অন্তরঙ্গ দৃশ্যে আপত্তি নেই

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৫

অন্তরঙ্গ দৃশ্যে আপত্তি নেই

সাজ্জাদ হোসেন ১২:৫৫ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ০৮, ২০১৯

print
অন্তরঙ্গ দৃশ্যে আপত্তি নেই

নুরু মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার খ্যাত নায়িকা ক্যামেলিয়া রাঙ্গা। ব্যস্ত রয়েছেন শিকল ও মানবসহ বেশ কয়েকটি সিনেমার কাজ নিয়ে। নিজ ক্যারিয়ার ও বাংলা সিনেমার বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলেছেন সাজ্জাদ হোসেনের সঙ্গে।

অভিনয়ে শুরুটা কীভাবে?
শুরুটা সিনেমা দিয়েই। যদিও আমার প্রথম সিনেমা মুক্তি পাওয়ার আগে ২০১৬ সালে তপস্বিনী নামের একটি নাটক প্রচারিত হয়। নাটকটিতে আমার বিপরীতে অভিনয় করেন জনপ্রিয় অভিনেতা সজল। এরপর চলচ্চিত্রের মাধ্যমে মিডিয়ায় নিজেকে মেলে ধরার চেষ্টা করি। পরের বছর ২০১৭ সালে মুক্তি পায় আলোচিত ও জনপ্রিয় চলচ্চিত্র ‘নুরু মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার।’ পরিচালক মিজানুর রহমানের চলচ্চিত্র ছিল সেটি। আর এতে আমার সহশিল্পী ছিলেন ফজলুর রহমান বাবু। তাই বলা যায়, সিনেমার মাধ্যমেই আমার ক্যারিয়ারের শুরু।

প্রথমেই দুজন তারকা অভিনেতার সঙ্গে কাজ করেছেন, কেমন লেগেছে?
হ্যাঁ, আমার ক্যারিয়ারের শুরুতেই দুজন তারকা অভিনেতার সঙ্গে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছি। তপস্বী নাটকে সজল ভাই আর ‘নুরু মিয়া ও তার বিউটি ড্রাইভার’ সিনেমায় ফজলুর রহমান বাবু ভাই। বাবু ভাইয়ের সঙ্গে কাজ শুরু করার আগে একটু নার্ভাসনেস কাজ করছিল। কিন্তু কাজ শুরু করার পর সেটা কেটে গিয়েছে। বাবু ভাই একজন অসাধারণ অভিনেতা। তিনি আমার অভিনয়কে সহজ করে দিয়েছিলেন। সত্যি কথা বলতে, অভিনয় জীবনের শুরুতে এমন একজন শিল্পীর সঙ্গে কাজ করতে পারা ভাগ্যের। অনেক কিছু শেখা যায়, শতভাগ উজাড় করে দেওয়ার আগ্রহ জন্মে।

বর্তমানে কি কি সিনেমা নিয়ে কাজ করছেন?
পরিচালক দৃষ্টি তন্ময়ের শিকল নামের একটি কাহিনীনির্ভর সিনেমায় কাজ করছি। সিনেমাটি পুরান ঢাকার একটি মুসলিম পরিবারের মেয়ে হিসেবে দেখা যাবে আমাকে। ফারিয়া চরিত্রে অভিনয় করব। আমার বিপরীতে অভিনয় করবে অভিনেতা নায়ক ওমর মালিক। ওমরকে একটি হিন্দু ছেলের চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা যাবে। দুই ধর্মের অসম প্রেমকে নিয়েই মূলত, শিকল সিনেমার চিত্রনাট্য। গতানুগতিক ধারার বাইরে আর্টফিল্ম এবং ইন্টারনেইনিং দুভাবেই সিনেমাটিকে দর্শক উপভোগ করতে পারবে না বলে মনে করি।

এছাড়া মোশন পিকচার্সের ব্যানারে মানব নামের একটি সিনেমায় কাজ করছি। সিনেমাটি চিত্রনাট্য, পরিচালনা ও সম্পাদনা করেছেন জুয়েল রানা, অভিনয় করবেন ওমর মালিক ও শিমুল খান। এখানে প্রেম করে বিয়ে করার মাধ্যমে একটি দম্পতির জীবনের টানাপড়েন চিত্রিত হয়েছে। আশা করি, সিনেমা দুটি জনপ্রিয়তা পাবে।

সিনেমায় অশ্লীলতা একটি সমস্যা, কীভাবে এ থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়?
আসলে সিনেমায় আশ্লীলতার জন্য আমাদের সবার দায় আছে। সেন্সর বোর্ড কিংবা দর্শকদের দায়ী করে লাভ নেই। কারণ দর্শকদের যা দেখানো হবে দর্শক তাই দেখবে। তবে আমি মনে করি, যদি আমরা সচেতন হই রাতারাতি খ্যাতি অর্জনের লোভ থেকে বিরত থাকতে পারি। তাহলে এ থেকে পরিত্রাণ পাওয়া সম্ভব। কাজ অল্প করি কিন্তু মানসম্মত কাজ করব। কাহিনীনির্ভর সিনেমা করব। আমি বিশ্বাস করি, ভালো সিনেমা করেও খ্যাতি পাওয়া যায়। অনেকে সস্তা খ্যাতি লাভে আশায় ইন্ডাস্ট্রিতে এসে হারিয়ে গেছে।

অন্তরঙ্গ দৃশ্যে অভিনয়ের ব্যাপারে আপনার অবস্থান কি?
আসলে অন্তরঙ্গ দৃশ্যে অভিনয় যদি শুধু অশ্লীলতার জন্য হয়ে থাকে তাহলে এ ব্যাপারে আমার তীব্র আপত্তি রয়েছে। তবে সিনেমার কাহিনীর প্রয়োজনে বিশেষ দৃশ্যে অভিনয়ের ক্ষেত্রে আমি মনে করি না কোনো সমস্যা আছে। আসলে এখানে উদ্দেশ্যটা ফ্যাক্ট।

দর্শকের উদ্দেশে কিছু বলতে চান?
দর্শকের উদ্দেশে বলতে চাই, আপনারা বেশি বেশি বাংলাদেশি সিনেমা দেখুন। দেশকে ভালোবাসুন, দেশীয় সংস্কৃতিকে ভালোবাসুন। আমাদের দেশে অনেক ভালো ভালো সিনেমা তৈরি হচ্ছে।

আমাদের দেশের অভিনেতা-অভিনেত্রীরা বিদেশি সিনেমায় ভালো করছে তাই আমি মনে করি, আপনারা যদি আমাদের অনুপ্রেরণা দেন তাহলে আমরা আরও আপনাকে ভালো সিনেমা আপনাদের উপহার দিতে পারব। আমাদের সক্ষমতা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই, শুধু বলব আপনারা বেশি বেশি হলে গিয়ে বাংলাদেশি সিনেমা দেখুন।