তালের গুণাগুণ

ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ | ২ কার্তিক ১৪২৬

তালের গুণাগুণ

হালরং ডেস্ক ১:২৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ০১, ২০১৯

print
তালের গুণাগুণ

বর্ষায় পাকে তাল। বিশেষ করে শ্রাবণের শেষ দিকে তাল পাকতে শুরু করে, ভাদ্র মাসজুড়ে গাছে কাদি কাদি পাকা তাল পাওয়া যায়। তাল কচি ও পাকা দুই অবস্থায়ই খাওয়া যায়। তাল যেমন নানাভাবে খাওয়া যায়, তেমনি তালের পুষ্টিগুণও অনেক।

তালের পুষ্টিগুণ
পাকা তালের প্রতি ১০০ গ্রাম খাদ্যযোগ্য অংশে রয়েছে-খাদ্যশক্তি ৮৭ কিলোক্যালরি, জলীয় অংশ ৭৭.৫ গ্রাম, আমিষ .৮ গ্রাম, চর্বি .১ গ্রাম, শর্করা ১০.৯ গ্রাম, খাদ্য আঁশ ১ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ২৭ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ৩০ মিলিগ্রাম, আয়রন ১ মিলিগ্রাম, থায়ামিন .০৪ মিলিগ্রাম, রিবোফ্লাভিন .০২ মিলিগ্রাম, নিয়াসিন .৩ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৫ মিলিগ্রাম।

উপকারিতা
১. তাল এন্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ হওয়ায় ক্যান্সার প্রতিরোধে সক্ষম। এ ছাড়া স্বাস্থ্য রক্ষায়ও তাল ভূমিকা রাখে। স্মৃতি শক্তি ভালো রাখে।
২. তাল ভিটামিন-বি এর আধার। তাই ভিটামিন-বি এর অভাবজনিত রোগ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।
৩. তালে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস রয়েছে। যা দাঁত ও হাড়ের ক্ষয় রোধে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।
৪. অন্ত্রের রোগ ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে তাল বিশেষ অবদান রাখে।

তালের পিঠা
উপকরণ : ১.তালের ঘন করে জাল করা রস ১ কাপ, ২. চিনি দেড় কাপ, গুড়ও দিতে পারেন। ৩. চালের গুঁড়া ২ কাপ, ময়দা আধা কাপ, ৪. নারকেল কুঁড়া ১ কাপ, ৭. লবণ ১ চিমটি, ৮. তেল ভাজার জন্য।

প্রণালি : তালের পিঠা বানানোর নিয়মাবলি অনেকটা তেলের পিঠা বানানোর মতোই। এখানে শুধু আটা ময়দার সঙ্গে তালের রস যোগ করা হয়। চালের গুঁড়া ময়দা, চিনি হালকা লবণ, এলাচ গুঁড়া বা দু’একটা এলাচসহ পানি দিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিন।