জাহালমকাণ্ডের ‘মূল হোতা’ সাত দিনের রিমান্ডে

ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

জাহালমকাণ্ডের ‘মূল হোতা’ সাত দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক ১০:০৫ অপরাহ্ণ, আগস্ট ০১, ২০১৯

print
জাহালমকাণ্ডের ‘মূল হোতা’ সাত দিনের রিমান্ডে

সোনালী ব্যাংকের ঋণ জালিয়াতির ঘটনায় বিনা অপরাধে জেল খেটেছিলেন জাহালম। আলোচিত ওই কেলেঙ্কারির অন্যতম প্রধান আসামি আমিনুল হক সরকারকে রিমান্ডে নিয়ে ফের জেরা করছে দুদক। সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির ঘটনা পুনঃতদন্তের অংশ হিসেবে সহকারী পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান তাকে জেরা করছেন।

আজ (১ আগস্ট) বেলা ১২টা ৪৫ মিনিটে কেরানীগঞ্জ কারাগার থেকে তাকে সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে আনা হয়। এ দফায় তাকে ৭ দিন জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এর আগে জুন মাসেও রিমান্ডে এনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল। দুদক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সংস্থাটি জানায়, মানিকগঞ্জের মো. আমিনুল হক সরকার ওরফে মো. আমিনুল হক ওরফে হকসাব দুদকের ৩৩টি মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি এবং সোনালী ব্যাংকের ১৮ কোটি ৪৭ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাৎ সংক্রান্ত সংঘবদ্ধ জালিয়াত ও প্রতারক দলের মূল হোতা।

সূত্র জানায়, ২০১০ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর গোয়েন্দা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর জালিয়াতির সঙ্গে তার সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেন।

জানা গেছে, ব্র্যাক ব্যাংকের বেগম রোকেয়া সরণি শাখায় তার নামে পরিচালিত হিসাবে ৫২ লাখ ১৪ হাজার ৮৯৭ টাকা ও মিরপুর শাখায় ৩০ লাখ ৬৪ হাজার ১৮৯ টাকা আদালতের নির্দেশে অবরুদ্ধ (ফ্রিজ) করা হয়েছে। এ ছাড়া মানিকগঞ্জ রেজিস্ট্রি অফিসের ১০টি দলিল মূলে মানিকগঞ্জ সদরে এক কোটি ১৭ লাখ ৮৪ হাজার টাকায় কেনা ৪৭৩ শতাংশ জমি আদালতের নির্দেশে ক্রোক করা হয়।

সোনালী ব্যাংকের প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা জালিয়াতির অভিযোগে করা ৩৩ মামলায় আবু সালেককে অন্যতম আসামি করা হয়। কিন্তু তদন্তের সময় ঠাকুরগাঁওয়ের সালেকের বদলে টাঙ্গাইলের জাহালমকে আসামি করা হয়। ফলে সালেকের পরিবর্তে তিন বছর জেল খাটেন জাহালম।
বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে হাইকোর্টের নির্দেশে জাহালমকে মুক্তি দেওয়া হয়।