হাতপাখায় প্রাণ জুড়ায়

ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ আগস্ট ২০২০ | ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭

হাতপাখায় প্রাণ জুড়ায়

সুশান্ত ভৌমিক, রংপুর ১০:২৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৭, ২০২০

print
হাতপাখায় প্রাণ জুড়ায়

শিল্পী আকবরের গাওয়া ‘তোমার হাতপাখার বাতাসে প্রাণ জুড়িয়ে আসে, আরো কিছু সময় তুমি থাকো আমার পাশে’- এ গান শোনেননি বা হাতপাখা দেখেননি- এমন মানুষ মেলা ভার। তা তিনি যত বড় শহরে মানুষই হোন না কেন! হাতপাখা বাংলার ইতিহাস-ঐতিহ্যেরই অংশ। এ হাতপাখার রকমফেরও অনেক। কোনোটা নিছকই তালপাতার পাখা, যার কাজ শুধুই গরম থেকে রক্ষা করা। আবার এমন হাতপাখাও আছে, যা শুধু বাতাসই দেয় না সৌন্দর্য গুণেও অনন্য।   

সৌন্দর্যের দিক দিয়ে সবচেয়ে এগিয়ে রাখার মতো যে পাখা সেটি রঙিন সুতোর ‘নকশি পাখা’। অনেকটা নকশিকাঁথার মতো। তবে পাখার জমিন যেহেতু ছোট, সেহেতু সেখানে কারুকাজের সুযোগও কম। তবে সুতো দিয়েই পাখার গায়ে পাখি, ফুল, লতা-পাতা কিংবা ভালোবাসার মানুষের নাম অথবা ভালোবাসার চিহ্ন ফুটিয়ে তোলা হয়।

পাখার বাতাসে প্রাণ যেমন জুড়ায়, রংপুর মহানগরীর কাঁচারি বাজার এলাকা এ ধরনের পাখা বিক্রির জন্য প্রসিদ্ধ। সড়কের পাশেই পাখার পসরা সাজিয়ে বসেন বিক্রেতারা। তাদের কেউ কেউ দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে এখানে পাখার ব্যবসা করে আসছেন। শীতের তিন-চার মাস বাদ দিয়ে বছরের বাকি সময় জুড়েই এখানে পাখা বিক্রি হয়।

কাঁচারি বাজারের পাখা বিক্রেতা মাসুদ রানা জানান, ১৯৮৯ সালের পনেরই জুন থেকে তিনি এখানে পাখা বিক্রি করছেন। সারা বছরই তিনি পাখা বিক্রি করেন। তবে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি থেকে অক্টোবর পর্যন্তই মূলত বেচাকেনা থাকে। শীতের সময় কিছু জিনিসপত্র বিক্রি করেন, তবে নকশি পাখাও রাখেন। কেউ চাইলে যেন দিতে পারেন।

কাপড়ের পাখা তৈরি হয় রংপুরের তারাগঞ্জ, পীরগাছা ও বদরগঞ্জে। এসব পাখার দাম সাধারণত ৩০ টাকা থেকে ৫০ টাকার মধ্যে।