আরেক বেঞ্চে মিন্নির জামিন আবেদন শুনানি কাল

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

আরেক বেঞ্চে মিন্নির জামিন আবেদন শুনানি কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক ৩:১৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৮, ২০১৯

print
আরেক বেঞ্চে মিন্নির জামিন আবেদন শুনানি কাল

প্রথম দফায় ব্যর্থ হওয়ার পর হাই কোর্টের আরেকটি বেঞ্চে জামিন আবেদন করেছেন বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় তার স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি। মিন্নির করা জামিন আবেদন আগামীকাল সোমবার হাইকোর্টের নতুন বেঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে।

হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এ বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে গত ৮ আগস্ট মিন্নির পক্ষে করা জামিন আবেদনের ওপর শুনানি হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ মো. জাকির হোসেন ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়।

সেসময় মিন্নির জামিনের আবেদনের শুনানি নিয়ে জামিন না দিয়ে জামিন প্রশ্নে রুল জারি করতে চান আদালত। আদালত বলেন, ‘জামিন দিতে হলে আগে এ মামলার ১৬৪ ধারায় দেয়া জবানবন্দিগুলো দেখতে হবে। তাই আমরা আজ শুধু রুল জারি করতে পারি। আপনারা ১৬৪ ধারার জবানবন্দি নিয়ে আসুন।’

মিন্নির আইনজীবী জেড আই খান পান্না এ সময় আবার মিন্নির জন্য জামিন প্রার্থনা করলে আদালত তাকে বলেন, ‘আমরা এখন রুল দিতে পারি, অন্যথায় আপনারা আবেদনটি ‘টেক ব্যাক’ করতে পারেন।’

তখন মিন্নির আইনজীবী জেড আই খান পান্না বলেন, ‘ওকে, আমরা জামিন আবেদনটি ‘টেক ব্যাক’ (ফেরত নিচ্ছি) করছি।’

জামিন আবেদন হাইকোর্ট থেকে ফেরত নেয়ার ১০ দিন পর আজ রোববার মিন্নির আইনজীবীরা নতুন বেঞ্চে যান। বিচারপতি এম.ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে জামিন আবেদনটি উপস্থাপন করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী জেড আই খান পান্না। তাকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী মাক্কিয়া ফাতেমা ইসলাম।

এর প্রেক্ষিতে আগামীকাল জামিন শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে। এ বিষয়ে মিন্নির আইনজীবী জেড আই খান পান্না বলেন, আমরা জামিন শুনানির আবেদন উপস্থাপন করেছি। সম্ভাবত আগামীকাল শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

উল্লেখ্য, আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় এখন পর্যন্ত ১৫ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে মিন্নিসহ ১৫ জন অভিযুক্তই রিফাত হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। যদিও পরবর্তীতে মিন্নি তার জবানবন্দি প্রত্যাহার করতে চেয়েছিলেন। তবে আদালত তা মঞ্জুর করেননি।

এ মামলার প্রধান অভিযুক্ত নয়ন বন্ড ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হন। এছাড়া এ মামলার এজাহারভুক্ত ৪ আসামি এখনও পলাতক।