পাঁচ দিনের ডিসি সম্মেলন শুরু ১৪ জুলাই

ঢাকা, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯ | ২ শ্রাবণ ১৪২৬

পাঁচ দিনের ডিসি সম্মেলন শুরু ১৪ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:৩২ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০১৯

print
পাঁচ দিনের ডিসি সম্মেলন শুরু ১৪ জুলাই

সমাজের সর্বস্তরে সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আগামী ১৪ জুলাই (রোববার) শুরু হচ্ছে ৫ দিনব্যাপী জেলা প্রশাসক (ডিসি) সম্মেলন। চলবে ১৮ জুলাই পর্যন্ত। এর আগে ডিসি সম্মেলন তিন দিনব্যাপী হলেও এবার হচ্ছে পাঁচ দিন। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নেওয়া সিদ্ধান্ত ও কার্যসূচি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুমোদনের জন্য পাঠানোর পর গত বুধবার এ সম্মেলনের অনুমোদন দেওয়া হয়। রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও এই ডিসি সম্মেলনে নতুন করে যুক্ত হচ্ছেন প্রধান বিচারপতি ও জাতীয় সংসদের স্পিকারও। আগামী রোববার সকাল ১০টায় রাজধানীর তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের শাপলা হলে এই সম্মেলন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জানা যায়, টানা তৃতীয় মেয়াদে নির্বাচিত সরকারের প্রথম ডিসি সম্মেলনে জেলা প্রশাসকদের কাছে প্রশাসনের সর্বস্তরে সুশাসন প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি চাইবে সরকার। একই সঙ্গে সরকারের উন্নয়ন কর্মকা- বাস্তবায়নে গতিশীলতা বাড়ানোর ওপরও জোর দেওয়া হবে। তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের নীতি-দর্শনের বাস্তবায়ন ও তা জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়ার বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হবে ডিসিদের।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রতি বছরের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে সম্মেলন উদ্বোধনের পর মুক্ত আলোচনায় মাঠ প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে শুনবেন ও নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী। এ ছাড়া সম্মেলনে বঙ্গভবনের দরবার হলে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ ছাড়াও তার কাছ থেকেও দিক-নির্দেশনা নেবেন ডিসিরা। ডিসি সম্মেলনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় বা বিভাগের মন্ত্রী, উপদেষ্টা, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সিনিয়র সচিব, সচিবরা বিভিন্ন অধিবেশনে উপস্থিত থেকে ডিসি ও বিভাগীয় কমিশনারদের দিক-নির্দেশনা দেবেন। কর্ম-অধিবেশনগুলো হবে সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে। কার্য অধিবেশনগুলোয় সভাপতিত্ব করবেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

শফিউল আলম বলেন, ‘ডিসি সম্মেলনের সব কিছুই চূড়ান্ত করা হয়েছে। এখন বাকি শুধুই আনুষ্ঠানিকতা। ১৪ জুলাই রোববার এ সম্মেলন শুরু হচ্ছে। এর আগে সংবাদ সম্মেলনে বাকি সব বিষয় সম্পর্কে গণমাধ্যমকে জানানো হবে।’

ডিসি সম্মেলনকে সামনে রেখে গত দুই দিন ধরে প্রস্তুতি বৈঠক করা হচ্ছে। বৈঠক সূত্রে জানা যায়, ১৪ জুলাই সম্মেলন উদ্বোধনের পর ডিসিদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মুক্ত আলোচনায় অংশ নেবেন। ১৫ জুলাই সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে টানা ছয়টি কার্য-অধিবেশনে ১৯টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক করবেন ডিসিরা।

এরপর সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বঙ্গভবনে। ১৬ জুলাই তৃতীয় দিন টানা ৫টি অধিবেশনে ১২টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক হবে। ওইদিন বিকালেই প্রধান বিচারপতির সঙ্গে সাক্ষাতের সময় নির্ধারিত আছে। ১৭ জুলাই চতুর্থ দিনের জন্য নির্ধারিত ৮টি কার্য অধিবেশনে ১৯টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের মন্ত্রী-সচিবদের সঙ্গে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ১৮ জুলাই সম্মেলনের শেষ দিনে ৪টি অধিবেশনে ৪টি মন্ত্রণালয় ও বিভাগের বৈঠক নির্ধারিত আছে। এদিন বিকালেই জাতীয় সংসদে স্পিকারের সঙ্গে সাক্ষাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এবারের ডিসিদের সম্মেলনের আনুষ্ঠানিকতা।

সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়নে গতিশীলতা বাড়াতে ও তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের নীতি ও দর্শনের বাস্তবায়ন ও তা জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে জেলা প্রশাসক বা ডিসিরা কাজ করেন। তাই সরকারের নীতি-নির্ধারক ও জেলা প্রশাসকদের মধ্যে সরাসরি মতবিনিময় ও প্রয়োজনীয় দিক-নির্দেশনা দিতেই প্রতি বছরের মতো এবারও জেলা প্রশাসক সম্মেলনের আয়োজন করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।