চালু হচ্ছে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার’

ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

চালু হচ্ছে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার’

নিজস্ব প্রতিবেদক ৯:৫১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৫, ২০১৯

print
চালু হচ্ছে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার’

এবার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে বিশেষ অবদানের জন্য ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার’ দেবে সরকার। এজন্য এর খসড়া করেছে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ। জাতীয় পর্যায়ে সরকারি প্রতিষ্ঠানের জন্য সাধারণ ও কারিগরি ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি, শ্রেষ্ঠ দল ও শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান-এই তিন শ্রেণিতে একটি করে মোট ছয়টি পুরস্কার দেওয়া হবে। একইভাবে বেসরকারি পর্যায়েও ছয়টি পুরস্কার দেওয়া হবে।

জেলা পর্যায়েও সাধারণ ও কারিগরি ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ ব্যক্তি, শ্রেষ্ঠ দল ও শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠান-এ তিন শ্রেণিতে একটি করে মোট ছয়টি পুরস্কার দেওয়া হবে। বেসরকারি ক্ষেত্রেও ছয়টি পুরস্কার দেওয়া হবে।

এ বিষয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম গণমাধ্যমকে জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার দিতে আমরা একটি নীতিমালার খসড়া করেছি। খসড়াটি চূড়ান্ত হলে আগামী বছর ডিজিটাল দিবস থেকে পুরস্কারটি দিতে পারব। সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে বিশেষ অবদানের জন্য বিভিন্ন ব্যক্তি, দল, প্রতিষ্ঠানকে অনুপ্রেরণা, উৎসাহ-উদ্দীপনা যোগানো এবং স্বীকৃতি দিতে এ পুরস্কার চালু করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, রূপকল্প-২০২১, তথা ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে অনেক উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। সরকারি দফতরের কাজের দ্রুততা, সচ্ছতা ও জবাবদিহিতা আনা এবং জনগণের দোরগোড়ায় সরকারি সেবা সহজে পৌঁছানো নিশ্চিত করতে ই-গভর্নেন্স তথা ডিজিটাল গভর্নমেন্ট ব্যবস্থা প্রবর্তন আবশ্যক হয়ে পড়েছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশের ধারণা স্মরণীয় করে রাখতে ২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের পরিপত্রের মাধ্যমে ১২ ডিসেম্বরকে জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস হিসেবে উদযাপন করার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। পরে ২০১৮ সালের ২৭ নভেম্বর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের পত্রের মাধ্যমে সরকার ১২ ডিসেম্বরকে ‘জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস’ এর পরিবর্তে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস’ হিসেবে উদযাপনের নেওয়া হয়। দিবস উদযাপনের অংশ হিসেবে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরস্কার’ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।