাকাও ছিল অনেকটাই ফাঁকা।

বেশ কয়েকটি প্রকাশনীর বিক্রয়কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এখন মেলায় যারা আসছেন তারা অধিকাংশই ক্রেতা। লোকজন কম আসছেন কিন্তু নেড়ে-চেড়ে দেখেশুনে বই কিনছেন।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি থেকে টানা কয়েকদিন মেলায় প্রচুর লোক সমাগম ঘটে। সে তুলনায় গতকাল পাঠক-দর্শনার্থীদের উপস্থিতি ছিল কম। তবে সামনের বাকি ক’দিন বই ভালো বিক্রি হবে বলে আশা প্রকাশ করছেন। এদিকে অমর একুশে গ্রন্থমেলার ২২ দিনে নতুন বই এসেছে মোট তিন হাজার ৭৮৫টি। এর মধ্যে শুধু রোববারই এসেছে ১৫৪টি।

বাংলা একাডেমির তথ্য অনুযায়ী, গতকাল রোববার পর্যন্ত আসা তিন হাজার ৭৮৫টি নতুন বইয়ের মধ্যে গল্পগ্রন্থ ৪৯৪টি, উপন্যাস ৬০০টি, প্রবন্ধগ্রন্থ ২০৪টি, কাব্যগ্রন্থ ১১৯৮টি, গবেষণাগ্রন্থ ৮০টি, ছড়ার বই ৭২টি, শিশুতোষ গ্রন্থ ১৬২টি, জীবনীগ্রন্থ ১১২টি, রচনাবলি ৮টি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গ্রন্থ ১২০টি, নাটক ২৩টি, বিজ্ঞান বিষয়ক গ্রন্থ ৬৮টি, ভ্রমণকাহিনী ৭০টি, ইতিহাসগ্রন্থ ৭৩টি, রাজনীতি বিষয়ক গ্রন্থ ১২টি, চিকিৎসা-স্বাস্থ্য সংক্রান্ত ২৪টি, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে লেখা গ্রন্থ ১০১টি, রম্য-ধাঁধা ৩১টি, ধর্মবিষয়ক গ্রন্থ ১৪টি, অনুবাদ সাহিত্য ৪২টি, অভিধান ১২টি, সায়েন্স ফিকশন ৫৩টি এবং অন্যান্য বই এসেছে ২১২টি।