প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পরিষদেও আসতে পারে নতুন মুখ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯ | ৬ আষাঢ় ১৪২৬

প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পরিষদেও আসতে পারে নতুন মুখ

নিজস্ব প্রতিবেদক ৪:১৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১১, ২০১৯

print
প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পরিষদেও আসতে পারে নতুন মুখ

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী নতুন এমপিদের নিয়ে গঠিত হলো মন্ত্রিসভা। অধিকাংশ পুরানো মন্ত্রী বদলে নতুন মুখ স্থান পেয়েছে এবারের মন্ত্রিসভায়। তেমনি পরিবর্তনের ছোয়া লাগতে পারে প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পরিষদেও। ইতিমধ্যেই আলোচনায় এসেছে তেমনি কিছু নতুন মুখ। বর্তমান উপদেষ্টা মণ্ডলীদের কেউ বাদ পড়বেন কিনা সে ব্যাপারে নিশ্চিত না হওয়া গেলেও নতুন কয়েকজনকে নিয়োগ দেওয়া হতে পারে বলে জানা গেছে। একাধিক সূত্র থেকে জানা যায়, প্রধানমন্ত্রী তার উপদেষ্টা পরিষদে একটা বড় ধরনের পরিবর্তন আনতে পারেন।

নতুন করে যারা উপদেষ্টা পরিষদে অন্তর্ভূক্ত হতে পারেন তাদের মধ্যে আলোচনায় রয়েছেন সালমান এফ রহমান। এবার তিনি ঢাকা -১ আসন থেকে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন।

আলোচনায় রয়েছেন ড. প্রাণ গোপাল দত্ত। কুমিল্লার একটি আসন থেকে মনোনয়ন চাইলেও তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি। এর আগে ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসলে তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। দুই মেয়াদে তিনি উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করেন। তাকে প্রধানমন্ত্রীর স্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা করার চিন্তাভাবনা চলছে বলে গুঞ্জন উঠেছে।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর সাবেক মুখ্য সচিব এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদকে উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হতে পারে। তিনি এসডিজি বিষয়ক সমন্বয়কারী হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বর্তমানে কাজ করছেন।

উল্লেখ্য, আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে প্রথমবারের মত প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। কিন্তু দ্বিতীয় মেয়াদে ২০০৮ সালে সরকার গঠনের সময় প্রধানমন্ত্রী একটি শক্তিশালী উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করেন। সেই উপদেষ্টা পরিষদে এইচটি ইমাম, ড. আলাউদ্দীন আহমেদ, সৈয়দ মোদাচ্ছের আলী, ড. মশিউর রহমান, ড. গওহর রিজভী, তৌফিক এলাহিসহ স্ব-স্ব ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের তিনি উপদেষ্টা হিসেবে নিয়ে আসেন।

২০১৪ সালেও আওয়ামী লীগ ক্ষমতা গ্রহণের পর উপদেষ্টা পরিষদের তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। কেবলমাত্র অধ্যাপক মোদাচ্ছের আলী এবং আলাউদ্দীন আহমেদকে উপদেষ্টা পরিষদ থেকে বাদ দেয়া হয়। এছাড়া ইকবাল সোবহান চৌধুরীকে প্রধানমন্ত্রীর তথ্য উপদেষ্টা হিসেবে অন্তর্ভূক্ত করা হয়।