‘বিতর্কিত’ বক্তা তাহেরীর বিরুদ্ধে মামলা খারিজ

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬

‘বিতর্কিত’ বক্তা তাহেরীর বিরুদ্ধে মামলা খারিজ

নিজস্ব প্রতিবেদক ১:২০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৩, ২০১৯

print
‘বিতর্কিত’ বক্তা তাহেরীর বিরুদ্ধে মামলা খারিজ

ওয়াজ মাহফিলের নামে ধর্মীয় অনুভূতি ও মূল্যবোধের ওপর আঘাত সৃষ্টির অভিযোগে মুফতি মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন তাহেরীর বিরুদ্ধে যে মামলা করা হয়েছে তা খারিজ করে দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসামছ জগলুল হোসেন মামলাটি গ্রহণ করার মতো পর্যাপ্ত উপাদান না থাকায় তা খারিজ করে দেন। ট্রাইব্যুনালের পেশকার শামীম আল মামুন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে দাওয়াতে ঈমানী বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তাহেরীর বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভূতি ও মূল্যবোধের ওপর আঘাত সৃষ্টির অভিযোগে মামলার আবেদন করা হয়েছে গত রোববার। বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনাল আসসামছ জগলুল হোসেনের আদালতে এ মামলার আবেদন করেন ঢাকা আইনজীবী সমিতির কার্যকরী সদস্য মো. ইব্রাহিম খলিল। পরে আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করে সোমবার আদেশ দেবেন বলে জানান। এরপর সোমবার আদেশ না দিয়ে মঙ্গলবার রায় দেয়ার জন্য দিন ধার্য করেন।

মামলার অভিযোগে বাদী বলেন, ইসলাম ধর্মের পথপ্রদর্শক হজরত মুহম্মদ (সা.) এর আদর্শ ও পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কুরআন ওয়াজ মাহফিলের মধ্যে নাচ-গান সমর্থন করে না। ইসলামের রীতিনীতি অনুযায়ী আসামির কর্মকাণ্ড মুনাফেকির শামিল। ওয়াজের মধ্যে গান গাওয়া ইসলাম সমর্থন করে না। এক ব্যক্তির ওই দিয়ে তার বিড়ি খাওয়ার দোয়াটিও ইসলামের কোথাও নেই।

তাহেরীর ভাইরাল হওয়ার অন্যতম আলোচিত ভিডিও ‘ঢেলে দিই’? এক অনুষ্ঠানে ওয়াজ করার ফাঁকে চায়ে চুমুক দেন তিনি। এ সময় সামনে উপবিষ্ট দর্শক-শ্রোতাদের লক্ষ করে বলেন, ‘চা খাবেন? ঢেলে দিই?’ চায়ের কাপ হাতে নিয়ে ঢেলে দেওয়ার ভঙ্গিও করেন তিনি। ‘চা খাব? খাই একটু? আপনারা খাবেন? ঢেলে দিই?’ তাহেরীর এমন মন্তব্য হাস্যরসের পাশাপাশি বিক্ষুব্ধ করেছে সাধারণ মানুষকে। দেশের ধর্মানুরাগী মানুষ ইমাম, মুফতি, মাওলানাদের বরাবরই সম্মান দেখিয়ে থাকে। তারা সাধারণের সঙ্গে মশকরা করবেন কিংবা উদ্ভট পরিস্থিতির সৃষ্টি করবেন এমনটি কেউ প্রত্যাশা করে না। সাধারণ মানুষের ক্ষুব্ধ হওয়ার যৌক্তিক কারণও রয়েছে। এক কাপ চা কতজন মানুষকে ‘ঢেলে’ দিতে পারবেন তাহেরী? ইয়ার-দোস্তরা অনেক সময়ই এক কাপ চা দু’জনে ভাগ করে খায় তাই বলে একজন ইসলামিক বক্তা কীভাবে ওয়াজ শুনতে আসা অসংখ্য মানুষকে বলতে পারেন ‘ঢেলে দিই’? তার সঙ্গে দর্শক-শ্রোতাদের ঠাট্টা-মশকরার সম্পর্কও নেই।

তাহেরীর বিতর্কিত আরও মন্তব্যের মধ্যে রয়েছে- ‘ভাই, পরিবেশটা সুন্দর না, কোনো হৈ চৈ আছে?’ আরেকটি বক্তব্যে তিনি বলেছেন, ‘বসেন, বসেন, বইসা যান।’ গত বছর তার এমন বক্তব্য ফেসবুকে ব্যাপক আকারে ভাইরাল হয়। তার বলার মধ্যে ইয়ার্কির সুর ব্যথিত করেছে অনেককেই। ওয়াজ মাহফিলে আয়োজিত জিকির অনুষ্ঠানে ওই শব্দগুলো সুর করে বলেন তাহেরী।

আরেক ওয়াজে তাহেরী বলেন, ‘তাহেরীর মুখ দিয়া যেইডা বাইর হয় হেইডই মার্কেট পায়। চিল্লাইয়া মার্কেট পাওন যাইব?’