তিউনিশিয়ায় সাগরে ভাসছে ৬৪ বাংলাদেশি

ঢাকা, রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯ | ২ ভাদ্র ১৪২৬

তিউনিশিয়ায় সাগরে ভাসছে ৬৪ বাংলাদেশি

ডেস্ক রিপোর্ট ১০:২৩ পূর্বাহ্ণ, জুন ১৩, ২০১৯

print
তিউনিশিয়ায় সাগরে ভাসছে ৬৪ বাংলাদেশি

ইউরোপে যাওয়ার চেষ্টায় ৬৪ বাংলাদেশি ১২ দিন ধরে তিউনিশিয়া উপকূলে সাগরে ভাসছেন। এসব বাংলাদেশিসহ ৭৫ জন অভিবাসী একটি নৌকায় ভেসে বেড়াচ্ছেন। বাকিরা মরক্কো, সুদান ও মিসরের নাগরিক বলে রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে। তিউনিশিয়া কর্তৃপক্ষ নৌকাটিকে ভিড়তে না দিলে উপকূলীয় শহর জারজিস থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে সাগরে অবস্থান করছেন এসব অভিবাসী।

গত ১০ মে ভূমধ্যসাগরে তিউনিশিয়া উপকূলে নৌকাডুবে ৩৯ বাংলাদেশির মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া জীবিত উদ্ধার কয়েকজন সর্বস্ব খুয়িয়ে দেশে ফিরে আসেন। তারা দালাল ধরে ইউরোপের দেশ ইতালিতে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন।

গতকাল বুধবার রেডক্রসের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, লিবিয়া থেকে যাত্রা করা এসব অভিবাসীকে তিউনিশিয়ার জলসীমায় উদ্ধার করে মিসরের নৌকাটি। কিন্তু তিউনিশিয়ার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর মেডিনাইন কর্তৃপক্ষ তাদের অভিবাসী কেন্দ্রগুলোতে স্থান সংকটের কারণ দেখিয়ে নৌকাটিকে তীরে ভিড়তে দেয়নি। এরপর থেকে নৌকাটি উপকূলীয় শহর জারজিস থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে সাগরে অবস্থান করছে।

দেশটির এক সরকারি মুখপাত্র জানিয়েছেন, নৌকার আরোহীদের খাবার এবং ওষুধ দিতে চাইলেও তারা সেসব নিতে রাজি হননি। তারা ইউরোপে ঢুকতে দেওয়ার সুয়োগ চাইছে।

রেড ক্রিসেন্টের কর্মকর্তা মোঙ্গি স্লিম রয়টার্সকে জানিয়েছেন, চিকিৎসকদের একটি দল নৌকাটিতে পৌঁছালেও তারা কোনো ধরনের সহায়তা নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। ১২ দিন ধরে সাগরে ভাসতে থাকায় তাদের অনেকের অবস্থাই খারাপ হয়ে পড়েছে।

তিউনিশিয়ার প্রতিবেশী লিবিয়ার পশ্চিম উপকূলকেই মূলত ইউরোপে ঢোকার মূল পথ হিসেবে ব্যবহার করে অভিবাসীরা। এজন্য তারা পাচারকারীদের মোটা অঙ্কের অর্থও দেয়। ২০১৯ সালের প্রথম চার মাসে ওই নৌপথে ১৬৪ জনের প্রাণহানি হয়েছে।