প্রতি ৪০ সেকেন্ডে ১ জনের আত্মহত্যা

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ৩ কার্তিক ১৪২৬

প্রতি ৪০ সেকেন্ডে ১ জনের আত্মহত্যা

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১০, ২০১৯

print
প্রতি ৪০ সেকেন্ডে ১ জনের আত্মহত্যা

বিশ্বে প্রতি ৪০ সেকেন্ডে একজন আত্মহত্যা করেন। সেই হিসাবে বছরে আত্মহত্যা করেন আট লাখ মানুষ। এ তথ্য জানিয়েছে জাতিসংঘের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা- হু। আজ বৃহস্পতিবার বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ‘মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়ন ও আত্মহত্যা প্রতিরোধ’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এবার দিবসটি পালন করবে বিশ্ববাসী।

সর্বশেষ পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, সবচেয়ে বেশি আত্মহত্যা ঘটে ২০ থেকে ২৫ বছর বয়সীদের জীবনে। হাজারে ৮২ জন আত্মহননের পথ বেছে নেন প্রতি বছর। এর পরেই রয়েছে ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সীরা। তাদের আত্মহত্যার হার হাজারে ৭৮-এর মধ্যে। উন্নত দেশগুলোর চেয়ে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোতে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি।

অন্যান্য দেশের মতো এবারও নানা আয়োজন হাতে নিয়েছে বাংলাদেশ। দিবসটি উপলক্ষে দেশব্যাপী সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হবে। এর মধ্যে রয়েছে র‌্যালি, সেমিনার, আলোচনা সভাসহ নানা আয়োজন। এছাড়া পৃথক বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আগামী প্রজন্মকে মানসিকভাবে সুস্থ ও সুন্দরভাবে গড়ে তুলে একটি স্বাস্থ্যবান জাতি গঠনে সবার সম্মিলিত প্রয়াস অব্যাহত রাখার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরিসংখ্যান অনুযায়ী প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে আত্মহত্যা করে প্রায় আট লাখ মানুষ। আত্মহত্যাজনিত মৃত্যুর অধিকাংশই প্রতিরোধযোগ্য। অধিকাংশ ব্যক্তিই আত্মহত্যার সময় কোনো না কোনো মানসিক রোগে আক্রান্ত থাকেন। সাধারণত সেটা গুরুত্ব দেওয়া হয় না বা মানসিক রোগ নিশ্চিত হলেও যথাযথ চিকিৎসা করা হয় না বলেই আত্মহত্যা বেড়ে যাচ্ছে। মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়নের মাধ্যমে আত্মহত্যার এ হার কমিয়ে আনা সম্ভব। তাই এ বছর বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবসের প্রতিপাদ্য ‘মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়ন ও আত্মহত্যা প্রতিরোধ’ এ প্রেক্ষাপটে যথার্থ হয়েছে বলে রাষ্ট্রপতি উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, মানসিক রোগ প্রতিরোধে মনের যত্ন নেওয়া আবশ্যক। মানসিক রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা অন্য সাধারণ রোগীর চেয়ে ভিন্ন ধারার এবং চিকিৎসার পাশাপাশি পারিবারিক ও সামাজিক সমর্থনও এক্ষেত্রে অত্যন্ত জরুরি। বিশেষ করে মাদকাসক্তি, পারিপার্শ্বিক পরিবেশ, নগরায়ণসহ পারিবারিক ও সামাজিক নানা অস্থিরতা মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বাণীতে বলেন, বর্তমান সরকার স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে এবং আপামর জনগোষ্ঠীর মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার মানসিক স্বাস্থ্যসেবাসহ সব ধরনের স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে এবং আপামর জনগোষ্ঠীর মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে।

১৯৯২ সাল থেকে প্রতি বছর ১০ অক্টোবর বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালন করা শুরু হয়। পৃথিবীর সবার মানসিক স্বাস্থ্য শিক্ষা, সচেতনতার দিন হিসেবে এটিকে প্রধান্য দিয়ে দিবসটি পালন করা হয়। কিছু দেশে একে মানসিক রোগ সচেতনতা সপ্তাহের অংশ হিসেবে পালন করা হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আত্মহত্যার হার কমিয়ে আনার জন্য এবারও সচেতনতামূলক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি ও আত্মহত্যা কমিয়ে আনতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে। সংস্থাটি বলছে, এখনই সময় ‘৪০ সেকেন্ড কর্মকাণ্ড’ অর্থাৎ আত্মহত্যার ৪০ সেকেন্ডের সময়কে শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনার।