কৃষ্ণগহ্বর

ঢাকা, শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১ | ১০ মাঘ ১৪২৭

কৃষ্ণগহ্বর

মানিক চন্দ্র দে ৩:৫৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০২০

print
কৃষ্ণগহ্বর

সৌরমণ্ডলে ছায়াপথের
কৃষ্ণগহ্বর থেকে একদা বিকিরণ দেখেছিলেন স্টিফেন্স হকিং।

আজ পৃথিবীর মানুষগুলোর হৃদয়ের কৃষ্ণগহ্বর থেকে
সীমাহীন বিকিরণে বিপর্যস্ত পৃথিবীর বুক!
এই ফুল, জোছনা, নদী, সবুজ বনস্পতি ধ্বংসে মাতোয়ারা
মানুষগুলোরই দামি ড্রয়িংরুমে সাজানো থাকে এসবের মূল্যবান তৈলচিত্র।
পরমতসহিষ্ণুতা আর দেবভক্তির অমল ধবল হৃদয়ে
লুকিয়ে থাকে লেলিহান আগুনের শিখা!
অভিধান খুঁজে খুঁজে ভালো ভালো সব শব্দগুলো বেছে
নিয়ে রচনা করে ওরা মানবিক সুপাঠ্য এক একটি কাব্য।
এদেরই কারও কারও কিংবা অনেকেরই অদৃশ্য কৃষ্ণগহ্বরের
কালো গহ্বর থেকে বের হওয়া বিকিরণে
নষ্ট হচ্ছে নিষ্পাপ কিশোরী, তরুণী, এমনকি শিশুর নরম শরীর।
কতিপয় পুরুষ নামের অদ্ভুত জন্তুদের খাদ্যতালিকা কি দিন দিন পাল্টে যাচ্ছে?
এখানে গরিব নেই, ধনী নেই, নেই সাদা কালোর ভেদাভেদ,
কঠোর কঠিন শক্তিতে জানোয়ারকেও যেন হার মানায় ওদের হিংস্র থাবার ধারাল নখ।
এ কী লেলিহান অবাঞ্ছিত রাক্ষুসে ক্ষুধায় আক্রান্ত আজ
আজ পৃথিবীর মানুষ!
বিপ্রলিপ্সায় পিছিয়ে নেই কিছু নারীও,
ধনসম্পদ, ক্ষমতার লিপ্সাকে ভালোবেসে
এগুলোর সঙ্গে লেপ্টে থাকার প্রবল তৃষ্ণায়
ইচ্ছে করেই দিচ্ছে ঝাঁপ আগুনে, সংগোপনে।
নিজে ধ্বংস হচ্ছে, ধ্বংস করছে বিপরীত লিঙ্গের মানুষটিকেও।

বিশ্বব্যাপী অবাধে চলছে বর্ণবাদী তা-বলীলা।
আবার তাদেরই হাতে বর্ণবাদবিরোধী পতাকা!
কী নিদারুণ বৈপরীত্যের খেলা চলছে পৃথিবীময়।
শিক্ষা, ধার্মিকতা, উদারতা, ভক্তি, বিশ্বপ্রেমের ক্রমবর্ধমান
আলোর মাঝে কালো বিকিরণ আজ কোন গহ্বর থেকে ভেসে আসছে?
তবে কি করণাপাটব ইন্দ্রিয় দিয়ে যা দেখছি, যা শুনছি যা বুঝছি,
তার সবই মিথ্যা, সবই ছলনার ছলাকলা! সত্যের উল্টোপিঠ?
সত্য কি তবে কৃষ্ণগহ্বরের ভিতরে লুকায়িত?
চন্দ্র সূর্যের প্রভাবে দিনরাত্রি, ঋতুর বিবর্তন সবই তো
চলছে ঠিক আগেরই মতন,
তবে মানুষের কেন এত বিবর্তন?
স্টিফেন হকিং থাকলে হয়তো বলতে পারতেন।
তাই আবার জন্ম চাই স্টিফেন হকিংয়ের নবরূপে, তবে
এবার গ্যালাক্সির ছায়াপথে থাকা কৃষ্ণগহবরের বিকিরণ নিয়ে গবেষণা নয়।
তথাকথিত সাদা মনের মানুষগুলোর মাঝে লুকিয়ে থাকা কৃষ্ণগহ্বরের
বিকিরণগুলোকে আবিষ্কার করে দিতে।
সতর্ক করে দিতে সহজ সরল শিশু, অবলা নারী, নিরীহ পুরুষ কিংবা-
সংখ্যলঘু দুর্বল মানুষগুলোকে।