স্বাক্ষর জাল করে অর্থ আত্মসাৎ

ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭

স্বাক্ষর জাল করে অর্থ আত্মসাৎ

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি ৪:৪২ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০২১

print
স্বাক্ষর জাল করে অর্থ আত্মসাৎ

ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ২২নং মাইলবাড়ীয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন উন্নয়নের সরকারি বরাদ্দের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি উপজেলা ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। লিখিত অভিযোগে তার বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংক লি. মহেশপুর শাখার হিসাব নং-২৪১৮২৩৪০৬৫০৯৮ বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন উন্নয়নের সরকারি বরাদ্দের ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা বিদ্যালয় উন্নয়নের কাছে ব্যয় না করে নিজে আত্মসাৎ করেছেন।

তার বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ে সময়মত উপস্থিত না থাকা, ছাত্র-ছাত্রীদের উপবৃত্তির টাকা আত্মসাৎ ও বিদ্যালয়ে বসে মাদক সেবনেরও অভিযোগ রয়েছে। জেলা প্রথমিক শিক্ষা কর্তকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে গত বুধবার সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা লক্ষন কুমার দাস ও মহেশপুর উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ইসতিয়াক ২২ নং মাইলবাড়ীয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তদন্তে আসেন।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ফারুক হোসেন জানান, ভুয়া রেজুলেশন করে আমার ও অন্যান্য সদস্যদের স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন উন্নয়নের সরকারি বরাদ্দের ৩ লাখ ৩০ হাজার টাকা বিদ্যালয় উন্নয়নের কাছে ব্যয় না করে নিজে আত্মসাৎ করেছেন যার প্রমাণ তদন্তটি পেয়েছেন। আমরা তার উপযুক্ত শাস্তি চাই।

অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম অভিযোগ অস্বীকার করে তিনি বলেন, আমি কোনো অর্থ আত্মসাৎ করিনি। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে।

সহকারী জেলা প্রথমিক শিক্ষা অফিসার লক্ষন কুমার দাস জানান, লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা বিষটি তদন্ত করছি তার বিরুদ্ধে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করব।