খুলনায় পুলিশে নিয়োগ বাণিজ্য

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৫ কার্তিক ১৪২৬

খুলনায় পুলিশে নিয়োগ বাণিজ্য

খুলনা ব্যুরো ৪:৫৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ০৪, ২০১৯

print
খুলনায় পুলিশে নিয়োগ বাণিজ্য

খুলনায় পুলিশে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। এক শ্রেণির দালালচক্র পুলিশে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে হাতিয়ে নিয়েছে মোটা অঙ্কের অর্থ। অবশ্য এ নিয়োগ বাণিজ্যের সঙ্গে পুলিশেরও একাধিক সদস্যের সম্পৃক্ততার অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে, পুলিশে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে ইতিমধ্যেই ইউপি সদস্য আরিফুজ্জামান অরুণসহ দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ বিষয়টির তদন্ত শুরু করেছে বলে জানা গেছে। এ সময় পুলিশ তার কাছ থেকে নগদ টাকাসহ চেক, ফাঁকা স্ট্যাম্প ও চুক্তিপত্রও উদ্ধার করেছে।

তেরখাদা থানার ওসি সালেকুজ্জামান বলেন, অরুণ দীর্ঘদিন ধরেই পুলিশে চাকরি দেওয়ার নাম করে অনেকের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। জনৈক নুরুল ইসলামের কাছ থেকেও পুলিশে চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা নেয় সে। নুরুল ইসলাম প্রথমে তাকে এক লাখ টাকা দেন। পরে আরও আড়াই লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু নুরুল ইসলমের চাকরি না হলে তাকে টাকা দিতে অস্বীকার করেন অরুণ।

ফলে টাকা আদায়ের জন্য নুরুল ইসলাম গত সোমবার তেরখাদা থানায় মামলা দায়ের করেন। ওসি আরও বলেন, আমরা চেষ্টা করছি তার বিরুদ্ধে এ ধরনের আর কোনো কর্মকা- আছে কি-না তা খতিয়ে দেখতে। গত মঙ্গলবার তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

অপরদিকে, নগরীর দৌলতপুর নতুন রাস্তার মোড়স্থ পাবলা কবির বটতলা থেকে পুলিশ পরিচয়ে প্রতারণার মামলায় মো. কবির হাওলাদারকে (৩৫) গ্রেফতার করা হয়। গত মঙ্গলবার মহানগর হাকিম শাহীদুল ইসলাম তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন। কবির হাওলাদার বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ থানার সোনাতলা গ্রামের আব্দুল জব্বার হাওলাদারের ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২৮ জুন রাত সাড়ে ৮টার দিকে দৌলতপুর থানাধীন পাবলা কবির বটতলার আনোয়ারের পানের দোকানের সামনে একজন লোককে সন্দেহ হলে তাকে চ্যালেঞ্জ করেন এসআই বিকাশ বাড়ৈ বিপ্লব।

এ সময় সে নিজেকে পুলিশের এসআই পরিচয় দেয় এবং খালিশপুরে ডিবি অফিসে কর্মরত বলে জানায়। তবে জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে সে পুলিশের লোক নয়, পুলিশ পরিচয়ে সে প্রতারণার মাধ্যমে চাঁদা আদায়সহ বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে আসছে।

পরে তার দেহ তল্লাশি করে বাংলাদেশ পুলিশ, রহিদুল ইসলাম, এসআই, মুগদা থানা ঢাকার একটি পরিচয়পত্র পাওয়া যায়। এ ঘটনায় এসআই বিকাশ বাড়ৈ বিপ্লব বাদী হয়ে কবির হাওলাদারের বিরুদ্ধে দৌলতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।