ভোলায় আত্মরক্ষার্থেই পুলিশ গুলি চালায়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ভোলায় আত্মরক্ষার্থেই পুলিশ গুলি চালায়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক ৬:৩১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০১৯

print
ভোলায় আত্মরক্ষার্থেই পুলিশ গুলি চালায়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

ভোলার বোরহানউদ্দিনে জনতার বিক্ষোভ সমাবেশকে কেন্দ্র করে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে চারজন নিহতের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে গুলি চালাতে বাধ্য হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ কিংবা অন্য কারও দায়িত্বে অবহেলা আছে কি না সে বিষয়টিও তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্তে কারও অবহেলা প্রমাণিত হলে আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সোমবার সচিবালয়ে নিজ দফতরে জেএসডি সভাপতি আ স ম রবের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমি অবশ্য ওসি এবং এসপির সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলেছে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক যুবকের হ্যাক করা ফেসবুক আইডি থেকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ‘ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট’ দেয়াকে কেন্দ্র তারা (তৌহিদি জনতা) সমাবেশ করে। একটা পর্যায়ে সমাবেশ শেষ তারা চলে গিয়েছিলেন।

এরপর সমাবেশের ২০০ থেকে ৩০০ লোক এসে পুলিশ এবং ইউএনও যেখানে ছিলেন সে জায়গাটি এসে মারমুখি আচরণ শুরু করেন। একই সঙ্গে দরজা ভাঙা শুরু করেন। এই ঘটনাটার পর পুলিশ আত্মরক্ষার জন্য ওপেন গুলি করে। সেই গুলিতে একটা দুঃখজনক ঘটনা ঘটে। চারজন নিহত এবং বেশ কয়েকজন আহতসহ একজন পুলিশও আহত হন। এ জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি।

তিনি বলেন, ওই এলাকার সংসদ সদস্য তাৎক্ষণিক ওখানে যান। আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা এবং যারা মৃত্যুবরণ করেন তাদের পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতা করেন। এ বিষয়ে সরকার আরও ব্যবস্থা নিচ্ছে। যাতে করে তারা আর্থিক সহযোগিতা পায়।

তিনি আরও বলেন, তারা (তৌহিদি জনতা) যে সব দাবি করছে তার ভিত্তিতে এক্ষেত্রে কেউ (ওসি এবং এসপি) যদি কর্তব্যে অবহেলা করে থাকে অবশ্যই তার বিচার হবে। তাকে সরিয়ে দেবো, তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।’

পুলিশের সঙ্গে রোববার ‘তৌহিদি জনতা’র সংঘর্ষে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা সদর রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক যুবকের হ্যাক করা ফেসবুক আইডি থেকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে ‘ধর্ম নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট’ দেয়া কেন্দ্র করে দিনভর এ সংঘর্ষ হয়। এতে অন্তত দুই ছাত্রসহ চারজন নিহত এবং ৩০ পুলিশ সদস্যসহ শতাধিক লোক আহত হয়েছেন।

উল্লেখ্য, রোববার সকাল ১০টায় বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে সমাবেশ শেষে শুরু হওয়া এ সংঘর্ষে গুলি, টিয়ারশেল ও ইটপাটকেল নিক্ষেপ করা হয়।

সংঘর্ষে আহত ৪৫ জনকে ভোলা সদর ও ৩০ জনকে বরিশাল শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং বাকিদের বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আহতদের বেশিরভাগই গুলিবিদ্ধ।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চার প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। বিজিবি, পুলিশ ও র্যাবের টহল জোরদার করার পর বিকেলেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- বোরহানউদ্দিন উপজেলার মহিউদ্দিন পাটওয়ারীর মাদরাসাছাত্র মাহবুব (১৪), উপজেলার কাচিয়া ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের দেলোয়ার হোসেনের কলেজপড়ুয়া ছেলে শাহিন (২৩), বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মাহফুজ (৪৫) এবং মনপুরা হাজিরহাট এলাকার বাসিন্দা মিজান (৪০)।